প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বললেন, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ

শাহীন চৌধুরী: দেশের মানুষের জন্য নিরবচ্ছিন্ন ও সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ সরবরাহই বর্তমানে প্রধান চ্যালেঞ্জ বলে মন্তব্য করেছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। রোববার (৩ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই আয়োজিত ‘বিদ্যুৎ উৎপাদনে অভাবনীয় সাফল্য: গতিশীল প্রবৃদ্ধি অর্জনে বিদ্যুতের সর্বোত্তম ব্যবহার’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

নসরুল হামিদ বলেন, আমরা সবার ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সরবরাহে দারুণভাবে সফল হয়েছি। এখন চ্যালেঞ্জ হচ্ছে নিরবচ্ছিন্ন ও সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ সরবরাহ। এ লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী রাখার জন্য গ্যাস ও কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের পাশাপাশি আমদানির উদ্যোগ নিয়েছি। বিদ্যুতের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে।

ব্যবসায়িরা যেখানে কম দামে জমি পাচ্ছেন সেখানে শিল্প স্থাপন করে গ্যাস-বিদ্যুৎ চাইলে নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে তা দেওয়া কঠিন জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এজন্য পরিকল্পিত ভাবে শিল্প করতে হবে। আপনারা ক্যাপটিভ থেকে বেরিয়ে আসেন। আমাদের থেকে বিদ্যুৎ নেন। আপনাদের জেনারেটরগুলো ইফিসিয়েন্সি ২০ শতাংশ। ওই গ্যাস দিয়ে আমরা বিদ্যুৎ উৎপাদন করলে ইফিসিয়েন্সি ৪৫ থেকে ৫০ শতাংশ উন্নীত হবে। শীতে আমাদের ৪ হাজার মেগাওয়াট অবিক্রিত রয়েছে। আমার মনে হয়, রাত ১১টার পর কারখানা চালু রাখলে বিশেষ রেট হতে পারে।

এখনো দেশের অনেক গ্রামে ১ থেকে ২ ঘণ্টা লোডশেডিং হচ্ছে। এ ছাড়া কোয়ালিটি বিদ্যুতের সঙ্কট রয়েছে। ভোল্টেজ আপ ডাউনের কারণে প্যানেল নষ্ট হচ্ছে। অটোমেটিক মেশিন ম্যানুয়ালি চালাতে হচ্ছে। এতে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে’- ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতাদের এমন কথার জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, অর্থতৈনিক অঞ্চলে শিল্প স্থাপন করলে নিরবিচ্ছিন্ন গ্যাস ও বিদ্যুৎ সরবরাহের গ্যারান্টি দিচ্ছি। কারণ পরিকল্পিত ভাবে শিল্পায়ন হওয়া এখন দরকার।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, বর্তমান সরকার তার উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় বেসরকারি খাতকে বিশেষ প্রধান্য দিচ্ছে। দেশকে এগিয়ে নিতে বেসরকারি খাতের যথেষ্ট ভ‚মিকা রয়েছে। ব্যবসার পরিবেশ উন্নয়ন স‚চকের উন্নয়নে বর্তমান সরকার কাজ করছে। বর্তমান উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে পরবর্তী ধাপে নিয়ে যেতে বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। পরিকল্পিত বিনিয়োগে ব্যবসায়ীদের এগিয়ে আসতে হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।
এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বেসরকারি খাত সর্বোচ্চ ভ‚মিকা রেখে চলছে। ব্যবসায়ীদের স্বার্থে স‚চকের উন্নয়ন এখন সবচেয়ে বেশি জরুরি। এছাড়া দেশের স্বার্থে দ্রæতই ব্যাংক খাতের সংস্কারের মাধ্যমে কমিয়ে আনতে হবে খেলাপি ঋণের পরিমাণ।

শুরুতে বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউস বর্তমানে দেশের বিদ্যুৎ পরিস্থিতি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ২০০৮ সালে বিদ্যুতের উৎপাদন ছিল ৪৯০০ মেগাওয়াট। বর্তমানে তা ২০ হাজার ৮৮৫ মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে। দেশের মোট বিদ্যুৎ উৎপাদনের ৫৬ শতাংশ বেসরকারি খাতে উৎপাদিত হচ্ছে বলেও জানান তিনি। অনুষ্ঠানে দেশের চলমান উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে পরবর্তী ধাপে উন্নীত করতে বিদ্যুতের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করে বিনিয়োগ পরিকল্পনা করা দরকার বলে মত দেন ব্যবসায়ীরা।

এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। আরও বক্তব্য রাখেন- টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান হেলাল উদ্দিন, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার খালেদ মাহমুদ, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডে চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মঈন উদ্দিন, প্যাক পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক হুমায়ুন রশিদ এবং ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত