প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাংলাদেশি গার্মেন্টস শ্রমিকদের পক্ষে সপ্তাহজুড়ে একাত্মতা জানাবে #উইস্ট্যান্ডউইদগার্মেন্টসওয়ার্কার

আসিফুজ্জামান পৃথিল : গত একমাস ধরে বাংলাদেশের তৈরি পোষাক খাতে মজুরি কাঠামো নিয়ে উত্তেজনা চলছে। উত্তেজনার ছোঁয়া লেগেছে আন্তর্জাতিক ভোক্তা পরিম-লেও। আন্তর্জঅতিক শ্রম সংগঠন ও মানবাধিকার কর্মীরা ২৮ জানুয়ারি থেকে ৩ ফেব্রুয়ারি পুরো সপ্তাহজুড়ে বিশে^র বিভিন্নস্থানে #উইস্ট্যান্ডউইদগার্মেন্টসওয়ার্কার ব্যানারে বাংলাদেশি পোষাকশ্রমিকদের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে।
গতকাল বুধবার জার্মানির বার্লিন ও যুক্তরাজ্যের লন্ডন শহরে বাংলাদেশি পোশাক কর্মীদের অধিকার আদায়ের দাবিতে বিক্ষোভ করে বিক্ষোভকারীরা। বুধবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় বিক্ষোভ হয়। এর আগে কেই দাবিতে ২৯ জানুয়ারি নেদারল্যান্ডের হেগ ও যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসির বাংলাদেশ মিশনের সামনে বিক্ষোভ করেন বিক্ষোভকারীরা। এছাড়াও পহেলা ফেব্রুয়ারিতে নিউইয়র্কের বাংলাদেশ কনস্যুলেটের সামনে বিক্ষোভ আয়োজনের পরিকল্পনা রয়েছে।
এই বিক্ষোভে দলমত নির্বিশেষে সকলকে অংশ নিতে আহ্বান জানিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। ৩টি ধাপে এই প্রচারণায় অংশ নেওয়া যাবে। এর মধ্যে একটি হলো এক মিনিটের প্রচারণা। এর আওতায় যারা একাত্মতা ঘোষণা করতে চান তারা বাংলাদেশে শ্রম নিরাপত্তার জন্য একটি পিটিশন স্বাক্ষর করতে পারবেন। এছাড়াও এর মধ্যে রয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা। আরেকটি হলো ১০ মিনিটের প্রচারণা। এতে অংশগ্রহণকারীরা নিজের সংগ্রহে থাকা বাংলাদেশের তৈরি পোশাক নেবেন। এরপর এর লেবেল এর ছবি তুলে একটি পোস্ট দেবেন। এত লেখা থাকবে, বাংলাদেশের যে নারী ও পুরুষেরা আমার জন্য পোষাক সেলাই করে, আমি তাদের পাশে আছি। আরেকটি হলো এক ঘন্টার প্রচারণা। এর আওতায় অংশগড়্রহণকারী নিজের কাছাকাছি স্থানে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভে অংশ নেবেন।
এর বাইরে বেশ কিছু শহরের বাংলাদেশী ক’টনৈতিক কার্যালয়গুলোতে চিঠি পাঠানো হবে। এগুলো হলো; এডিনবারা, হেলসিঙ্কি, হংকং, অসলো, ওউলো, স্টকহাম, রোম এবং টেম্প্রে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত