প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অমিত সম্ভাবনার বাংলাদেশকে আত্মনির্ভরশীল, গণতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ দেশ হিসেবে দেখতে চাই : ড. বদিউল আলম মজুমদার

পিয়াস সরকার : বাংলাদেশ অমিত সম্ভবনার দেশ। ১৯৭১ সালে আমাদের চেতনার জোয়ার ঘটেছিলো। আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়েছিলাম। বাংলাদেশ ও কোরিয়া ১৯৭০-৭১ সালের দিকে একই অবস্থানে ছিলো। তাদের মাথাপিছু আয় ও আমাদের মাথাপিছু আয় প্রায় একই ছিলো ১শ’ ডলারের মতো। কিন্তু আমাদের এখনো ২ হাজার ছাড়ায়নি। তাদের এখন মাথাপিছু আয় ২৬-২৭ হাজার ডলার। বাংলাদেশ অনেক সম্পদশালী আর কোরিয়ার আছে কিছু নিম্নমানের কয়লামাত্র। বাংলাদেশের অনেক সম্পদ যেমন উর্বর মাটি। মিষ্টি পানি। উঠতি বয়সের কর্মক্ষম জনগণ। এছাড়াও আমরা কঠোর পরিশ্রমী, অল্পতে সন্তুষ্ট, বহু বিরূপ পরিবেশে রয়েছে কাজ করার ক্ষমতা। মানবজমিন
তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশ থেকে বিদেশে গিয়ে অনেক লোক অর্থ পাঠাচ্ছে। আমাদের নারীরা তৈরি পোশাকশিল্পেও কৃষকরা ব্যাপক অবদান রেখে যাচ্ছেন। কিন্তু আমরা সেই সম্ভবনাকে কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয়েছি। কারণ আমাদের নীতিগত সীমাবদ্ধতা, রাজনৈতিক স্বার্থপরতা, দুর্নীতি-দুর্বৃত্তায়ন, বিভক্তি, অপরাজনীতির কারণে এগিয়ে যেতে পারিনি। একটা বিভক্ত জাতি বেশি দূর এগিয়ে যেতে পারে না।
দুর্নীতির বিষয়ে দুদকের সা¤প্রতিক কার্যক্রমকে ইতিবাচক হিসেবেই তিনি দেখছেন ড. বদিউল আলম মজুমদার । তিনি বলেন, দুদকের কাজ আরো বেগবান করতে হবে। অনেক দুর্নীতিবাজ তাদের আশপাশে রয়েছে। যদি কার্যকর ও বিশ্বাসযোগ্য ব্যবস্থা নিতে হয়ে তবে, প্রথম ঘর থেকেই ব্যবস্থা নিতে হবে। বর্তমানে সরকারি কর্মকর্তারাই এখন দলীয় নেতাদের মতো আচরণ করে। দলীয় নেতারাও সরকারের সিদ্ধান্তকে প্রভাবিত করে। এটা সুশাসনের জন্য বিরাট অন্তরায়। এসব বিষয়ে আমাদের নজর দিতে হবে। শুধু আর্থিক দুর্নীতি নয় সব দুর্নীতির ব্যাপারে সচেষ্ট হতে হবে। নিজের স্বপ্ন নিয়ে বলেন, আত্মনির্ভরশীল গণতান্ত্রিক, শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ। যেখানে সবার অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে। জনগণ সৃজনশীলতা প্রকাশের সুযোগ পাবে- এটাই আমার আশা। আর এই প্রচেষ্টাতেই আমি ও আমার প্রতিষ্ঠান কাজ করে যাচ্ছে।
তিনি আরও বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে অনেক প্রশ্ন আছে মানুষের মধ্যে। সবার জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি হয়নি। অভিযোগ আছে নির্বাচনে কারচুপির। নির্বাচন কমিশন তার নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যদি নিরপেক্ষ আচরণ না করে তাহলে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া সম্ভব নয়। অভিযোগ আছে বিরোধীদল সমসুযোগ পায়নি। তাদের ওপর হামলা হয়েছে, মামলা হয়েছে এবং ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে বাধা দেয়াসহ আগের রাতে ব্যালটপেপার ভরে রাখার অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও টিআইবির রিপোর্টে ভয়াবহ চিত্র উঠে এসেছে। আমি মনে করি, বর্তমান সরকারের উচিত আলোচনার মাধ্যমে একটি সমাধানের পথ খুঁজে বের করা। নিয়মতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতার রদবদল হয় এটা আমাদের কাম্য। তা না হলে আমরা অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাবো। অভিযোগ আছে বহু লোক ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। তারা ক্ষুব্ধ। তাদের মধ্যে বঞ্চনাবোধ থেকে কেউ কেউ বিপদগামী হতে পারে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত