প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডিসেম্বরে চীনের শিল্পখাতের আয় কমেছে ১০ হাজার কোটি ডলার

নূর মাজিদ : ডিসেম্বরে টানা দ্বিতীয় মাসের মতো কমেছে চীনের শিল্পখাতের আয়। যার ফলে, দেশটির নীতিনির্ধারকদের ওপর স্বল্পমূল্য এবং কারখানা উৎপাদন কমের কারণে ক্ষতির শিকার স্থানীয় শিল্পগুলোকে দেয়া সরকারি সহায়তা বৃদ্ধি করার চাপ বাড়ছে। মূলত চীন-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্যযুদ্ধের কারণে এই ধরণের নেতিবাচক প্রভাব দেখা যাচ্ছে। এই ক্ষেত্রে সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক সমীক্ষাগুলোও একই ধরণের সঙ্কেত দিচ্ছে।

বিশেষ করে, শিল্পোৎপাদন খাতের বিপুল অংশ যে ক্রয়াদেশ কমে যাওয়ার কারণে বিপুল ঘাটতির মুখে রয়েছে তাও পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে। এর প্রভাবেই ইতোমধ্যেই অনেক কারখানা বন্ধ হয়েছে এবং অনেক চীনা শ্রমিক কর্মসংস্থান হারিয়েছেন। চীনা অর্থনীতি যখন বিগত তিন দশকের মাঝে সবচাইতে কম প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে, ঠিক তখনই এসব ঘটনা ঘটছে।

গত ডিসেম্বরে চীনের শিল্পখাতের আয় গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১ দশমিক ৯ শতাংশ কমে। যার আর্থিকমূল্য প্রায় ১০ হাজার কোটি ডলার। কারখানা ফটকে উৎপাদিত পন্যের স্বল্পমূল্য এবং দুর্বল পন্যচাহিদা এই ক্ষেত্রে যে মূল ভূমিকা রেখেছে তা গতকাল সোমবার স্বীকার করেছে দেশটির জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যুরো এনবিএস প্রকাশিত প্রতিবেদন।

গত নভেম্বর মাসে শিল্পখাতের আয় ১ দশমিক ৮ শতাংশ কমার পড়ে ডিসেম্বরে আরো নেতিবাচক আয়ের মুখ দেখেছে চীনা শিল্পখাত। যা বিগত ৩ বছরের মধ্যে প্রথম চীনের শিল্পখাতের আয় ধারাবাহিকভাবে পতনের ঘটনার জন্ম দেয়।
২০১৮ সালে চীনা অর্থনীতি ৬ দশমিক ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করে, তবে চলতি বছরে তা আরো কমে আসার জোরালো সম্ভাবনা রয়েছে।

দেশটির নিজস্ব অর্থনৈতিক পূর্বাভাষ এবং বিভিন্ন বৈশ্বিক সংস্থার পূর্বাভাষও একই বার্তা দিচ্ছে। চীন স্থানীয় আবাসন খাতকে বাড়তি দেনামুক্ত করাসহ বেসরকারি খাতে ঋণের পরিমাণ কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একইসঙ্গে পরিবেশ দূষণকারী শিল্প কারখানা বন্ধেও উদ্যোগী হয়েছে চীন। ফলে দেশটির অর্থনৈতিক বাজার এবং শিল্পখাতে সহসাই কোন গতি অর্জনের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছেনা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত