প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রোহিঙ্গা পুনর্বাসন দীর্ঘায়িত হলে বাংলাদেশে উগ্রপন্থার সৃষ্টি হতে পারে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

তরিকুল ইসলাম : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, রোহিঙ্গা পুনর্বাসন দীর্ঘায়িত হলে বাংলাদেশে উগ্রপন্থার সৃষ্টি হতে পারে। তারা মিয়ানমার ফেরত গেলে এই অঞ্চলের দেশগুলি তাদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা নিশ্চিত করবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়ায় বিশ্ব বড় একটি জেনোসাইডের হাত থেকে বাঁচলো। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়া না হলে তার মিয়ানমারে গণহত্যার শিকার হতো।প্রধানমন্ত্রী পৃথিবীকে বড় গণহত্যা থেকে বাঁচিয়েছেন।

রোববার কন্টিনেন্টাল হোটেল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও ঢাকার জাতিসংঘ অফিসের যৌথ উদ্যোগে ‘বাংলাদেশ ও মানবাধিকার’ শীর্ষক সেমিনারের আয়োজন করা হয়। এতে যোগ দিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

মোমেন বলেন, মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের জন্য একটি সেফজোন তৈরির প্রস্তাব নিয়ে কাজ করছে বাংলাদেশ। যেখানে ভারত, চীন ও আশিয়ানের দেশগুলি রোহিঙ্গাদের দেখাশোনা করবে। কারণ, এদের প্রতি মিয়ানমারের আস্থা আছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথমে এটি উপস্থাপন করেছিলেন। পরে যেসব অ্যারেঞ্জমেন্ট হয়েছে, সেখানে এটি ছিল না। আমরা এ বিষয়ে নতুন করে কাজ শুরু করছি।

চলমান সংকট সমাধানে জাতিসংঘকে পাঁচটি প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে যতদিন পর্যন্ত সমস্যার সমাধান না হয়, ততদিন পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের অন্য দেশে স্থানান্তরের ব্যবস্থা করা। সমস্যা দূর হলে তারা মিয়ানমারে ফেরৎ যাবে। কফি আনান কমিশনের পরামর্শ বাস্তবায়ন করতে জাতিসংঘকে মিয়ানমারের প্রতি চাপ অব্যাহত রাখা।

মানবাধিকার ইস্যুতে বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে রোল মডেল উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, মানবাধিকারের সবচেয়ে বড় উদাহরণ হচ্ছে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়া। মানবাধিকার রক্ষায় আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং আমাদের যে উচ্চ প্রবৃদ্ধি হয়েছে তার বড় কারণ হচ্ছে সুশাসনের প্রতিষ্ঠা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত