প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডাকসু নির্বাচন নিয়ে শিক্ষার্থীদের ভাবনা ডাকসু নির্বাচন শতভাগ স্বচ্ছ হবে, বললেন আসিফ উদ্দিন

জুয়েল খান : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী আসিফ উদ্দিন আহম্মেদ বলেছেন, আমি ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে নির্বাচন করতে আগ্রহী। সাধারণ ভোটারদের আমার শক্তি মনে করে ডাকসু নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।
এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে তিনি আরো বলেন, ডাকসু নির্বাচন দীর্ঘদিন না হওয়ার কারণে সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাদের কথা বলার সুযোগ পায়নি। এবারের নির্বাচনের মাধ্যমে আমরা নির্বাচিত প্রতিনিধি পাবো। আমি নির্বাচিত হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল গুলোতে খাবারের মান বাড়াতে সর্বোচ্চ ভূমিকা রাখবো। প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে উঠে আসা শিক্ষার্থীরা যাতে সহজেই হলের সিটে থাকতে পারে সেই ব্যাপারে আমি কাজ করবো। আবাসিক হলের সম্প্রসারণের জন্য আমি কাজ করতে চাই।
অতীতে ডাকসুর নির্বাচিত নেতারা দেশের নেতৃত্ব দিয়েছে। এবারের ডাকসু নির্বাচন দেশে নেতা তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
শেখ হাসিনার সরকারের আমলেই ডাকসু নির্বাচন হবে, বললেন আসিফ খান
জুয়েল খান : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের শিক্ষার্থী আসিফ খান বলেছেন, ডাকসু নির্বাচন অনেক ক্ষেত্রেই আমাদের প্রয়োজন। অতীতের আন্দোলনগুলোতে একটা ঘোলাটে অবস্থার তৈরি হয়েছিলো বিশেষ করে সরকার এবং বিরোধী দলের মধ্যে বিভেদের কারণে। একটা নির্বাচিত ছাত্র সংসদ থাকতো তাহলে হয়তো আমরা এই আন্দোলনগুলোতে দিকনির্দেশনা পেতাম।
কোটা সংস্কার আন্দোলনের সাথে যারা জড়িত ছিলো তারা প্রার্থী হতে চায়, কিন্তু তারা বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে। অন্যদিকে ছাত্রলীগ এর দায় স্বীকার করছে না, কাদা ছোড়াছুড়ি হচ্ছে। তবে আশা করি শেখ হাসিনার সরকারের আমলেই ডাকসু নির্বাচন হবে।
ডাকসু নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত নেতা থাকলে আমাদের পক্ষে বিভিন্ন দাবি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে কথা বলতে পারতাম এবং আমরা বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেতাম। তাই আমার কাছে মনে হয় ডাকসু নির্বাচন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছে এখন সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে। ডাকসু নির্বাচন হলে আমরা আমাদের অধিকার আদায়ে এগিয়ে যাবো।
ডাকসু নির্বাচন এতোটা জরুরি নয় বলে মনে করেন এনায়েত কবির
জুয়েল খান : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য বিজ্ঞান ও লাইব্রেরি ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষার্থী এনায়েত কবির বলেছেন, একসময় ডাকসু দেশের ছাত্র আন্দোলন ও জাতীয় রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। এখন দেশে সেই ধরনের সমস্যা নেই যে ডাকসু তার সমাধান করবে। এখন সামগ্রিকভাবে দেশের অবস্থা খুবই শান্ত তাই ডাকসু নির্বাচন যে খুবই প্রয়োজন আমি সেটা মনে করি না।
এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে তিনি আরো বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে যেন কোনো প্রকার বিশৃঙ্খলা না হয় সেদিকে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা খেয়াল রাখবেন। তবে ডাকসু নির্বাচন হলে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা সাধারণ ছাত্রদের অধিকার আদায়ের জন্য শিক্ষার্থীদের আন্দোল-সংগ্রামে পাশে থাকবেন। তবে সবাই যেহেতু ডাকসু নির্বাচন চাইছে, তাই আমি বলবো নির্বাচনে যেন কোনো প্রকার সহিংসতা না হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত