প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডাকসু নির্বাচন নিয়ে ধোয়াশা কাটছে না ভিন্নমত ছাত্রলীগের মাঝেই

জিয়াউদ্দিন রাজু: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার পর থেকে কারা প্রার্থী হতে পারবেন, আর কে পারবেন না এ আলোচনা এখন ক্যাম্পাস জুড়ে। ছাত্র সংগঠনের পাশাপাশি সাধারণ শিক্ষার্থীরাও নির্বাচন ইস্যুতে সজাগ দৃষ্টি রাখছে প্রতিমুহুর্ত। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনও সতর্কতার সঙ্গে পদক্ষেপ নেওয়ার চেষ্টা করছে। এরই প্রেক্ষিতে নির্বাচনী প্রক্রিয়া এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে রয়েছে ভিন্নমত। ফলে সাধারণ শিক্ষার্থীসহ ক্যাম্পাসে আলোচনা রয়েছে ডাকসু নির্বাচন হবে কি হবে না। এতে করে নির্বাচন নিয়ে ধোয়াশা কাটছে না।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস জুড়ে-চায়ের টেবিলেই শুধু নয়, ক্লাসে-মাঠে-আড্ডায় আলোচনার অন্যতম ইস্যু ডাকসু নির্বাচন। এসব আলোচনায় বেশ কিছু প্রশ্নও দেখা দিলেও স্থান পাচ্ছে নির্বাচনে প্রার্থী হবেন কারা? কোন সংগঠনের প্যানেল কেমন হবে? কারা চমক দেখাবে? শিক্ষার্থীরা ভোট দেওয়ার ক্ষেত্রে কোন ইস্যুকে প্রাধান্য দেওয়া হবে। ফলে প্রার্থিতা ঘোষণা নিয়েও দোটানায় রয়েছেন ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা। কারণ নতুন কমিটি গঠনের পর প্রায় ছয় মাস পেরিয়ে গেলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে পারেনি ছাত্রলীগ। গঠন হয়নি বিশ্ববিদ্যালয় শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটিও। ফলে ডাকসু ও হল সংসদগুলোয় প্রার্থী দেওয়ার ক্ষেত্রে নিজেদের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। সঙ্গত কারণে আদৌ ডাকসু নির্বাচন হবে কি না তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের একাংশ। এর তীক্ত অভিজ্ঞতাও রয়েছে। বিভিন্ন সময় ডাকসু নির্বাচন হওয়ার থাকলে হাই কোর্টে রিট করা প্রেক্ষিতে স্থগিত হয়েছে।

ডাকসু নির্বাচন নিয়ে নানা সংকট দেখছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস। তিনি বলেন, ডাকসু নির্বাচন বিভিন্ন সময় নানা কারণে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে। এতে হাইকোর্টের আদেশে নির্বাচন স্থগিতও হয়েছে। এসব কারণে ডাকসু নির্বাচন হবে কি হবে না তা নিয়ে আশঙ্কা রয়েছে।

নির্বাচনের গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু আচরণবিধি, তফসিল, গঠনতন্ত্র সংশোধন বিষয়ে এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। আর এসব বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম সিন্ডিকেট, যার বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে মঙ্গলবার।

সনজিত বলেন, সিন্ডিকেটের মিটিং শেষে যে দিক নির্দেশনা আসবে তারপর বলা যাবে ডাকসু নির্বাচন হবে কিনা।

তবে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ডাকসু নির্বাচন নিয়ে ভিন্ন মত দেন। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত ডাকসু নির্বাচন না হওয়ার কোনো কারণ দেখছি না। সকল ছাত্রসংগঠনই চায় ডাকসু নির্বাচন। ফলে না হওয়ার সম্ভাবনা নেই। সাধারণ শিক্ষার্থীরা ছাত্রলীগের সঙ্গে রয়েছে উল্লেখ করে সাদ্দাম বলেন, সব কিছু ঠিক থাকলে নির্বাচনে ছাত্রলীগকে কেউ হারাতে পারবে না। কারণ বিম্ববিদ্যালয়ে প্রায় ৭০ ভাগ শিক্ষার্থী আমাদের সঙ্গে রয়েছে।

অন্যদিকে বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রী, ছাত্র গণমঞ্চ, ছাত্র সমিতি, ছাত্র ফোরামসহ আরও বেশ কয়েকটি সংগঠন ডাকসু নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য যোগাযোগ করছে। তবে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে এসব সংগঠনের কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখার বেশিরভাগ নেতাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নন। কিছু নেতা আছেন যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সান্ধ্যকালীন কোর্সের শিক্ষার্থী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত