প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

থামছে না সংঘর্ষ সহিংসতা

ডেস্ক রিপোর্ট : ভোটের দিন ঘনিয়ে এলেও হামলা-সংঘর্ষ যেন থামছেই না। গতকালও রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় প্রতিপক্ষের গাড়িবহরে হামলা, ককটেল বিস্ফোরণ, নির্বাচনী অফিস, আসবাবপত্র ও প্রচার মাইক ভাঙচুর এবং লিফলেটে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ঢাকায় বিএনপি প্রার্থী আফরোজা আব্বাসের গণসংযোগে আবারও হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। মিছিলের পেছন থেকে এ হামলা চালানো হয়েছে। হামলায় নারী ও সাংবাদিকসহ অর্ধশত আহত হয়েছেন। এ ঘটনার পর আফরোজা আব্বাস গণসংযোগ বন্ধ করে বাসায় ফিরে গেছেন। অন্যদিকে চট্টগ্রামে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম ও কর্নেল (অব.) আজিম উল্লাহ বাহারের গাড়িবহরে সশস্ত্র হামলা হয়েছে। হামলায় মেজর জেনারেল (অব.) ইব্রাহিমের মাথায় ইটের আঘাত লাগে। এ ছাড়া আজিম উল্লাহ বাহারের মাথা ফেটে গেছে। এসব ঘটনায় ক্ষমতাসীন দলকে দায়ী করেছে বিএনপি। সারা দেশে হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনায় শতাধিক আহত হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে অন্তত ৫০ জনকে। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর—

ঢাকা : ঢাকা-৯ আসনের বিএনপি প্রার্থী আফরোজা আব্বাসের গণসংযোগে আবারও হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। গতকাল বেলা ১টার দিকে মুগদাপাড়ার মানিকনগর পুকুরপাড় এলাকায় মিছিলের পেছন থেকে এ হামলা চালায় চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা। হামলায় নারী ও সাংবাদিকসহ ১০০ জনেরও বেশি আহত হয়েছেন। এর মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এ ঘটনার পর আফরোজা আব্বাস গণসংযোগ বন্ধ করে বাসায় ফিরে গেছেন। এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনে লিখিত অভিযোগে নিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন আফরোজা আব্বাস। তিনি বলেন, বেলা ১২টায় শাহজাহানপুরের নিজ বাসা থেকে তিনি নেতা-কর্মীদের নিয়ে মিছিলসহ গণসংযোগে বের হন। মিছিলটি মুগদা ও মান্ডা হয়ে মানিকনগর মোড়ে পৌঁছলে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা টুন্ডা বাবুর নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা পেছন থেকে হামলা চালায়। আফরোজা আব্বাস বলেন, ‘হামলাকারীদের চিহ্নিত করতে পেরেছি। তারা হলো, মান্ডা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক খায়রুল, মুগদা থানা ছাত্রলীগ সভাপতি রুবেল, সাধারণ সম্পাদক শাম্পু, মুগদা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা শামীম হোসেন, শাহাজাদা বাবু, আওলাদ, রুবেল, জীবন, মানিকনগর যুবলীগ নেতা জীবন, মান্ডা যুবলীগ নেতা হাজি বিপ্লব, সাধারণ সম্পাদক জাবেদ, বিচ্ছু রনি, চাঁনতারা ফারুক, পিচ্চি রাসেল, শাহিন, প্লাবন, মান্ডা আওয়ামী লীগ নেতা হাজি আনোয়ার, মুগদা আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম কিবরিয়া রাজা।’ এ ঘটনায় হায়দার আলী নামে এক ফটোসাংবাদিক গুরুতর আহত হয়েছেন। হামলাকারীরা তার ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয়। একই সঙ্গে তাকে মাটিতে ফেলে উপর্যুপরি লাথি মারতে থাকে ও পিটিয়ে আহত করে। আহত সাংবাদিকদের মধ্যে রয়েছেন আসাদ, মিন্টু, পারভেজ প্রমুখ। এ ছাড়া এ ঘটনায় আহত হয়েছেন মহিলা দল নেত্রী নূরজাহান আক্তার ইভা, শোভা, মনোয়ারা রহমান, জয়া, শারমিন আক্তার, মিজানুর রহমান, সোনিয়া আহমেদ, পারভিন, মর্জিনা আক্তার, ফরিদা পারভিন, সুলতানা রাজিয়া, আসিফ, সোহেল, ইসমাইল, কাজী আকবর প্রমুখ। এদিকে ঢাকা-১১ আসনে বিএনপি মনোনিত ধানের শীষের প্রার্থী শামিম আরা বেগম অভিযোগ করে বলেছেন, ‘পুলিশের হামলা ও গ্রেফতার আতঙ্কে নেতা-কর্মীরা মাঠে প্রচারণায় নামতে পারছেন না। তাই বাধ্য হয়ে একাই প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি।’ গতকাল রাজধানীর বনশ্রী এলাকায় গণসংযোগকালে তিনি এ অভিযোগ করেন। বনশ্রী আইডিয়াল কলেজের সামনে থেকে প্রচারণা শুরু করেন তিনি। এ সময় তিনি বলেন, ‘আমাদের আসল প্রার্থী আমার স্বামী এম এ কাইয়ুম হামলা-মামলার কারণে দেশে আসতে পারছেন না। তাই বাধ্য হয়ে আমাকে প্রার্থী হতে হয়েছে। এবার বোঝেন, আমাদের নেতা-কর্মীরা কী অবস্থায় আছে। নেতা-কর্মীদের দেখামাত্র গ্রেফতার করা হচ্ছে। সবাই আতঙ্কের মধ্যে আছে। সে রকম কোনো প্রচার-প্রচারণা চালাতে পারছি না। কয়েকজন মহিলা কর্মীকে সঙ্গে নিয়ে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছি। আমি নিজেও নিরাপত্তহীনতায় ভুগছি।’ বনশ্রী এলাকায় গণসংযোগকালে বিএনপি প্রার্থী শামিম আরা বেগমের প্রচার কাজে পুলিশ বাধা দেয় এবং চারজনকে আটক করে নিয়ে যায়। পরে কর্মসূচি সমাপ্ত করে বাড্ডা এলাকায় এলে সেখান থেকে আরও একজনকে গ্রেফতার করা হয়। অন্যদিকে ঢাকা-১৪ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক সাজু তার নির্বাচনী অফিসে বিএনপি অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে এক মতবিনিময় সভা করেন। মতবিনিময় সভায় এস এ সিদ্দিক সাজু বলেন, ‘মিরপুরে ধানের শীষের গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। যেখানেই যাচ্ছি জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া পাচ্ছি। জনগণের ভোটে এমপি নির্বাচিত হলে মিরপুরকে একটি বাস্তবসম্মত আবাসযোগ্য বাসস্থল বিনির্মাণ করাই হবে আমার প্রধান ও অন্যতম লক্ষ্য। সন্ধ্যায় তার নির্বাচনী অফিসে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় তার বাবা সাবেক সংসদ সদস্য এস এ খালেকসহ বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

চুয়াডাঙ্গায় এএসপির গাড়িতে বোমা হামলা: চুয়াডাঙ্গায় সহকারী পুলিশ সুপার আবু রাসেলের গাড়িতে বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল রাত ৯টার দিকে চুয়াডাঙ্গা-জীবননগর সড়কের দর্শনা ফিলিং স্টেশনের সামনে এ বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। হামলা চালিয়ে পালানোর সময় পুলিশের গুলিতে আহত হয়ে আটক হয়েছে খালিদুজ্জামান টিটু (৩০) নামে এক যুবক। সে দর্শনা ইসলাম বাজার এলাকার মৃত মুজাহিদ আলীর ছেলে। চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান জানান, সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গার উথলীতে সড়ক দুর্ঘটনার স্থান পরিদর্শন শেষে চুয়াডাঙ্গায় ফিরছিলেন সহকারী পুলিশ সুপার আবু রাসেলসহ চার কনস্টেবল। এ সময় তার গাড়ি লক্ষ্য বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। সহকারী পুলিশ সুপার আবু রাসেল জানান, রাত ৯টার দিকে জীবননগর-চুয়াডাঙ্গা সড়কের দর্শনা ফিলিং স্টেশনের কাছে পৌঁছালে মটরসাইকেল আরোহী একজন পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে বোমা ছুঁড়ে মারে। নিক্ষিপ্ত বোমাটি বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়ে গাড়ির ডান দিকের গ্লাস ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পুলিশ হামলাকারীকে ধাওয়া করলে সে পালানোর চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ গুলি ছুঁড়লে পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে টিটু নামে এক যুবক আটক হয়। চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম ও চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনের বিএনপির প্রার্থী কর্নেল (অব.) আজিম উল্লাহ বাহারের গাড়িবহরে সশস্ত্র হামলা হয়েছে। এতে দুই প্রার্থীসহ আহত হয়েছেন অন্তত ২৫ জন। হামলায় আজিম উল্লাহ বাহার ও সৈয়দ ইব্রাহিম দুজনই গুরুতর আহত হয়েছেন। পৃথক এ হামলার ঘটনায় আহতদের চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বেলা ৩টার দিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ নম্বর গেটের কাছে নির্বাচনী পথসভা চলাকালে কয়েকজন যুবক মেজর ইব্রাহিমের গাড়িতে ভাঙচুর করে এবং তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। হামলাকারীদের ছোড়া ইটের আঘাতে মেজর ইব্রাহিম, তার গাড়িচালক এবং একজন সমর্থক গুরুতর আহত হন। এ ঘটনায় তিনি মহাজোট প্রার্থী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদকে দায়ী করেন। শেরপুর : জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলায় শেরপুর-৩ আসনের বিএনপি প্রার্থীর গণসংযোগে হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলায় সাতজন আহত হয়েছেন। শনিবার রাতে তিনআনী বাজারের মহিলা মার্কেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। নেত্রকোনা : হামলা, মামলা, গণগ্রেফতার ও নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা প্রদানের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে নেত্রকোনা-১ (দুর্গাপুর-কলমাকান্দা) আসনের বিএনপির প্রার্থী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। গতকাল দুপুরে তিনি কলমাকান্দা উপজেলার চত্রংপুর নিজ বাড়িতে এ সংবাদ সম্মেলন করেন। পাবনা : পাবনা-৫ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী প্রিন্সিপাল ইকবাল হোসাইনের বাসভবনে যৌথ বাহিনীর অভিযানের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে জেলা জামায়াত। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তারা ওই সময় গ্রেফতার চার ছাত্রের মুক্তি দাবি করেছে। গতকাল বিকালে পাবনা ইসলামিয়া মাদরাসা কোয়ার্টারে ও মাদরাসার ছাত্রাবাসে এ অভিযান চালায় যৌথ বাহিনী। কুমিল্লা : জেলার চান্দিনায় আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অফিসে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় বিএনপি ও এলডিপির ৮৩ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে আওয়ামী লীগ। শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার মাধাইয়া ইউনিয়নের নাওতলা এলাকায় আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অফিসে দুটি ককটেল বিস্ফোরণের পর ঘটনাস্থল থেকে নয়টি তাজা ককটেল উদ্ধার করে চান্দিনা থানা পুলিশ। বগুড়া : বগুড়া-২ (শিবগঞ্জ) আসনের মহাজোটের প্রার্থী জাপা নেতা শরিফুল ইসলাম জিন্নার লাঙ্গল মার্কার নির্বাচনী কার্যালয়ে ককটেল হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় একটি মোটরসাইকেলেও আগুন দেওয়া হয়। শনিবার রাত সোয়া ১০টায় শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলা ইউনিয়নের কাগইলের রাস্তা নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় থানা বিএনপি সভাপতি, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক মেয়রসহ ৪৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এদিকে একই রাতে কে বা কারা উপজেলার বিহার ইউনিয়নের উত্তর ফকিরপাড়ায় গ্রামে আবস্থিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মাহমুদুর রহমান মান্নার ধানের শীষ প্রতীকের নির্বাচনী অফিস ও তোরণে অগ্নিসংযোগ করেছে। এতে অফিসের কিছু অংশ ও তোরণ পুড়ে গেছে। এদিকে জেলার ধুনট উপজেলায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে নাশকতার দুই মামলায় বিএনপির সাত নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করেছে। শনিবার রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে নিজ নিজ এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে। বরিশাল : বরিশাল-২ আসনের (উজিরপুর-বানারীপাড়া) উজিরপুরের শোলক ইউনিয়নের ধামুড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় নৌকার নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা-ভাঙচুরের অভিযোগে স্থানীয় বিএনপির ২৬ জনের নাম উল্লেখসহ ৫১ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। শনিবার রাতে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম সরদার বাদী হয়ে মামলাটি করেন। বাদী জানান, শনিবার রাতে স্থানীয় ছাত্রদল নেতা জুয়েলের নেতৃত্বে ২০-২৫ জনের একদল বিএনপি নেতা-কর্মী অতর্কিতে আওয়ামী লীগ অফিসে হামলা চালায়। হামলায় পাঁচজন আহত হন। হামলাকারীরা অফিসে থাকা অর্ধশতাধিক চেয়ার, একটি টেবিল ও একটি টেলিভিশন ভাঙচুর করে। মাদারগঞ্জ (জামালপুর) : জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফায়েজুল ইসলাম লাঞ্জুকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।
মাদারগঞ্জ থানা সার্কেলের এএসপি সামিউল আলম সাংবাদিকদের জানান, ফায়েজুল নাশকতা সৃষ্টি করার উদ্দেশ্যে শনিবার দিবাগত রাত পৌনে ২টায় গুনারীতলা গ্রামে নিজ বাড়িতে বৈঠক করছিলেন। পুলিশ সেখানে অভিযান চালিয়ে লাঞ্জুকে গ্রেফতার করে। ঝালকাঠি : ঝালকাঠির রাজাপুরের বড়ইয়ায় গতকাল সন্ধ্যায় মহাজোটের প্রার্থী বজলুল হক হারুনের নির্বাচনী পথসভা শেষে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সিলেট : শহরতলির শাহপরান গেট এলাকায় সিলেট-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ড. এ কে আবদুল মোমেনের নির্বাচনী কার্যালয়ে ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার দিবাগত গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা। খাগড়াছড়ি : শুক্রবার দিবাগত রাতে পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের টিভি ও আসবাবপত্র ভাঙচুর, নৌকা প্রতীকের পোস্টারে আগুন দেওয়ার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ঝিনাইদহ : জেলার কালীগঞ্জ ও শৈলকুপায় আওয়ামী লীগের নির্বাচনী কার্যালয়ে বোমা হামলা করে নৌকা পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। প্রতিবাদে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা শনিবার সকালে শৈলকুপায় লাঠি মিছিল করেছে। তবে উভয় ঘটনার জন্য আওয়ামী লীগ বিএনপি-জামায়াতকে দায়ী করেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত