প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জনগণের ভোট ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা ও সন্ত্রাস করছে আওয়ামী লীগ: মান্না

সাইদ রিপন: মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সারাদেশের মানুষের মধ্যে একটা স্বর্তস্ফূর্ততা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। মানুষ ভোট দিতে চায়, কিন্তু মানুষ যাতে ভোট দিতে না পারে সেজন্য সরকার ও তার দল আওয়ামী লীগ সব ধরণের চেষ্টা করছে। প্রতিনিয়ত জনগণের ভোট ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা ও সন্ত্রাস করছে আওয়ামী লীগ। পরাজয়ের গ্লানি ঢাকার জন্যই তারা এ চেষ্টা করে যাচ্ছে।

রোববার দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা সঙ্গে দেখা করে নিজের নির্বাচনী এলাকায় নানা অনিয়ম, প্রতিবাদ ও ব্যবস্থাগ্রহণের জন্য লিখিত চিঠি দেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

মান্না বলেন, আমরা আগে বলতাম নির্বাচনী যুদ্ধ। এখন সত্যিকার অর্থে নির্বাচনের নামে যুদ্ধই হচ্ছে। সরকারপক্ষ তাই করছে। আমার এলাকায় গভীর রাতে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে হামলা হচ্ছে, গ্রেফতার করা হচ্ছে নির্বাচনী এজেন্ট দলীয় নেতাকর্মীদের। সারাদেশে একই অবস্থা বিরাজ করছে। নির্বাচন কমিশনকে কিছু বললেও কাজ হয় না। আজকের অভিযোগের বিষয়ে ইসি কর্মকর্তারা বলছেন চিঠি ডিসিকে পাঠিয়ে দিয়েছি। এরআগেও অনেক অভিযোগ করা হয়েছে। ফলাফল পাই নাই। কোনো অভিযোগের ব্যাপারে অ্যাকশন আমরা দেখিনি।

তিনি বলেন, বহু প্রার্থী গ্রেফতার হয়েছে। নির্বাচনে প্রার্থীতা নিয়েও নানা নাটক মঞ্চস্থ করা হচ্ছে। সমগ্র বিশ্ব আজ উদ্বিগ্ন। আজ পত্রিকাতে দেখলাম জাতিসংঘ পর্যন্ত উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এটা একটা নারকীয় পরিবেশ, এটা কোনো নির্বাচনী পরিবেশ নয়। এইভাবে যদি নির্বাচন হয় তাহলে একপাক্ষিকভাবে জোর করে জেতার চেষ্টা করবে। তখন যদি জনগণ ফুসে উঠে তাহলে এর পরিণতির জন্য এরাই দায়ী থাকবে।

আমি গত ৫/৬ দিন ধরে আমার নির্বাচনী এলাকায় বিভিষীকা রাজত্ব দেখছি। এর আগে কখনো এরকম দেখেনি। গত ১০ ডিসেম্বর থেকে এসব দেখছি। আমাকে হাইওয়েতে প্রচারণা কর্মসূচি করতে দেয়া হয়নি বিরোধী পক্ষের কারণে। পুলিশকে আগে জানালেও আমাকেই সরে যেতে অনুরোধ করে পুলিশ। এরপর থেকে যেখানেই যাচ্ছি সেখানে হয়রানি করা হচ্ছে, পোস্টার ছেড়া হচ্ছে, কর্মীদের মারধর, অফিসে হামলা করা হচ্ছে। নিরঙ্কুশ সমর্থন দেখে প্রতিপক্ষ এসব করছে। যেভাবে ককটেল ফুটিয়ে মামলা দিচ্ছে। আমার নির্বাচনী কমিটির প্রত্যেকটি সদস্যকে ধরে ধরে মামলা দেয়া হচ্ছে। কেউ জামিন পাচ্ছে না। পুলিশ এদের খুঁজছে। গত রাত সাড়ে ৩টায় ৪৪ জনের নামে মামলা নেয়া হয়েছে।

চিঠিতে মাহমুদুর রহমান মান্না গ্রেফতার নেতাকর্মীদের মুক্তি, নতুন মামলা না দেয়া ও গ্রেফতার বন্ধ, বিনা বাধা প্রচার ও পোস্টার ছেড়া বন্ধ নিশ্চিত করা এবং পুলিশকে রাষ্ট্রীয় বাহিনীকে সত্যিকার অর্থে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের পাঁচ দফা দাবি পেশ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত