প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

র‍্যাগিং এর সেই ভিডিও ভাইরাল!

এস এম সাব্বির : গোপালগঞ্জে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাগত শিক্ষার্থীদের র‍্যাগিং এর কয়েকটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে করে সব মহলে সমালোচনার ঝড় উঠেছে । তবে প্রাথমিক ভাবে কারও পরিচয় পাওয়া যায় নি ।

গোপালগঞ্জের শাহরিয়ার রুদ্র নামে এক তরুণ তাঁর প্রফাইলে র‍্যাগিং এর বিভিন্ন ছবি ও ভিডিও তাঁর ফেসবুক প্রফাইলে শেয়ার করলে তা দ্রুত ছড়িয়ে পরে। তাঁর ফেসবুক পোস্টটি আমাদেরসময় ডট কমের পাঠকদের উদ্দ্যেশ্যে হুবহু তুলে ধরা হল-

আমি আপনাদের সাথে যে ভিডিও গুলো শেয়ার করছি এটা বাংলাদেশের সনামধন্য “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়” এর ভিডিও।

আমরা যারা কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েছি বা এগুলো সম্পর্কে জেনে থাকলে আমরা আরো একটা শব্দ হয়তো শুনেছি।
সেটা হলো “রেগিং”।

আমার মতে কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র বা প্রভাবশালিদের দ্বারা জুনিয়র বা বাইরের অন্য ছাত্রদের হেনস্থা করার নামই হয়তো “র‌্যাগিং”।
অতীতে আমরা সামনা সামনি, মুভিতে,অথবা নাটকে অনেক রকমের “রেগিং” দেখেছি।সিনিয়র দের দেখলে সালাম দাওয়া,অতিরিক্ত সম্মান দেখানো,অনেক সময় কাপড় ধুইয়ে দাওয়া আথবা অনেক সময় অদ্ভূত অদ্ভূত প্রশ্নের উত্তর দাওয়া।

কিন্তু আমি এই ভিডিওতে যা দেখলাম তা এখনো আমার বোধগম্য হচ্ছে না। ‘‘এটা কি ছিলো!”

এটাও কি “র‌্যাগিং” ছিলো।নাকি একটু বেশি বেশি। এটা কি “রেগিং এর নামে অন্যায়,অত্যাচার না? অথবা “রেগিং” নিজেই কি একটা অপরাধ না?

মূল ঘটনা কি আমি যানি না।কিন্তু আমি এতটুকু হয়তো বলতে পারি ছেলে দুজন কোন অপরাধ করে নি।তারা হয়তো বলেছিলো “কোনো মানুষকে “মাল” বলা খারাপ””। এবং এই বিশ্ববিদ্যালয়ে তারা পড়া-লেখা করতে এসেছে।

কিন্তু একজনের মুখের ভাষ্য ছিলো এরকম”এই বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপরা হয় না।”চো* চু* হয়।আর আমরা সবাই এইসবই করি।এবং একটা সময় তাদের দিয়ে অশ্লিল কবিতা ও অশ্লিল অঙ্গ ভঙ্গি করতে বাধ্য করে।এবং একটা সময় তাদের একজন অজ্ঞান হয়ে পরে।

প্রথমত,যে বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বলতেছি সেটা, শত বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলার জনক,বাঙালির গর্ব “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের” নামে নাম করন করা ।এবং আমি গ্যারান্টি সহকারে বলতে পারি যে,”এই ভিডিওর সবগুলো ভালো ছাত্র।

এরা কি এদেশের ভবিষ্যত, এরাইকি এদেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম?কিন্তু ভালো বলতে পারা খাতায় ভালো লিখতে পারা এই ছাত্রদের দিয়ে দেশের কি হবে?ছাত্র রাজনীতির নামে এরা বিশ্ববিদ্যালয়ে কি করতেছে?

বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কি এই শিক্ষা দিচ্ছে ছাত্রদের?এটাকে আমি নষ্ট রাজনীতি ছাড়া আর কিছুই বলবো না।এতে কি বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মান ক্ষুন্ন হচ্ছে না?

লজ্জা লজ্জা লজ্জা!!! একজন ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্ট এবং একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে এটা আমার জন্য লজ্জা!!

“র‌্যাগিং” এর বিরুদ্ধে কোন আইন আছে কিনা আমি জানিনা তবে আমি অবিলম্বে এই ছাত্রদের বহিষ্কার দাবি করছি।

Posted by Shahriar Rudro on Sunday, February 3, 2019

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত