প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইসরাইলের সকল অন্যায়ে জবাব নিরাপত্তা পরিষদকে নিশ্চিত করতে হবে : বাংলাদেশ

ইসরাইলের সকল অন্যায়ে জবাব নিরাপত্তা পরিষদকে নিশ্চিত করতে হবে। মানবাধিকার ও অপরাধ আইনসহ সংশ্লিষ্ট আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় ইসরাইলের সকল অন্যায় ও মানবাধিকার লংঘনের জবাবদিহিতা এবং ফিলিস্তিনি নাগরিকদের সুরক্ষা নিশ্চিতে নিরাপত্তা পরিষদকে অবশ্যই যথাযথ ভূমিকা রাখতে হবে।

 

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ‘প্যালেস্টাইন প্রশ্নসহ মধ্যপ্রাচ্যে পরিস্থিতি’ বিষয়ে মঙ্গলবার আয়োজিত এক উন্মুক্ত আলোচনায় ওআইসির সভাপতি হিসাবে বাংলাদেশ এ অবস্থান তুলে ধরে। নিরাপত্তা পরিষদের জানুয়ারি মাসের সভাপতি ডোমিনিকান রিপাবলিক এই উন্মুক্ত আলোচনার আয়োজন করে। এতে জাতিসংঘের ৪৭টি সদস্যদেশ অংশ নেয়।

 

 

 

জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন নিরাপত্তা পরিষদে বলেন, ইসরাইলের আগ্রাসী শক্তি ও দেশটির একের পর এক অন্যায় করে পার পেয়ে যাওয়ার সংস্কৃতির অবসান ঘটাতে নিরাপত্তা পরিষদের ভূমিকার কোনো বিকল্প নেই। মুসলমান ও খ্রিস্টানদের পবিত্র স্থানসমূহে বিশেষত আল আকসা মসজিদে ইসরাইলের হামলা মানবিক সংকট বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে। বিশেষ করে গাজাসহ সকল ফিলিস্তিনিদের প্রভাবিত করছে।

 

পবিত্রভূমি জেরুজালেমের আইনসম্মত মর্যাদা জোরপূর্বক পরিবর্তনের উদ্দেশ্যে ইসরাইল ও অন্যান্যদের এ জাতীয় উষ্কানিমূলক কার্যক্রমকে বিছিন্নভাবে দেখা যাবে না। ফিলিস্তিনকে জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করতে নিরাপত্তা পরিষদকে ওআইসি’র পক্ষ থেকে পুনরায় অনুরোধ জানান রাষ্ট্রদূত। এখনও জাতিসংঘের যে সকল সদস্যদেশ ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দেয়নি তাদেরকে স্বীকৃতি দেওয়ার অনুরোধ জানান।

 

আলোচনার শুরুতে মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রক্রিয়ার বিশেষ সমন্বয়কারী ও জাতিসংঘ মহাসচিবের ব্যক্তিগত প্রতিনিধি নিকোলে মিলাডিনভ বলেন, সকলের চোখের সামনে ঘটতে থাকা ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংঘাতের বিপজ্জনক পরিস্থিতি সম্পর্কে ২০১৯ সালে এসে আমাদেরকে অবশ্যই কোনো বিভ্রান্তিতে থাকা উচিত নয়।

 

সর্বাধিক পঠিত