প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্বাচনী পরিস্থিতি ঘোলাটে করার অপচেষ্টা রুখতে হবে

বাংলাদেশ প্রতিদিন  :   সাবেক রাষ্ট্রদূত মো. আবদুল হান্নান বলেন, নির্বাচনের সময় এ ধরনের অপশক্তি পরিস্থিতি ঘোলাটে করার চেষ্টা করে। উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠেয় একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে আগেও এ ধরনের ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। তাই কোনো ধরনের ফাঁক-ফোকর না রেখে শুধু আইএসআই নয়, যে কোনো দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীকে আইনের আওতায় আনতে হবে। গতকাল  দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি আরও বলেন, নির্বাচন কমিশন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থা নিশ্চয় বিষয়গুলো খতিয়ে দেখছে। তাদের নিবিড়ভাবে এ ধরনের ষড়যন্ত্র রুখতে কাজ করতে হবে। নির্বাচন যেহেতু সামনে তাই এ ধরনের কিছুর আঁচ পাওয়া গেলে তাকে হালকা করে দেখার সুযোগ নেই। প্রয়োজনে দেশের বাইরে বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর ইনটেলিজেন্স ইউনিটের সহযোগিতা নেওয়া যেতে পারে।

সাবেক এই রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, জামায়াতের সঙ্গে আইএসআইর সম্পর্ক ছিল। অতীত ইতহাস তাই বলে। জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত বিএনপি। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়ায় তারা পাকিস্তানের সহযোগিতা কতটুকু পেয়েছে জানি না তবে সহমর্মিতা পেয়েছে। পাকিস্তান প্রতিবাদ করেছে, বিচার প্রক্রিয়াকে অন্যায় বলে জাহির করেছে, এমনকি তাদের ছেড়ে দেওয়ার জন্যও বলেছে। তাদের পার্লামেন্টেও এ বিষয়ে কথা হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই বলা যায় নির্বাচন পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে ওই পক্ষ থেকে সহযোগিতা পেতে পারে। আমরা কখনো এই ষড়যন্ত্রকারীদের পক্ষ নিতে পারি না। দেশের স্বার্থ ক্ষুণ্ন হবে এমন বিষয়কে হালকা করে দেখার কোনো সুযোগ নেই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত