প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিপিএল-২০১৯
পয়েন্ট টেবিলে কার অবস্থান কোথায় দেখে নিন

আক্তারুজ্জামান : বিপিএলে দেখতে দেখতে চতুর্থ পর্ব শেষের দিকে। ঢাকা, সিলেট, ঢাকা হয়ে বিপিএল এখন চট্টগ্রামে। সেখানে আরও ছয়টি ম্যাচ শেষে বিপিএল ফিরবে শেষ পর্বের মঞ্চে—ঢাকায়। ফাইনালসহ মোট ৪৬টি ম্যাচের মধ্যে নিষ্পত্তি হয়েছে ৩২ ম্যাচের। এরই মধ্যে নির্ধারিত হয়েছে দু-একটি দলের ভাগ্যও। খুলনা টাইটানসের যেমন প্লে অফ পর্বে খেলার কোনো সুযোগ নেই। আবার চিটাগং ভাইকিংস প্লে অফ মঞ্চ দেখতে পাচ্ছে সবার আগে।

তারকা বিচারে বিশ্লেষকেরা এবার বিপিএলে চিটাগংকে ভেবেছিলেন দুর্বল দল হিসেবে। দেশি তারকাদের মধ্যে দলটিতে আছেন শুধু মুশফিকুর রহিম। মোহাম্মদ আশরাফুল থাকলেও চিটাগংয়ের গত কয়েকটি ম্যাচে সুযোগ পাননি তিনি। মোসাদ্দেক হোসেন থাকলেও তাঁর ব্যাটে রান নেই। বিদেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে মোহাম্মদ শাহজাদ, রবি ফ্রাইলিঙ্ক ও ক্যামেরন ডেলপোর্টরা থাকলেও ঢাকার পোলার্ড, রাসেল কিংবা রংপুরের গেইল, ডি ভিলিয়ার্সের মতো তারকাখ্যাতি তাঁদের নেই। কিন্তু এ দলটাই সবাইকে অবাক করে দিয়ে এখন পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে। ৯ ম্যাচে ৬ জয়ে তাঁদের সংগ্রহ ১২ পয়েন্ট।

বিপিএলের গ্রুপপর্বে ১২টি করে ম্যাচ খেলবে সব কটি দল। এই হিসেবে টেবিলের প্রথম চার দল তুলনামূলক সুবিধাজনক রয়েছে—চিটাগং (৯ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট), ঢাকা ডায়নামাইটস (৮ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট), রংপুর রাইডার্স (৯ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট) ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস (৮ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট)। সমান ১০ পয়েন্ট পাওয়া এই তিনটি দল আগে-পিছে অবস্থান করছে নেট রান রেটের ব্যবধানে। মজার ব্যাপার, পাঁচে থাকা রাজশাহী কিংসের সংগ্রহও ১০ পয়েন্ট। কিন্তু রাজশাহী ১০ ম্যাচ খেলে ফেলায় তাঁদের ওপরে থাকা চারটি দলের চেয়ে অসুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে।

বাকি রইল সিলেট সিক্সার্স ও খুলনা টাইটানস। টেবিলের দুই তলানির দল। ১০ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে সিলেট ছয়ে, তাঁদের সমান ম্যাচ খেলা খুলনার সংগ্রহ ৪ পয়েন্ট। আসলে মূল লড়াইটা টেবিলের শীর্ষ পাঁচ দলের মধ্যে। বাকি ম্যাচগুলোয় পা হড়কালে ভাঙতে পারে প্লে অফে ওঠার স্বপ্ন। এই হিসেবে চিটাগং তো বটেই, সাকিব আল হাসানের ঢাকাও রয়েছে সুবিধাজনক অবস্থানে। কারণ দলটির হাতে এখনো আছে ৪ ম্যাচ। পয়েন্ট টেবিলে তাঁদের রান রেটও (১.৩৬১) সবচেয়ে ভালো। চিটাগংয়ের রান রেট সে তুলনায় অতটা ভালো নয় (-০.১৭৩)। তলানিতে থাকা সিলেটের (-০.৮৭৯) কাছাকাছি!

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত