প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এবার ভাস্কর্যবাদীদের তোপের মুখেই মৃণাল হক

ইসলামটাইমস :   ভাস্কর মৃণাল হক আবারো তোপের মুখে। উচ্চ আদালতের সামনে কথিত গ্রীকদেবীর ভাস্কর্য বসিয়ে কিছুদিন আগে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ক্ষুব্দ্ধ করে তুলেছিলেন মৃণাল হক। এবার সমালোচনার মুখে পড়েছেন দেশি-বিদেশি সেলিব্রেটিদের ভাস্কর্য নিয়ে ‘সেলিব্রেটি গ্যালারি’ বানিয়ে । যারা এরইমধ্যে গ্যালারি ঘুরে এসেছেন তারা বলছেন— সেলিব্রেটিদের এমন ‘বিকৃত চেহারা’ দেখে তারা হতাশ হয়েছেন। সরেজমিনে গিয়েও গ্যালারির কাজে যত্নের অভাব পরিলক্ষিত হয়। যদিও মৃণাল হক তার সৃষ্টির কোনও খুঁত দেখতে পান না। মাত্র ছয় মাসে তিনি উদ্যোগটি সম্পন্ন করেছেন উল্লেখ করে ভাস্কর মৃণালের দাবি, ব্যক্তিগতভাবে তাকে অপছন্দ করে এমন মানুষেরাই সমালেচনা করছে, তার কাজ পাশের দেশের জাদুঘরের চেয়ে ভালো হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের সামনে ‘গ্রিক দেবী’ থেমিসের অনুকরণে ভাস্কর্য স্থাপন করে সমালোচনার মুখে পড়েন এই ভাস্কর। সেসময় থেমিসের ভাস্কর্যটি সরানোর পক্ষে যুক্তি হিসেবে এর নান্দনিক ত্রুটির পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে ঈদগাহের অবস্থানের কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গ্রিক দেবীকে শাড়ি পরানো নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি।

গ্রিক দেবী ছাড়াও রাজধানীতে বেশ কয়েকটি ভাস্কর্য রয়েছে মৃণাল হকের। তিনি বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে নিজ উদ্যোগে ভাস্কর্য তৈরি করেছেন এবং বেশিরভাগ কাজের শিল্পমান নিয়েও বিভিন্ন সময় সমালোচনার মুখে পড়েন। নিজ উদ্যোগে স্পন্সর ব্যবস্থা করে রাজধানীর মোড়ে মোড়ে ভাস্কর্য স্থাপনের মিশন নিয়ে অনেকেই তাকে সন্দেহের চোখে দেখেন। মুসলিম প্রধান দেশের সংস্কৃতির সঙ্গে বেমানান এই ভাস্কর্য নির্মাণের পেছনে অন্য কোনো উদ্দেশ্য রয়েছে বলেও কেউ কেউ মনে করেন।

অন্যদিকে ভাস্কর্যবাদী সমালোচকরাও বলে থাকেন, ভাস্কর্য নির্মাণে তিনি মনোযোগী নন এবং তার কাজে কিছু অবাস্তব দিক থেকে যায় অসাবধানতার কারণেই। আর মৃণাল হক বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে বিনা পয়সায় ভাস্কর্য তৈরি করে দেন বলে যে দাবি করে থাকেন, সেটিরও সমালোচনা করে কেউ কেউ বলছেন— বিনা পয়সায় দিলেই শিল্পমানহীন ভাস্কর্য উপস্থাপন ঠিক না।

শুরুতে ৩২ জন ব্যক্তিত্বের ভাস্কর্য নিয়ে পথচলা শুরু করছে এই গ্যালারি। এতে স্থান পেয়েছেন, কাব্যচর্চায় মগ্ন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কারারুদ্ধ বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম, মহাত্মা গান্ধী, সাদা শাড়িতে মানবতার দূত মাদার তেরেসা, রাইফেল কাঁধে বিপ্লবী চে গুয়েভারা, বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এবং বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, পপ গানের রাজা মাইকেল জ্যাকসন, গায়িকা শাকিরা, ফাঁসির মঞ্চে ক্ষুদিরাম, খ্যাতিমান অভিনেতা চার্লি চ্যাপলিন, মি. বিন খ্যাত রোয়ান অ্যাটকিনসন, পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ানের ক্যাপ্টেন জ্যাক স্প্যারো, বলিউড তারকা শাহরুখ খান, বিখ্যাত কমেডি সিরিজ থ্রি স্টুজেস-এর তিন মূল চরিত্র, প্রিন্সেস ডায়না, বব মার্লে, অ্যাভাটার, রোবোকপ।

এদিকে, গ্যালারি উদ্বোধন হওয়ার পর কয়েকটি গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচারিত হওয়ার পর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। সেখানে এই ধরনের বিকৃতির অবসান ঘটানোর দাবি জানিয়ে বিভিন্ন পোস্টে বলা হয়েছে, এধরনের বিকৃত জিনিস থাকার চেয়ে এরকম কোনও মিউজিয়াম ছিল না বাংলাদেশে, সেটাও অনেক ভালো ছিল। ৫০০ টাকার বিনিময়ে এই গ্যালারি দেখে এসেছেন মেসিভক্ত নাহিয়ান। হতাশা ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘আর্জেন্টিনার পোশাক দেখে আমি কোন খেলোয়াড় সেটা ভাবছিলাম। মেসি না বলে দিলে খোদ মেসিও বলতে পারবে না, এইটা তার ভাস্কর্য। পুরো বিষয়টাতে পরিশীলিত ভাবটা নেই। এটা বড় ধরনের ক্রাইম।’

সমালোচনার মুখে মৃণাল হকের দাবি, ‘আমার বিরুদ্ধে বলার জন্য অনেক শিল্পীরা আছেন, আমার ক্লাসমেটরা আছেন। তারা আজীবনই আমার কাজ নিয়ে নানা মন্তব্য করছেন। যারা সমালোচনা করছেন গ্যালারির, তারা আমাকে ব্যক্তিগতভাবে অপছন্দ করেন। সেদিন গ্যালারিতে মধ্যবয়সী কিছু যুবক ফুটবলটা নিয়ে ফুটবল খেলা শুরু করলো। আমি তাদের জোর করে থামিয়েছি। সেটাও দোষ হয়েছে। তারাই এসব করছে।’

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত