প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের দুঃশাসন : একচল্লিশটি ঘটনা চিত্র

নুরুল মমিন খান : ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত জোটের দুঃশাসনের একটি চিত্র তুলে ধরা হলো ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় আইভি রহমানসহ আওয়ামী লীগের ২৪ জন নেতাকর্মীর নির্মম মৃত্যু এবং ৩ শতাধিক লোক আহত হয়। দুই. শাহ্ এএমএস কিবরিয়া হত্যাকাণ্ড । ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি গ্রেনেড হামলায় নিহত হন তিনি। তিন. আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আহসানুল্লাহ মাস্টারকে হত্যা। ২০০৪ সালের সাত মে তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় নোয়াগাঁও এম এ মজিদ মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করা হয় আহসান উল্লাহ মাস্টারকে। চার. মমতাজ হত্যাকাণ্ড। পাঁচ. গোপাল কৃষ্ণ মুহুরী হত্যাকাণ্ড। ২০০১ সালের ১৬ নভেম্বর, শুক্রবার, সকাল সোয়া ৭টার দিকে চার অজ্ঞাত পরিচয় অস্ত্রধারী যুবক ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে চট্টগ্রাম মহানগরীর ব্যস্ততম জামাল খান রোডের বাসায় হাটহাজারী কলেজের অধ্যক্ষ গোপাল কৃষ্ণ মুহুরীকে (৬০) মাথায় স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করে হত্যা করে।

ছয়. অধ্যাপক হুমায়ূন আজাদ হত্যাকা-। সাত. অধ্যাপক ইউনুস হত্যাকাণ্ড। মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইউনুস মৌলবাদবিরোধী শিক্ষক আন্দোলনে সক্রিয় ছিলেন। ২০০৪ সালের ২৪ ডিসেম্বর ভোরে ফজরের নামাজ শেষে প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে ক্যাম্পাস সংলগ্ন বিনোদপুরে নিজের বাসার অদূরে পৌঁছালে ইউনুসকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

আট. ডাক্তার মোজাম্মেল হত্যাকাণ্ড। নয়. ২১ অগাস্ট আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার ওপর গ্রেনেড হামলা ও জজ মিয়া সাজানো নাটক। দশ. সারা বাংলাদেশে ৫০০ জায়গায় সুপরিকল্পিতভাবে বোমা হামলা একই সময়ে। ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট ৬৩ জেলায় প্রায় একই সময়ে ঘটানো জেএমবি সারা দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলা করে।

এগারো. ময়মনসিংহ সিনেমা হলে গ্রেনেড হামলা। বারো. বাংলা ভাই, আব্দুর রহমানদের মতো তালেবানি জঙ্গিদের সৃষ্টি যারা নিরীহ মানুষদের হত্যা করে উল্টা করে পায়ে বেঁধে গাছে ঝুলিয়ে রাখতো। তেরো. ভারত থেকে বাংলাদেশের দশ ট্রাক অস্ত্র আমদানি।

চৌদ্দ. বগুড়ার কাহালুতে আড়াইলাখ পিচ গুলি উদ্ধার। পনের. ময়মনসিংহে আড়াই লাখ পিচ গুলি পরিত্যাক্ত উদ্ধার। ষোলো. খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার খুন। সতের. হাওয়া ভবনের আড়ালে সরকার পরিচালনা করা। আঠারো. খাম্বা মামুনের অবৈধ ব্যবসা। ঊনিশ. বানিয়ার চরে গির্জায় গ্রেনেড হামলা। বিশ. বাশখালীতে ১৩ জন হিন্দুকে পুড়িয়ে মারা।

একুশ. সারাদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর অমানুষিক অত্যাচার যা অনেককেই বাধ্য করে দেশ ত্যাগ করতে। বাইশ. নিজের মায়ের সামনে একজন হিন্দু মেয়ের ওপর গণধর্ষণ। তেইশ. সারা দেশে কয়েকশো হিন্দু মেয়েসহ অনেক আওয়ামী ঘরানার মেয়ে ধর্ষিত হয়েছিলো, নির্বাচনের প্রথম কয়েক মাসেই। এর মধ্যে রাজশাহী ছিলো অন্যতম। চব্বিশ. সারাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো দখলে নিয়ে সন্ত্রাসের অভয়ারণ্য তৈরি করা, অনেক ছাত্রের জীবন অনিশ্চিত। পঁচিশ. প্রশাসনে নিয়োগের নামে জামায়াত-শিবিরের আস্তানা গড়া।

ছব্বিশ. বিসিএসের প্রশ্নপত্র ফাঁস প্রতিবার। শিবির কর্মীদের বেঁছে বেঁছে নিয়োগ প্রদান করা। সাতাশ. সেনাবাহিনী থেকে শুরু করে গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী পর্যন্ত শিবিরের কর্মী নিয়োগ। আটাশ. প্রশাসনে তিনস্তর বিশিষ্ট জামায়াতী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরি করা। ঊনত্রিশ. এসপি কহিনুরদের উত্থান। ত্রিশ. সর্বহারা দমনের নামে অপারেশন ক্লিনহার্ট করে সারা বাংলায় আওয়ামী নিধন অভিযান। একত্রিশ. এরপর সন্ত্রাস দমনের কথা বলে রেব তৈরি করে আওয়ামী নিধনের অভিযান। বত্রিশ. দুর্নীতে বাংলাদেশের শীর্ষ অবস্থানের হ্যাট্টিক রেকর্ড অর্থাৎ বিশ্বচ্যাম্পিয়নও বিএনপি-জামায়াত শাসনামলেই হয়েছিলো।

তেতত্রিশ. খালেদা জিয়ার ৪০০ সুটকেস নিয়ে সৌদি আরবে গমন। চৌত্রিশ. বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মালয়েশিয়াতে ২৮ হাজার কোটি টাকা ধরা খাওয়া এবং এই অংকের একটি বিরাট অংশ মালয়েশিয়া সরকার কর্তৃক বাজেয়াপ্ত হওয়া। পঁয়ত্রিশ. কালো চশমা হারিছ চৌধুরীদের উত্থান, বাবর জেলের ব্যাপক মার্কেট। ছত্রিশ. মিস্টার ১০ পার্সেন্ট হিসেবে শুধু নয়, কালা জাহাঙ্গীর হয়ে পানের দোকান থেকেও চাঁদা উত্তোলন। সাইত্রিশ. রাজাকারের গাড়িতে পতাকা, স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতীদের দম্ভ চরম পর্যায়ে পৌঁছা। আটত্রিশ. ঢাকার চৌধুরী পাড়ায় মসজিদ নিয়ে কোন্দলে মুসুল্লিদের গুলি করে হত্যা। ঊনচল্লিশ. চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিদ্যুতের জন্য গুলি করে ১৯ জন কৃষক হত্যা। চল্লিশ. কুষ্টিয়ায় বিদ্যুতের জন্য গুলি করে কৃষক হত্যা। একচল্লিশ. তৎকালীন ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত আনোয়ার হোসেনের ওপর গ্রেনেড হামলা। ২০০৪ সালের ২১ মে হযরত শাহজালাল (র.) মাজার প্রাঙ্গণে তৎকালীন ব্রিটিশ হাই কমিশনার ও বর্তমান পেরুর বৃটিশ রাষ্ট্রদূত আনোয়ার চৌধুরীর ওপর গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত