প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তারাইলে ইসলাহী ইজতেমা ৭ থেকে শুরু : ১০ ফেব্রুয়ারি আখেরী মোনাজাত

আব্দুল্লাহ আল আমীন : প্রতিবছরের ন্যায় এবারও কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার বেলঙ্কা গ্রামে ইসলাহী মাঠে ৫ দিন ব্যাপী ইজতেমা শুরু হয়ে ১০ ফেব্রুয়ারি আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে সমাপ্ত হবে।  দেশে বিদেশে ধর্মপ্রাণ মুসুল্লীদের আগমনে এলাকায় ইসলামের শ্বাশ্বত বানী ও কোরআন হাদীসের আলোকে বিভিন্ন বিষয়ের উপর আলোচনা ও বাস্তব জীবনের কর্মপদ্ধতির বিশেষ প্রশিক্ষন দেওয়া হয়।

ইজতেমাকে সামনে রেখে আশপাশের এলাকার লোকজন বিভিন্ন দোকান পাট, নান রকম বাহারী পন্যের বিক্রির আয়োজন করেছে। এতে এলাকায় উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।
চারপাশে দিগন্ত বিস্তৃত হাওর, মধ্যখানে সবুজের মাখামাখিতে গড়ে উঠা শান্ত নিবিড় একটি গ্রাম; বেলঙ্কা। নামটিই বলে দিচ্ছে কোন এক সময় সনাতনী ধর্মের খুব প্রভাব ছিলো এই অজপাড়া গাঁয়ে।
হ্যাঁ, দেড় যুগ আগেও এখানকার মানুষ ছিলো হিন্দুয়ানী নানান কুসংস্কারে জর্জরিত। ধর্মকর্মের বালাই ছিলো না এদের মাঝে। হাওরের মাঝে এক চিলতে ধান খেতের সাথেই কেটো যেতো তাদের সকাল সন্ধ্যা।
দেড়যুগ পরে এসে সেই মানুষগুলোর মাঝে আজ ব্যাপক পরিবর্তন ঘটেছে। ধর্মের প্রতি জন্মেছে অগাধ টান। এই হাওরের কূল ঘেষেই আজ গড়ে উঠেছে একটি দাওরা হাদীস মাদরাসা; ক্রমশ বেড়ে চলেছে দাওয়াত ও তাবলীগের মেহনত। দশ বছর যাবৎ অনুষ্ঠিত হচ্ছে ইসলাহী ইজতেমা। যার বদৌলতে অন্ধকারের যুগ পেরিয়ে সেই গ্রামটি
এখন আলোর পথের যাত্রী।
প্রতি মাঘ ফাল্গুনে এই গাঁয়েরই সন্তান আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ দা. বা. এর ডাকে দশগ্রামের মানুষ ছুটে আসে এই ইসলাহী ইজতেমায়। চারদিন ব্যাপি ইজতেমায় পুরো এলাকা জুড়ে সৃষ্টি হয় এক স্বর্গীয় আবেশ। জিকির- আজকার, তাসবিহ-তাহলীল, তালিম- তারবিয়াতের মধ্য দিয়ে কেটে যায় তাদের রাত্রি দিন। ইরি ধান ক্ষেতের মায়া ভুলে থেকে “আল্লাহ” নিয়ে পরে থাকা এই চারটি দিনই গাঁয়ের লোকজনের সারা বছরের চালিকাশক্তি।
এই ইজতেমার ওছিলায় এখানে দেশ বিদেশ থেকে আগমন করেন হক্কানী রব্বানী ওলামায়ে কেরাম। মুফতি সালমান মানসুরপুরী দা.বা. এর আগমনের কথা রয়েছে এবার। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে গাঁয়ের মানুষগুলো দেখবে একজন ‘নবী দৌহিত্র’কে।
এর আগে তাশরীফ নিয়ে এসেছিলেন কুতবে আলম শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমাদ মাদানী রহ. এর দৌহিত্র কায়েদে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ আল্লামা মাহমুদ আস’আদ মাদানী দা.বা., এসেছিলেন মাদানী রহ. এর আরেক দৌহিত্র মাওলানা মওদূদ মাদানী দা.বা., আরো এসেছিলেন প্রয়াত ইসলামী নাশীদ শিল্পী জুনায়েদ জামশেদ রহ., এই তো গতবার এসে গেলেন আল খায়ের ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ইমাম কাসেম রাশিদ আহমাদ। এছাড়া দেশের বরেণ্য পীর মাশায়েখ ও বরেণ্য ওলামায়ে কেরামদের পদছোঁয়ায় ধন্য হয়েছে বেলঙ্কার মাটি।
বছর ঘুরে আবারো বেলঙ্কা ইজতেমার সময় এসে গেলো, আগামী বৃহস্পতিবার শুরু হয়ে শুক্র,শনি, রবি চার দিন চলবে এই ইজতেমা৷
ইজতেমা আয়োজক কমিটির সমন্বয়কারী প্রিন্সিপাল আবু সাঈদ নিজামী জানান ইতোমধ্যে ইজতেমার কাজ সমাপ্ত করতে দিনরাত শ্রম দিয়ে যাচ্ছে এলাকার সাধারণ ধর্মপ্রাণ মুসুল্লীরা। এবারের ইজতেমা গতবারের তুলনায় ব্যাপক আলেম উলামা ও ধর্মপ্রাণ মুসুল্লীদের অংশগ্রহণ হবে ইনশাআল্লাহ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত