প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পুঁজির অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে রৌমারীর তাঁত শিল্প

জাবের হোসেন: বাড়তি খরচ ও পুঁজির অভাবে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছে না কুড়িগ্রামের রৌমারীর তাঁত শিল্প। শহর থেকে প্রায় ৬৫ কিলোমিটার দূরে ব্রক্ষপুত্র নদ দিয়ে বিছিন্ন জনপদ রৌমারী। এ উপজেলার চর শৌলমারী, দাঁতভাঙ্গা এবং বন্দবের ইউনিয়নে প্রায় ৫০ হাজার তাঁতী পরিবার ছিল। এখানে উৎপাদিত কাপড় স্থানীয় পাইকারদের মাধ্যমে দেশের দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠানো হতো। কিন্তু এখন নানা সংকটে হারিয়ে যাওয়ার পথে এ শিল্প। ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভি

সুতা, রঙসহ কাঁচামালের দাম বাড়তি হওয়ায় তাঁতীদের খরচ বেড়ে গেছে কয়েকগুণ। রয়েছে বাজারজাতকরণের সমস্যাও। ফলে কাপড় বিক্রি করে উৎপাদন খরচই উঠছে না। এ অবস্থায় বন্ধ হয়ে গেছে উপজেলার চরকাজাইকাটা, ফুলকার চর, খেওয়ার চরসহ বিভিন্ন গ্রামের বেশীর ভাগ তাঁত। এখন পূর্ব পুরুষের পেশায় কোন রকম টিকে আছে ৫-৬ হাজার তাঁতী।

তাঁতীরা বলছেন, সুতার দাম বেশি কাপড়ের দাম কম এমন অবস্থায় আমাদের জীবন ধারণ কঠিন হয়ে পরেছে। চাদর আগে বিক্রি করতাম ৬০০ টাকা জোড়া এখন বিক্রি হয় ৩২০-৩৪০ টাকা জোড়া। ছেলে- মেয়েদের পড়াশোনা খাবার টাকাও হয় না। তারা আরো বলেন, সরকার আমাদের সুদ মুক্ত ঋণ দিলে তাঁতগুলো টিকিয়ে রাখা যাবে।

তাঁত শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে আর্থিক সহযোগিতা চায় কারিগররা। তাঁতীদের সহযোগিতায় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিলেন জেলা প্রশাসক। কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোছা: সুলতানা পারভীন বলেন, তাঁতীদের যদি আমরা একটু সাহায্য সহযোগিতা করতে পারি, তাহলে আমার মনে হয় এশিল্পটাকে তুলে ধরতে পারবো। সেটা কুড়িগ্রামের জন্য একটা ব্রান্ডিং হবে। ইতোমধ্যে তাদের জন্য কি করতে পারি এ বিষয় খোজ নিচ্ছি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত