প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চট্টগ্রামের চার ফ্লাইওভারে টোল বসছে

ইমরান মিয়া : বন্দরনগরী চট্টগ্রামে যানজট নিরসনে নির্মিত ফ্লাইওভারে এবার টোল বসাতে যাচ্ছে সিডিএ। ফ্লাইওভারের রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় মেটাতে এ উদ্যোগ বলে জানিয়েছেন সিডিএ চেয়ারম্যান। এমন সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করে ব্যবহারকারীরা বলছেন, এতে নগরীতে যানজট না কমে বরং বাড়বে। দীর্ঘ যানজটে নাকাল ছিল বাণিজ্যিক নগরী চট্টগ্রাম। ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থেকে চরম দুর্ভোগে পড়তে হতো নগরবাসীকে। সূত্র: সময় টিভি

এমন বাস্তবতায় যানজট থেকে রেহাই দিতে নগরীতে ৪টি ফ্লাইওভার নির্মাণ করে সিডিএ। এতে দুর্বিষহ যানজট থেকে কিছুটা রক্ষা পায় নগরবাসী। তবে ফ্লাইওভারে প্রতি যানবাহনে ১০ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিডিএ। ব্যবহারকারীরা বলছেন, এতে অতিরিক্ত খরচ এড়াতে ফ্লাইওভারের পরিবর্তে মূল সড়কেই যানবাহন চালাবে।

একাধিক সিএনজি অটোরিকশা, বাস ও ট্রাক চালকের সঙ্গে বললে তারা জানান, আমরা ব্রিজের ওপর দিয়ে গেলে সড়কে জ্যাম থাকে না। কিন্তু যদি টোল আদায় করা হয় তাহলে আমরা ব্রিজের ওপর দিয়ে যাব না। নিচ দিয়ে যাতায়াত করবো।

উন্নত বিশ্বেও ফ্লাইওভার ব্যবহারে টোল আদায় করা হয়, তবে কম দূরত্বে নেয়া উচিত হবে না বলে মত নগরবিদদের।

নগর পরিকল্পনাবিদ ও স্থপতি আশিক ইমরান বলেন, আপনি যদি সিঙ্গাপুর যান তাহলে দেখবেন অনেক রাস্তায় পিক আওয়ারে কিন্তু টোল দিতে হয়। এটা একটা নরমাল প্রাকটিস। আমার মনে হয় না নেতিবাচকভাবে নেয়া উচিৎ।

নগর পরিকল্পনাবিদ প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার আলী আশরাফ বলেন, যেহেতু ব্রিজ করা হয়েছে যানজট নিরসনের জন্য। সেখানে টোল বসানো হয় তাহলে আমি বলবো সেটি অবশ্যই নিন্দনীয় চিন্তা হবে। এটা ঠিক হবে না।

তবে সিডিএ বলছে, প্রকল্পের ডিপিপিতে বলা আছে টোলের কথা। তবে ব্যবহারকারীরা না চাইলে সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসবে সিডিএ।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম বলেন, সিডিএতে বলা আছে টোলের কথা। টোল যদি বসাতে হয় সেটা অল্প টাকার মধ্যে রাখার চেষ্টা করবো। এবং অল্প সময়ের জন্য।

চট্টগ্রামে বহদ্দারহাট, কদমতলী, দেওয়ানহাট ও আক্তারুজ্জামানসহ ৪টি ফ্লাইওভার চালু রয়েছে। এ গুলোর মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ৮ দশমিক ৫ কিলোমিটার।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত