প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘শিক্ষার্থীদের মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়ার অধিকার ছাত্রলীগকে কে দিয়েছে?’

রবিন আকরাম: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে গত ৪ ফেব্রুয়ারি হামলার শিকার হয়েছেন কোটাসংস্কার আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়া বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন। এই হামলার বিষয়ে মামুন জানান, মাস্টারদা সূর্যসেন হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রাইসুল ইসলামের নেতৃত্বে ২০-২৫ জন এতে অংশ নেয়। এরা সবাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাসের অনুসারী হিসেবে পরিচিত। তথ্য- দ্যা ডেইলি স্টার

বিভিন্ন সময় কোটাসংস্কার আন্দোলনের নেতৃবৃন্দের ওপর ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ উঠেছে। গত ২৪ জানুয়ারি বাংলা একাডেমি এলাকায় ছাত্রলীগ তাদের অবরুদ্ধ করে রাখে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। তবে, বরাবরেও মতো এবারও হামলায় নিজেদের সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করেছে ছাত্রলীগ।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের ঢাবি শাখার সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ বলেন, “কোটাসংস্কার আন্দোলনের নেতা হাসান আল মামুনকে পিটিয়েছে ছাত্রলীগ। নিজের হলেই (জগন্নাথ হল) ছাত্রলীগের আক্রমণের শিকার হয়েছেন ছাত্র ইউনিয়নের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক রাজীব দাস। সর্বত্র ছাত্রলীগের দখলদারিত্ব চলছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন আছে, আইন আছে। এখানে কোনো শিক্ষার্থী অপরাধ করলে, দেখার দায়িত্ব প্রশাসনের। শিক্ষার্থীদের মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়ার অধিকার ছাত্রলীগকে কে দিয়েছে? বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের আশ্রয়-প্রশ্রয়েই তারা এসব করছে। ক্যাম্পাস বা হলে সহাবস্থান আছে, এটা খুবই হাস্যকর কথা।”

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত