প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ময়মনসিংহ-৪ লাঙল ধানে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই

আব্দুল্লাহ আল আমীন, ময়মনসিংহ :  সারাদেশের নির্বাচনী মাঠের চেয়ে ভিন্ন চিত্র বিরাজ করছে ময়মনসিংহ-৪ আসনে। এখানে বড় দুই জোটের প্রার্থী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন সমানতালে।

এই আসনে লাঙ্গল প্রতীকে মহাজোটের প্রার্থী জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ। অন্যদিকে ধানের শীষ নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী আবু ওয়াহাব আকন্দ ওয়াহিদ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সারাদেশে যখন পোস্টার সাঁটাতে দেয় না কিংবা ছিঁড়ে ফেলা, প্রার্থীর প্রচারণায় বাঁধা দেয়া ও হামলা-হুমকি-ইত্যাদি অভিযোগ উঠছে সরকার দল বা জোটের বিরুদ্ধে। সেখানে উল্টো চিত্র ময়মনসিংহ-৪ (সদর) আসনে। গুরুত্ব¡পূর্ণ এই আসনে নির্বাচনী পরিবেশ অন্যরকম। এখানে নগর থেকে শুরু করে প্রতিটি গ্রাম যেনো দুলছে ভোটের হাওয়ায়। নগরীর প্রায় প্রতিটি সড়কে পাশাপাশি রশিতে দুলছে লাঙল ও ধানের শীষ প্রতীকের পোস্টার। ছোট-বড় মিছিল হচ্ছে মহাজোট-ঐক্যফ্রন্টের সমর্থনে। সকাল-সন্ধ্যা হচ্ছে মাইকিংও।

ময়মনসিংহ-৪ আসনে বড় দুই জোটের প্রার্থী সমানতালে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকরা। ভোটারদের হাতে হাতে তুলে দেয়া হচ্ছে নির্বাচনী লিফলেট। সেইসঙ্গে আশ্বাস-প্রতিশ্রুতি দেয়া হচ্ছে প্রার্থীদের প থেকে।

পায়ে হেঁটে, গাড়িতে চড়ে ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে উপস্থিত হচ্ছেন ধানের শীষের প্রার্থী ও কর্মী-সমর্থকরা।

অন্যদিকে বর্তমান সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদের পে টিম ওয়ার্ক করছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। প্রতিটি কর্মসূচিতে আওয়ামী সিনিয়র থেকে শুরু করে সব পর্যায়ের নেতারা লাঙল প্রতীকে ভোট চাইছেন বাড়ি বাড়ি গিয়ে। তারা জোটের প্রার্থীকে জেতাতে এক ও অভিন্নভাবে সক্রিয় অবস্থান নিয়েছেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মর্যাদাপূর্ণ ময়মনসিংহ-৪ আসনে মোট পাঁচ প্রার্থী ভোট করছেন। তবে মূল লড়াইটা জমে উঠেছে রওশন এরশাদ ও ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দের মধ্যে।

ময়মনসিংহ মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি জাহাঙ্গীর আহমেদ বলেন, গত ৫ বছরে এ আসনে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন রওশন এরশাদ। আমরা বিশ্বাস করি উন্নয়ন ও সততা দিয়ে তিনি এগিয়ে যাবেন। ভোটাররা তাকে বিপুল ভোটে জয়ী করবেন।

তবে ময়মনসিংহ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও কোতোয়ালি বিএনপির সভাপতি কামরুল ইসলাম মোহাম্মদ ওয়ালিদ বলছেন এর বিপরীত। তিনি বলেন, মাঠের প্রার্থী মনোনয়ন দেয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীরা এখানে উজ্জীবিত। ভোটাররাও বিষয়টিকে ভালোভাবে গ্রহণ করেছেন। আমাদের শতভাগ আশা জয় ছিনিয়ে আনবেন আবু ওয়াহাব।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত