প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জীবনের দুই হাত, সততা আর শিল্প

ইকবাল আনোয়ার : ওই যে ব্যাঞ্জো বাজাতো লোকটি! বসন্তের দাগ ভর্তি মুখ। চোখ দুটি সাদা, বেরিয়ে আসা। বাজাবার সময়, চোয়াল শক্ত হয়ে থাকে, স্টেশনের পুরনো অংশে চল্টা ওঠা, দরজা-জানালার পাট ছাড়া, ভেতরে কচু ও তেলাকুচোর জঙ্গলা হয়ে থাকা লাল ইটের পরিত্যক্ত, ছাদ দিয়ে পানি গড়ানো ঘরটায় থাকতো। ট্রেন আসুক না আসুক, চট বিছিয়ে বকুল গাছের তলায় বসে বসে বাজাতো মধুর বাদ্যটা। কী যে তম্ময়তা, এমন ব্যাঞ্জনা তার সুরে, মন কেমন করে।
একটা হাতের আঙ্গুল চলতো তার কয়েক ধাপ বাটমে বাটমে, নৃত্য যেন, আর আরেকটা হাতের আঙুল দ্রুত তড়পড়াতো, যেন ধরা পড়া ফড়িং।
শোনা যেতো সাপের সঙ্গে তার বাস। সারাদিন সুরে মাতোয়ারা হয়ে রাতে সাপগুলো ব্যাঞ্জোর বাঁকে বাঁকে পেঁচিয়ে থাকতো। সাপেরা ভালো সংগীত বোঝে। কেননা তারা কান দিয়ে শোনে না, ওটা নেই, কম্পন দিয়ে অনুভব করে। কর্ণ হলো সংগীতের বাধা। লোকটা যদিও বিটোফেন চিনে না, হেলেন কেলারের নাম শুনেনি। পৃথিবীর সব মৌলিক সত্য কথা এমনি, নানা বাঁকে নানা স্থান কাল পাত্রে একই সুরে বাজে। তবে এসব সত্য অবলা অথর্ব হয়ে থাকে। মানুষ তা আমলে নেয় না। লোকটাও শোনে না। বসন্ত তার চোখ কেবল নয় কর্ণক্ষমতাও কেড়ে নিয়েছিলো।
লক্ষ্য করলো লোকটা মনের চোখে, একটা একটা করে সাপ চলে যাচ্ছে বনের পথে জানালার ফোকরে ওঠে, তাদের লেজটা ঘরে, মুখটা বাইরে চলে গেছে। সাপ বিদায় নিচ্ছে কেন! অন্ধ বধির শিল্পী তা টের পেয়ে গেলো অবশেষে।
দু’একটা ট্রেন আসা ছোট স্টেশন। মানুষের মধ্যে কেউ কেউ সুরে মোহিত হয়ে খোটা পয়সা রেখে যায়। চারদিকে ছড়িয়ে থাকে, লোকটা হাতিয়ে কিছু নেয়, কিছু ভিখারী ও পথের শিশুরা চুরি করে।
সকালে পাশের স্টলে গিয়ে চা চুবিয়ে কুকিচ খায় সে। দুপুরে মুড়ি চিড়া গুড়। রাতে মগভর্তি পানি। আর মানুষ কিছু দিলে ওটা নেয়।
একমাত্র ব্যাঞ্জোটাই তার সাথী, আত্মীয়, বন্ধু। আর সাপের খোপের ব্যাঙের আরশোলার সঙ্গে তার বেশি জানাজানি।
ঘটনাটা হলো, স্টেশনটা জাতে উঠলো। যাত্রী ট্রেন বেড়ে গেলো। পয়সা আসতে থাকলো বেশি। বাদকের ধ্যান তাই এখন মানুষের দিকে। সাপের মতো তার কম্পশক্তি যা এতোদিন সুরের জন্য নিবেদিত ছিলো তা লোভের দিকে গেলো চলে। বাজনার পরিমিতি এতে ক্ষুণœ হলো। সাপগুলো অভিমানে বিদায় নিলো। লোকটার জীবন যন্ত্রণা বেড়ে গেলো।
একদিন মানুষরা এসে শিল্পীকে আর খুঁজে পায় না। দেখে ব্যাঞ্জোটা পাহারা দিতে দুটো পানক তা পেঁচিয়ে রেখেছে। কে যেন বলছে- জীবন হলো আকাক্সক্ষার সমাহার, সংযত হবার নাম সততা আর পরিমিতির নাম শিল্প। জীবনের দুই হাত, সততা আর শিল্প। বাকি যা এ জীবনে তা কেবল যন্ত্রণা। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত