প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রোহিঙ্গা ইস্যুতে তারকাদের আগমন তাদের ফেরত যাওয়ার সাথে সম্পর্কিত নয় বলে মনে করেন গোলাম মোর্তোজা

সৌরভ নূর : ইউনিসেফের অ্যাম্বাসেডর হিসেবে সেটা অ্যাঞ্জেলিনা জোলি হোক আর প্রিয়াঙ্কা চোপড়া বা অন্য যারা আসছেন তাদের আসার পেছনে একটি বিশেষ উদ্দেশ্য থাকে। ওই সমস্ত প্রতিষ্ঠানের ফান্ড কালেকশন করতে বিশ্বব্যাপী প্রচারণার উদ্দেশ্যে মূলত এসব তারকাদের নিয়ে আসা হয়। তারকারা আসলে সারাবিশ্ব আরেকবার জানতে পারে রোহিঙ্গা সংকট প্রসঙ্গে। কিন্তু রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়া এর সাথে সম্পর্কিত নয়। সেহেতু জোলির আগমনে রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়ার বিষয়টি ত্বরান্বিত হবে ব্যাপারটি এমন নয়। একটি কার্যকরী পদক্ষেপ তখনই হবে যখন বাংলাদেশ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে মিয়ানমারের ওপরে চাপ সৃষ্টি করতে পারবে। সিনিয়র সাংবাদিক গোলাম মোর্তোজা রোহিঙ্গা ইস্যুতে অ্যাঞ্জেলিনা জোলির আগমন প্রসঙ্গে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘের চেয়ে দুটি দেশ আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ দেশ দুটি হলো, চীন ও রাশিয়া। প্রতিবেশী দেশ হিসেবে ভারতও যথেষ্ট ভ‚মিকা রাখে। কিন্তু তারা সবসময়ই মিয়ানমারের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। বাংলাদেশ সরকার যেহেতু চীন, রাশিয়া, ভারতের সাথে শক্ত অবস্থান নিয়ে আলোচনায় বসতে পারছে না, নিজেদের পক্ষে আনতে পারছে না বলে রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার কোনো প্রেক্ষাপট তৈরি হচ্ছে না। এছাড়া এ রকম কোনো সম্ভাবনা বাংলাদেশের রাজনীতিতে দেখতে পাচ্ছি না। সরকার রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে প্রশংসা কুড়াতে চেয়েছে এবং সেই প্রশংসা দেশের রাজনীতিতে কাজে লাগাতে চাচ্ছে। অথচ রোহিঙ্গা ইস্যু ইতোমধ্যে বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর ইস্যু হিসেবে তৈরি হয়ে আছে। সেই অর্থে বাংলাদেশে সরকারের কোনো অগ্রগতি নেই, যা করছে অনেকটাই লোক দেখানো। রোহিঙ্গা সংকট দেশের অভ্যন্তরে তো বটেই আঞ্চলিক রাজনীতিতে একটা বড় প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করছেন এই সিনিয়র সাংবাদিক।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত