প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শিক্ষক হতে চায় প্রেমের দায়ে আড়াই বছর অন্ধকারে অবরুদ্ধ থাকা কলেজছাত্রী

রুহুল আমিন : শত্রু পরিবারের ছেলের সঙ্গে প্রেম করার অপরাধে তালাবদ্ধ ঘরে মেধাবী শিক্ষার্থী দুই বছর অবরুদ্ধ থাকার পর স্থানীয় স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জের ওই কলেজছাত্রীকে।

জ্ঞান ফিরিয়ে সে জানায়, আমি লেখাপড়া করে উন্নত জীবন গড়ে পেশায় শিক্ষকতাকেই বেছে নিতে চাই। শুক্রবার দুপুরে মেয়েটিকে দেখতে যান নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মশিউর রহমান। পরে তিনি সাংবাদিকদের জানান, মেধাবী শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবনের গতি সচল রাখতে তিনি সার্বিক সহায়তা করবেন বলে আশ্বাস দেন।

দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার ২নং বিনোদনগর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। বুধবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মশিউর রহমানের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, বাবা-মা ও দুই ভাই তিন বোন নিয়ে তাদের পরিবার। তাদের পরিবারের সঙ্গে বিরোধ আছে পাশের এমন এক পরিবারের ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে ছাত্রীর। বিষয়টি জেনে আড়াই বছর আগে ছাত্রীকে অন্ধকার ঘরে বন্দি করে রাখেন তার মা। ওই অন্ধকার ঘরেই আড়াই বছর কেটে যায় ছাত্রীর। বাড়িতে বিদ্যুৎ থাকলেও যে ঘরে ছাত্রীকে আটকে রাখা হয়েছিল, সে ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়নি। এমনকি ঘরের দরজা-জানালা সব সময় তালা মেরে বন্ধ করে রাখা হতো। তাকে গোসল করতে দেয়া হতো না। আধাপাকা ঘরটি ছিল স্যাঁতসেঁতে। ঘরের ভেতরে বর্ষায় পানি পড়ত। প্রতিবেশীদেরকে জানানো হয়েছিল, মেয়েটি মানসিক রোগী তাই তাকে আটকে রাখা হয়েছে। চিকিৎসার জন্য প্রতিবেশীরা মেয়েটিকে সহযোগিতা করতে চাইলে মেয়ের মা বিষয়টি এড়িয়ে যান।

নবাবগঞ্জ উপজেলার স্বাস্থ্য ও প:প: কর্মকর্তা খায়রুল ইসলাম (তপন) বলেন, দীর্ঘদিন অপচিকিৎসায় ও ঘরবন্দি থাকায় ছাত্রীর রক্তশূন্যতা দেখা দিয়েছে এবং সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়েছে চর্মরোগ, আর মুখে ফাঙ্গাস। ছাত্রীটি শারীরিক সক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছে।

ছাত্রীর বাবা-মায়ের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তারা কিছুই বলতে রাজি হননি। তবে ছাত্রীর মা বলেছেন, মেয়েটি অসুস্থ হওয়ায় সুস্থতার জন্য কবিরাজ ও স্বপ্নে দেখা এক ব্যক্তির পরামর্শে ঘরে আবদ্ধ করে রেখেছি।

নবাবগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আতিকুল ইসলাম বলেন, মেয়েটির প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন দুই বছরের বেশি সময় ধরে ছাত্রীকে আটকে রাখা হয়েছিল। প্রতিবেশীরা চিকিৎসা চালানোর খরচ দিতে চাইলে এড়িয়ে যান ছাত্রীর পরিবার। সম্পাদনা : মুরাদ হাসান

সর্বাধিক পঠিত