প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বসন্তের আগমনে সেজেছে সিলেটের শিমুল বাগান

সাত্তার আজাদ, সিলেট: ওপারে ভারতের মেঘালয় পাহাড় এপারে সীমান্ত নদী জাদুকাঁটা-মাহারামের তীরঘেষা শিমুল বাগান। দেশের একমাত্র বৃহৎ শিমুল বাগান এটি। বৃহত্তর সিলেটের তাহিরপুর সীমান্তে এই বাগানের অবস্থান। এই শিমুল বাগান থেকে বছরে কয়েক লাখ টাকা তুলা পাওয়া যায়। বাগানটি বর্তমানে দেশ-বিদেশের ভ্রমণ পিপাসু প্রকৃতি প্রেমী পর্যটকদের পর্যটন কেন্দ্র হয়ে উঠেছে।

২০০২ সালে তাহিরপুরের বাদাঘাট উওর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন পার্শ্ববর্তী বড়দল উওর ইউনিয়নের মাণিগাঁও গ্রামে মরুময় বালু চরে প্রায় শত বিঘা পতিত জমিতে ১ হাজার শিমুল তুলোর গাছের চারা রোপণ করেন। শিমুল গাছের ফাঁকে ফাঁকে বাগানের ভেতরই রোপণ করেন কয়েক হাজার দেশীয় লেবুর চারা।

জয়নাল আবেদীনের এখন আর বেঁচে নেইা। পরিবার সূত্রে জানা যায়, প্রয়াত জয়নাল আবেদীনের ওই বাগান তৈরীতে কয়েকটি লক্ষ ও উদ্দেশ্য ছিল। এর একটি হল নদী তীরবর্তী ওই পতিত মরুময় বালু ভুমিকে খরস্রোতা সীমান্ত নদী জাদুকাটা মাহারামের আগ্রাসী ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করা। বাগানের গাছের পাতা, ডালপালা থেকে জ্বালানী কাঠ, দেশীয় তুলা, গবাধি পশুর জন্য সবুজ ঘাঁস সংগ্রহ করা। এছাড়া প্রধান উদ্দেশ্য ছিল পর্যটক আকৃষ্ট করা এবং এলাকার লোকজনকে বাগান করতে উৎসাহী করা।

প্রয়াত চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীনের ছেলে বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন বলেন, ‘আমার বাবা প্রয়াত হয়েছেন কিন্তু তিনি যেসকল উদ্দেশ্য নিয়ে এ বাগান তৈরী করেছিলেন শুধু আমি একা নই গোটা দেশবাসীও স্বীকার করবেন যে উনার প্রতিটি লক্ষ্য -উদ্দেশ্য সফল হয়েছে।

তাহিরপুরবাসীর নয় গোটা জেলা বাসীর ঐতিহ্যের ধারক বাহকে পরিণত হয়েছে শিমুল বাগান। প্রতিনিয়ত এ বাগানে চলচ্চিত্র, গান, বিজ্ঞাপন চিত্র’র শুটিং করতে বিভিন্ন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান যেমন ছুটে আসছেন তেমনি, দেশ বিদেশের পর্যটক ও স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া শিক্ষার্থীরাও বাগানে আসছেন।

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবদুল আহাদ বলেন, ‘বাগানে ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য পর্যাপ্ত পুলিশী নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও পর্যটকদের যে কোন ধরণের সহযোগীতার জন্য স্থানীয় প্রশাসনকেও নির্দেশনা দেয়া আছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত