প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কিশোরগঞ্জের পাগলা মসজিদে দানের রেকর্ড, বছরে আয় ৫ কোটি ৩৫ লাখ টাকা

জাবের হোসেন: কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদ। এখানে প্রতিদিন হাজার হাজার টাকা দান করেন মানুষ। বছরে টাকার অংক কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। শুধু টাকা-পয়সা নয়, সোনাদানার পাশাপাশি দান করা হয় গরু-ছাগল ও হাঁস-মুরগীসহ বিভিন্ন পণ্য সামগ্রী। রোগ মুক্তিসহ মনোবাসনা পূর্ণ হওয়ার বিশ্বাস থেকে দান করেন বলে জানান পুণ্যার্থীরা। দানের অর্থ জনকল্যাণমূলক কাজে ব্যবহার করা হয় বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। সূত্র- সময়টিভি

কিশোরগঞ্জ শহরের হারুয়া এলাকার নরসুন্দা নদীর তীরে ২০০ বছর আগে নির্মাণ করা হয় পাগলা মসজিদ। দুষ্টিনন্দন মসজিদের চত্বরজুড়ে সরাদিনই থাকে সাধারণ নারী-পুরুষের ভিড়। মনোবাসনা পূর্ণ হওয়ার বিশ্বাসে মসজিদে দান করছেন টাকা-পয়সা ও স্বর্ণালংকার থেকে শুরু করে বিভিন্ন পণ্য সামগ্রী। প্রতি তিন মাসে একবার খোলা হয় মসজিদের পাঁচটি দান বাক্স। প্রতিবারই দানের পরিমাণ ছাড়িয়ে যায় কোটি টাকা। এই টাকা রাখা হয় ব্যাংকে।

কিশোরগঞ্জ পাগলা মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. শওকত উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, প্রতি শুক্রবার মসজিদে দানের পরিমাণ কয়েক হাজার টাকা হয়। পাগলা মসজিদের ব্যয় নির্বাহের পর জেলার বিভিন্ন মসজিদের উন্নয়ন, মাদ্রাসার গরীব শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা এবং জনকল্যাণমূলক কাজে ব্যয় করা হয় দানের অর্থ।

কিশোরগঞ্জ পাগলা মসজিদের টাকা গণনা কমিটির আহ্বায়ক এবং অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাবিবুর রহমান বলেন, দানকৃত টাকা পাগলা মসজিদসহ বিভিন্ন মসজিদ এবং মাদ্রাসার উন্নয়ন এবং গরীব শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার ব্যয় মেটাতে খরচ করা হয়।

৩ মাস পর গত ১৯ জানুয়ারি পাগলা মসজিদের দান বাক্স থেকে পাওয়া গেছে এক কোটি ১৩ লাখ ৩৩ হাজার টাকা। গত বছর মসজিদটির দান বাক্স থেকে আয় হয় ৫ কোটি ৩৫ লাখ ৭৬ হাজার টাকা। মসজিদটি পরিচালনা করে জেলা প্রশাসন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত