প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঢাকায় গ্র্যান্ড মুফতি
আল-আকসা মসজিদ রক্ষায় আমৃত্যু সংগ্রাম

কালের কন্ঠ  :  ঢাকা সফররত পবিত্র আল-আকসা মসজিদের গ্র্যান্ড মুফতি শায়খ মোহাম্মদ আহমাদ হোসেইন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানের বাসভবনে এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরের হাতে শুভেচ্ছা স্মারক তুলে দেন এবং উত্তরীয় পরিয়ে দেন আল-আকসা মসজিদের গ্র্যান্ড মুফতি মোহাম্মদ আহমাদ হোসেইন।

বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান আলাপকালে বলেন, ফিলিস্তিনের মুসলমানদের পাশে বাংলাদেশ সব সময়ই ছিল এবং আগামীতেও থাকবে। সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রদূত ইউসুফ রামাদান, ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত মারি বোরদাঁ, শোলাকিয়ার পেশ ইমাম মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ, বিডিজির প্রেসিডেন্ট মোস্তফা কামাল মহিউদ্দিন, এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম, ডেইলি সান সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরী, চরমোনাই পীরের বড় ছেলে সৈয়দ রেদওয়ান বিন ইসহাক, ইরান-বাংলাদেশ চেম্বারের সভাপতি ড. কাজী এরতেজা হাসান, আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত হাফেজ আরিফ উদ্দিন মারুফ প্রমুখ। সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে অতিথিরা বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আয়োজিত নৈশভোজে অংশ নেন।

এর আগে গতকাল দুপুরে রাজধানীর গুলশানে একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত সেমিনারে আল-আকসা মসজিদের গ্র্যান্ড মুফতি বলেন, মুসলমানদের পবিত্র স্থান আল-আকসা মসজিদ রক্ষায় জেরুজালেম স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত আমৃত্যু সংগ্রাম চালিয়ে যাবে ফিলিস্তিনিরা। ‘আল-আকসা মুসলিম উম্মাহর হৃদয় এবং জেরুজালেম ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের চিরন্তন রাজধানী’ শীর্ষক ওই সেমিনার আয়োজন করে বাংলাদেশে ফিলিস্তিন দূতাবাস ও ইউনাইটেড মুসলিম উম্মাহ ফাউন্ডেশন। ফাউন্ডেশনের চিফ কো-অর্ডিনেটর মজুমদার মুহম্মদ আমিনের সভাপতিত্বে সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম ও খতিব (ভারপ্রাপ্ত) মুফতি মহিবুল্লাহ আল বাকী আন নদভী প্রমুখ।

সেমিনারে মোহাম্মদ আহমাদ হোসেইন বলেন, ‘ফিলিস্তিনে যেসব ঐতিহাসিক স্থাপনা ও মূল্যবোধ রয়েছে, সেগুলো আমরা আঁকড়ে ধরে রেখেছি। আল-আকসা ইসলামের সভ্যতাকে ধারণ করে বলে ফিলিস্তিনের সন্তানরা জীবন বাজি রেখে তা রক্ষার জন্য সংগ্রাম করছে। আমরা ফিলিস্তিনিরা আমাদের বৈধ অধিকার এবং চাওয়া-পাওয়া থেকে কোনো দিনই সরব না, আমৃত্যু আমাদের সংগ্রাম চালিয়ে যাব।’

ফিলিস্তিনিদের অধিকার রক্ষায় সবার সহযোগিতা চেয়ে গ্র্যান্ড মুফতি বলেন, ‘আমি সবার কাছে আহ্বান জানাচ্ছি, আপনারা আমাদের সহযোগিতা করবেন, আমাদের পাশে দাঁড়াবেন, যতক্ষণ না পর্যন্ত আমরা এই ফিলিস্তিনকে স্বাধীন করছি বা জেরুজালেমকে স্বাধীন করছি।’

গত বছর জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণা করায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনা করেন আল-আকসা মসজিদের গ্র্যান্ড মুফতি মোহাম্মদ আহমাদ হোসেইন। তিনি বলেন, ‘এক বছর আগে ট্রাম্প এই পবিত্র আল-আকসা ইসরায়েলকে দান করার কথা বলেছেন, যা কোনোভাবেই আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণা করা এক প্রকার শত্রুতা। এই শত্রুতার আচরণ ফিলিস্তিনের প্রতি, আরব বিশ্বের প্রতি, এমনকি মুসলিম উম্মাহর প্রতি।’ তিনি জানান, ফিলিস্তিনের সরকার থেকে শুরু করে জনগণ ট্রাম্পের ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, ‘এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে মুসলিম বিশ্বও দাঁড়িয়েছে। আজকের সেমিনারও প্রমাণ করে ট্রাম্পের ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সবাই দাঁড়িয়েছে।’

গওহর রিজভী বলেন, ‘আমরা সব সময় সব অবিচার, অন্যায়, সংঘাত ও ধ্বংসের বিরুদ্ধে। ফিলিস্তিনি জনগণ আজ যে ধরনের নির্মমতার শিকার হচ্ছে, তা বিশ্বের মুসলিমসহ সব মানুষের জন্য কষ্টের কারণ। নির্মমতার শিকার মানুষের সহযোগিতায় আমরা সব সময় সচেষ্ট।’

বাংলাদেশ সফরের জন্য গ্র্যান্ড মুফতি শায়খ মোহাম্মদ আহমাদ হোসেইনকে ধন্যবাদ জানান গওহর রিজভী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত