প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অনলাইনেই এবার যাচাই হবে নিবন্ধিত হজযাত্রীদের পাসপোর্ট

বাংলা ট্রিবিউন :  এখন থেকে অনলাইনেই যাচাই-বাছাই করা হবে নিবন্ধিত হজযাত্রীদের পাসপোর্ট। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টারের (এনটিএমসি) মাধ্যমে এই যাচাই প্রক্রিয়ার কাজ করা হবে। এর ফলে ধর্ম মন্ত্রণালয় অতি অল্প সময়ের মধ্যে পাসপোর্টের প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করতে পারবে। দ্রুততম সময়ে পাসপোর্ট যাচাই ও ভিসা প্রক্রিয়ার কাজ করা সহজ হবে। এছাড়াও মিথ্যা তথ্য দিয়ে হজযাত্রী নিবন্ধন প্রক্রিয়াটি সহজেই চিহ্নিত করা যাবে। এতে বন্ধ হয়ে যাবে ভুয়া নিবন্ধন প্রক্রিয়া।
এনটিএমসি সূত্র জানায়, প্রতি বছর সৌদি সরকারের সঙ্গে হজচুক্তি হয়। এতে নির্ধারিত কোটা অনুযায়ী জাতীয় হজ ও ওমরাহ নীতিমালার ভিত্তিতে হজযাত্রীদের নিবন্ধন করা হয়ে থাকে। হজ যেতে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা দেশ ও দেশের বাইরে থেকে অনলাইনে প্রাক-নিবন্ধন করে থাকেন।
এরইমধ্যে ২০১৯ সালের জন্য সরকারিভাবে পাঁচ হাজার ৫৭৪ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় দুই লাখ দুই হাজার ৯০৯ জন হজ পালনের জন্য প্রাক-নিবন্ধন করেছেন। ২০১৮ সালের হজ রেজিস্ট্রেশন অনুযায়ী এ বছর (২০১৯) হজ রেজিস্ট্রেশনের সময় প্রতিদিন প্রায় ১০ হাজার ৫৯৭টি পাসপোর্ট নম্বর যাচাইয়ের প্রয়োজন হতে পারে।
অভিযোগ রয়েছে, বর্তমানে বহিরাগমন এবং পাসপোর্ট অধিদফতরের ডাটাবেইজের সঙ্গে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ডাটা সংযোগ না থাকায় প্রাক নিবন্ধনের সময় হজ এজেন্সিগুলো ভুয়া পাসপোর্ট নম্বর ব্যবহার করে ইচ্ছুক হজযাত্রীদের নিবন্ধন করে থাকে। ফলে প্রতিবছর হজ নিবন্ধনের বিপরীতে প্রায় চার-পাঁচ হাজার ভুয়া নিবন্ধন ধরা পড়ে। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধিত হজযাত্রীদের পাসপোর্টের সত্যতা যাচাইয়ের প্রক্রিয়াটি ম্যানুয়ালি হয়ে থাকে যা অনেক সময়সাপেক্ষ।
হজযাত্রীদের পাসপোর্ট যাচাই সহজ করতে গত ১৩ নভেম্বর ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টার (এনটিএমসি) ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সঙ্গে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের দ্বি-পাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এক্ষেত্রে এনটিএমসি সেন্ট্রাল হাব হিসাবে ব্যবহৃত হবে। এনটিএমসিতে স্থাপিত মিডল সার্ভার এর মাধ্যমে ধর্ম মন্ত্রণালয় দ্রুততার সঙ্গে খুবই অল্প সময়ের মধ্যে পাসপোর্টের প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করতে পারবে। এতে দ্রুততম সময়ে পাসপোর্ট যাচাই ও ভিসা প্রক্রিয়া সহজ হবে। এছাড়াও মিথ্যা তথ্য দিয়ে হজযাত্রী নিবন্ধন প্রক্রিয়া সহজেই চিহ্নিত করা যাবে।
ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টারের (এনটিএমসি) পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিয়াউল আহসান  বলেন, এটা একটা বড় উন্মোচন। আমাদের এনটিএমসির যে প্লাটফর্ম, সেই প্লাটফর্ম থেকে পাবলিকলি সবাই সাপোর্ট নিতে পারবে। যেকোনও সংস্থা যেকোনও জিনিস ভেরিফিকেশন করতে হলে আমার সিস্টেম ব্যবহার করতে হবে। সেবা সহায়তা পেতে হলেও আমার সিস্টেম ব্যবহার করতে হবে। যে কারণে সবার সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ আছে।
জিয়াউল আহসান  আরও বলেন, এনটিএমসিতে যে ইন্টেলিজেন্স প্লাটফর্ম তৈরি করা হয়েছে সেই ইন্টেলিজেন্স প্লাটফর্মের মাধ্যমে সব আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, গোয়েন্দা সংস্থা এবং তদন্তকারী সব সংস্থাকে এনটিএমসি সর্বাত্মক সহযোগিতা দিয়ে আসছে। এছাড়া কোনও ব্যক্তির যদি কোনও সমস্যা হয় সেক্ষেত্রে অবশ্যই এনটিএমসি তাকে সহায়তা করবে।

সর্বাধিক পঠিত