প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাংবাদিক, সংগঠক, সমাজহিতৈষী মোস্তফা ভাই শিশুদের প্রতি অপত্য স্নেহের কারণে হয়ে উঠেছিলেন কিংবদন্তিতুল্য

ফরিদ মুজহার : আমাদের প্রিয় মুখ গোলাম মোস্তফা চৌধুরী তথা মোস্তফা ভাই। লম্বা চুল, বিশাল গুম্ফরাশি হেলেদুলে চলছেন সাংবাদিক, সংগঠক, সমাজ হিতৈষী, মোস্তফা ভাই। যাট দশকের শেষের দিকে মোস্তফা ভাইয়ের সঙ্গে পরিচয়, অগ্রজা নীরু শামীম ইসলামের কচিকাঁচা সংগঠনে যুক্ততার কারণে, ভূতের গলি অন্বেষা বাগিচাগাঁও কুমিল্লার বাসায় আসতেন প্রায়ই। অন্য ছোট বোনেরাও কচিকাঁচার সদস্য হয়ে গেলো। আমি কচিকাঁচা করিনি তবে বাসায় মোস্তফা ভাইয়ের অবাধ যাতায়াতের কারণে মোস্তফা ভাই আমার আব্বা, আম্মাসহ সকল সদস্যদের মোস্তফা ভাই হয়ে গেলেন। তিনি শুধু আমার বাসায় নয় কুমিল্লা শহরের সকল মানুষের কাছে মোস্তফা ভাই হিসেবেই পরিচিত হয়ে উঠেন। কচিকাঁচা না হয়েও আমি তার প্রিয়ভাজন হয়ে গেলাম। কিছুটা অভিভাবকও হয়ে গেলেন তিনি। কখনো কখনো বাসার বাইরেও শাসনের অধিকার নিয়ে কথা বলতেন। আমি সহজভাবেই নিতাম কেননা তিনি তো আমাদের মোস্তফা ভাই। খুব সহজ-সরল জীবনযাপন করতেন মোস্তফা ভাই। খদ্দরের পাজামা পাঞ্জাবির বাইরে অন্য কোনো পোশাকে দেখা যায়নি তাকে। শীতে খদ্দরের জহর কোট, কখনো খদ্দরের চাদর পরতেই দেখেছি।
পায়ে হেঁটে সকল শহর চষে বেরিয়েছেন তিনি। অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে এতোটুকু পিছপা হতেন না। যে কারণে কিছু লোকের অপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন, তবে তাদের সংখ্যা অতি নগণ্য। মোস্তফা ভাইকে নিয়ে কয়েক ভলিউম লেখা যাবে। আমার সীমাবদ্ধ দৃষ্টিপাত দিয়ে শুধু বলবো তিনি ছিলেন প্রকৃত অর্থেই একজন ভালোমানুষ। আমাদের আছে অসংখ্য শিক্ষিত মানুষ কিন্তু তাদের মাঝে ভালো মানুষ পাওয়া খুবই মুশকিল। অপূর্ব সাংগঠনিক দক্ষতা শিশুদের প্রতি অপত্য স্নেহ তাকে করে করেছিলো কিংবদন্তিতুল্য। মোস্তফা ভাই বাড়ি বাড়ি গেছেন শিশু-কিশোরদের সংগঠিত করে কচি কাঁচার ছায়াতলে সমবেত করেছেন তাদেরকে সুস্থ-সুন্দর-সবল মানবিক শিক্ষায় শিক্ষিত করার জন্য, অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে শাণিত করার জন্য। আমি মোস্তফা ভাইকে তার যৌবনে বসে থাকতে দেখিনি। সব সময়ই চলমান। আমার কাছে তাকে দেখলে মনে হতো, হাসেম খানের আঁকা কোনো পেন্সিল স্কেচের মুখাবয়ব। সমাজের গোঁড়া ভাবধারা থেকে কিশোর-কিশোরীদের বের করে এনে ব্রতচারী নৃত্য, ডাম্বেল পিটি, কাঠি নৃত্যসহ নানাবিধ সাংস্কৃতিক কর্মকা-ের সঙ্গে যুক্ত করে মুক্ত চিন্তার মানুষ তৈরিতে সহায়ক করতে চেয়েছিলেন। মোস্তফা ভাই কচি-কাঁচার মাধ্যমে। এ বিষয়ে তাকে সহায়তা করেছেন আরো অনেক কুশলিব। এ পরিসর এ আমি তাদের নাম উল্লেখ করতে চাই না। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত