প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টেকনাফে পৃথক অভিযানে সাগর পথে মালয়েশিয়াগামী ৫০রোহিঙ্গা উদ্ধার, ৩ দালাল আটক

ফরহাদ আমিন,টেকনাফ (কক্সবাজার): কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবি ও পুলিশ পৃথক অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে সাগর পথে মালয়েশিয়াগামী ৫০রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করেছে। এসময় ৩ দালালকে আটক করা হয়।

শুক্রবার (৮ ফেব্রুয়ারি) ভোরে টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ গোলারচর ও শীলখালী উপকূলীয় এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের উদ্ধার করা হয়। তারা সকলেই উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বসবাসকারী মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক।

টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লেঃ কর্নেল মোঃ আসাদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, দালালের খপ্পরে পড়ে সমুদ্র পথে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টাকালে ৩০ জন রোহিঙ্গা উদ্ধার করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৩০ জন রোহিঙ্গা এবং দুইজন বাংলাদেশী দালাল রয়েছে। রোহিঙ্গাদের মধ্যে ১৭ জন নারী, ৭শিশু ও ৬জন পুরুষ। আটককৃত দালালরা হচ্ছেন, টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের জাহাজপুরা এলাকার হাবিবউল্লাহ ছেলে মহিবুউল্লাহ(২০) ও হ্নীলা ইউনিয়নের দমদমিয়া এলাকার আব্দুল করিমের ছেলে মোঃ হুমায়ুন (১৮)।

তিনি আরও বলেন,এরা সবাই টেকনাফ উপকুল দিয়ে মালয়েশিয়া যাবার লক্ষ্যে সেখানে অবস্থান করছিলেন বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে। উদ্ধার করা নারী-পুরুষদের অনেক নিকট আত্নীয়-স্বজনরা আগে থেকেই থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ায় অবস্থানের সুবাধে তারা সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া যাবার চেষ্টা চালায়। উদ্ধারকৃত ৩০জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষকে সংশ্লিষ্ট রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। আটককৃত দুই দালালকে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে মানবপাচার চক্রের সাথে জড়িত অন্যান্য দালদের আটক করার জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আটক দুই দালালের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা রুজু করে থানায় সোর্পদ করা হয়েছে।

এদিকে একই দিনে অবৈধ ভাবে সাগর পথে কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গা মালয়েশিয়া যাওয়ার প্রস্তুতির সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে টেকনাফ বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক আনোয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে বাহারছড়া বড়ডেইল এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২০ রোহিঙ্গা নারী ও পুরুষকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১৩ জন নারী ও ৭ জন পুরুষ রয়েছে। এসময় মানবপাচারে জড়িত বাহারছড়া বড়ডেইল এলাকার মাহমুদ উল্লাহর ছেলে মোঃ মামুন(১৮) নামে এক দালালকেও আটক করা হয়।

এব্যাপারে বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক আনোয়ারুল ইসলাম বলেন,উদ্ধারকৃত ২০জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষকে সংশ্লিষ্ট রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। আটক এক দালালের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা রুজু করে মডেল থানায় সোর্পদ করা হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত