প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মালয়েশিয়ায় ৪০ লক্ষ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

শেখ সেকেন্দার আলী, মালয়েশিয়া প্রতিনিধি : মালয়েশিয়ার একটি কোম্পানির সুপারভাইজার পদে চাকরি করা অবস্থায় অবৈধ শ্রমিকদের বৈধ করার টাকা আত্মসাৎ করে বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে কুমিল্লার সুলেমান। এনিয়ে সংবাদ সম্মেলন করলেন আরেক বাংলাদেশি।

মালয়েশিয়ার ভূমি টুঙ্গাল গ্রুপ অফ কোম্পানি থেকে ২ লক্ষ রিঙ্গিত (৪০ লক্ষ টাকা) আত্মসাতের অভিযোগে বাংলাদেশী শ্রমিক সুলেমানের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছে কোম্পানিটির মালিক ও ভুক্তভোগীরা। বুধবার কুয়ালালামপুরের জালান কেলাং নামায় কোম্পানির অফিসে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগ পড়ে শোনান কোম্পানির পরিচালক সিতি আয়েশা বিনতে মোহাম্মদ সালাউদ্দিন ও ব্যবস্থাপক মো. মিজানুর রহমান মিজান।

অভিযোগে তারা উল্লেখ করেন, ওই কোম্পানীর কর্মচারী কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার পারুপারা গ্রামের আব্দুল গনির ছেলে মো. সুলেমান মালয়েশিয়ায় অবৈধ শ্রমিকদের বৈধ করার জন্য রিহায়ারিং প্রোগ্রামে শ্রমিকদের ভিসা ও ভিসা নবায়ন করার জন্য টাকা নেয়। কিন্তু সেই টাকা কোম্পানীতে জমা না দিয়ে আত্মসাৎ করে বাংলাদেশে পালিয়ে যায়।

এদিকে, সুলেমানের প্রতারণার বিষয়টি কোম্পানি কুয়ালালামপুরস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসকে লিখিত ভাবে অবহিত করে তার বিরুদ্ধে মালয়েশিয়ায় পুলিশ রিপোর্ট করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ভূমি টুঙ্গাল গ্রপের ব্যবস্থাপক মো. মিজানুর রহমান সরকার বলেন, মালয়েশিয়ার ভূমি টুঙ্গাল গ্রুপ অফ কোম্পানির পরিচালক মালয়েশিয়ান নাগরিক সিতি আয়শা বিনতি মোহাম্মদ সালেউদ্দিন, আমাদের ভূমি টুঙ্গাল গ্রুপ অব কোম্পানী মালয়েশিয়াতে দীর্ঘ দিন যাবৎ ব্যবসা বাণিজ্য করে আসছে। কিন্তু আমাদেরই বিশ্বাসভঙ্গকারী প্রতারক সুপারভাইজার মো সুলেমান কুয়ালালামপুর অফিসের ঠিকানায় ২০১৬ সালের মার্চ থেকে ২০১৮ সালের জানুয়ারী পর্যন্ত অবৈধ শ্রমিকদের পূর্ণ বৈধ করার জন্যে ভিসা ও ভিসা নবায়নের রিংগিত সংগ্রহের দায়িত্বে ছিল।

চুড়ান্ত হিসাব জমা দেওয়ার রিসিট বই পর্যবেক্ষণ করে অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি নজরে আসে। সুলেমানের ওপর চাপ প্রয়োগ করলে বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দেয় সে। জরুরি কাজ দেখিয়ে গত ৩১ জানুয়ারী বাংলাদেশে চলে যায় সে। মালয়েশিয়া ফিরে এসে শ্রমিকদের রিঙ্গিতের সমাধান করে দেবে বলে জানায় সুলেমান।

বেশ কয়েক দিন যাওয়ার পর আমরা তার সঙ্গে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করে ব্যর্থ হই। এদিকে সুলেমানের পারমিটের মেয়াদও শেষ হয়ে গেছে। তাই কোনো উপায়ান্ত না পেয়ে মালয়েশিয়াতে পুলিশ রিপোর্ট করি। সেই রিপোর্টের কপি বাংলাদেশ হাইকমিশনে জমা দেওয়াসহ সুলেমানের অপকর্ম হাইকমিশনকে জানিয়ে একটি দরখাস্তও দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, সকল সাংবাদিক ভাইদের মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে আইনি সহায়তায় সুলেমানের নিকট থেকে আত্মসাত করা অর্থ উদ্ধারে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি। বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয় এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনা যেন আর কোন বাংলাদেশি না করে সে জন্য আমি ভুক্তভোগীদের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত