প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পাকিস্তানে ফিরছেন আসিয়া বিবির আইনজীবী

বাংলা ট্রিবিউন :  ধর্ম অবমাননার দায়ে একসময় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত খ্রিস্টান নারী আসিয়া বিবির আইনজীবী নেদারল্যান্ড থেকে পাকিস্তানে ফিরছেন। সংশ্লিষ্ট মামলার শুনানির তারিখ ঘোষিত হওয়ার প্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে তাকে। আইনজীবী সাইফুল মুল্ক কামনা করেছেন, এটাই যেন এ মামলার শেষ শুনানি হয়। বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, আসিয়া বিবির পক্ষে মামলা লড়ার কারণে পাকিস্তানে তাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছিল। তখন তিনি নেদারল্যান্ডে আশ্রয় নিয়েছিলেন।

২০১৮ সালের ৩১ অক্টোবর পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত এক বেঞ্চ মৃত্যুদণ্ডের সাজা ঘোষিত আসিয়া বিবির শাস্তি রহিত করে। এতে চরম প্রতিক্রিয়া দেখায় পাকিস্তানের ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলো। তেহরিক-ই-লাব্বাইক নামের একটি দল পাকিস্তান অচল করে দেওয়ার হুমকি দেয়। অন্যদিকে আসিয়ার আইনজীবী সাইফুল মুল্ককে দেওয়া হয় হত্যার হুমকি।
গত শনিবার (২৬ জানুয়ারি) নেদারল্যান্ডের সংসদ সদস্য জোয়েল ভুরদারউইন্ড এক টুইটার বার্তায় জানিয়েছেন, আসিয়া বিবির মামলার বিষয়ে নতুন শুনানির তারিখ ঘোষিত হওয়ায় সাইফুল মুল্ক পাকিস্তানে ফিরে যাচ্ছেন। তিনি তাকে বিমানবন্দরে পৌঁছে দিতেও গেছেন। আসিয়া বিবিকে ধর্ম অবমাননার দায় থেকে মুক্তি দেওয়া রায়ের বিষয়ে একটি আবেদন জমা পড়েছে। তার শুনানি অনুষ্ঠিত হবে আগামী সপ্তাহে।
খৃস্টান নারী আসিয়া বিবি (৪৭) ২০০৯ সালের এক গরমের দিনে মুসলমান সহকর্মীদের গ্লাসে পানি খেয়েছিলেন। এতে ক্ষিপ্ত মুসলমান সহকর্মীরা দাবি করেছিল, মুসলমান না হয়ে তাদের গ্লাসে পানি খাওয়ায় গ্লাসটি ব্যবহারের অনুপযুক্ত হয়ে গেছে। তারা আসিয়াকে ইসলাম গ্রহণ করতে চাপ দেয়। আসিয়া তা প্রত্যাখ্যান করলে মুসলমান সহকর্মীদের সঙ্গে তার উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। পরে মুসলমান শ্রমিকরা দাবি করে, আসিয়া বিবি ইসলামের নবী হযরত মুহাম্মদকে (সা.) নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য করেছেন। আসিয়া বিবি উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হওয়ার কথা স্বীকার করলেও ধর্ম অবমাননার অভিযোগ অস্বীকার করেন।
এ নিয়ে পাকিস্তানের আদালতে চলে মামলা। দেশটির প্রথম নারী হিসেবে ২০১০ সালে পাকিস্তানের ধর্ম অবমাননা সংক্রান্ত আইনে আসিয়া বিবিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। বিশ্বজুড়ে এ নিয়ে দেখা দেয় তুমুল সমালোচনা। এমনকি পাকিস্তানেও আসিয়া বিবির পক্ষে দাঁড়ান অনেকে। তবে এদের মধ্যে অন্তত দুইজনকে তাদের অবস্থানের কারণে হত্যার শিকার হতে হয়েছে। আসিয়া বিবির পক্ষে কথা বলায় পাঞ্জাবের গভর্নর সালমান তাসিরকে তারই দেহরক্ষী হত্যা করে। পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট ২০১৮ সালের ৩১ অক্টোবর আসিয়া বিবির সাজা বাতিল করে তাকে খালাস দেয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত