প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ফিলিস্তিনকে স্বাধীন করতে আরো সহযোগিতা চাইলেন শায়েখ মোহাম্মদ

আমিন মুনশি : মুসলমানদের পবিত্র স্থান আল-আকসা মসজিদ রক্ষায় জেরুজালেম স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত আমৃত্যু সংগ্রাম চালিয়ে যাবেন ফিলিস্তিনিরা। এক্ষেত্রে ফিলিস্তিনিদের অধিকার রক্ষায় সবার সহযোগিতা চাইলেন ঢাকা সফররত ফিলিস্তিনের গ্র্যান্ড মুফতি শায়েখ মোহাম্মদ আহমাদ হোসেইন।

শনিবার গুলশানের একটি হোটেলে ‘আল-আকসা মুসলিম উম্মাহর হৃদয় এবং জেরুজালেম ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের চিরন্তন রাজধানী’ শীর্ষক এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, ফিলিস্তিনে যেসব ঐতিহাসিক স্থাপনা ও মূল্যবোধ রয়েছে, এগুলো আমরা আঁকড়ে ধরে রেখেছি। আল-আকসা ইসলামের সভ্যতাকে ধারণ করে বলে ফিলিস্তিনের সন্তানরা জীবন বাজি রেখে তা রক্ষার জন্য সংগ্রাম করছে।আমরা ফিলিস্তিনিরা আমাদের বৈধ অধিকার এবং চাওয়া-পাওয়া থেকে কোনো দিনই সরবো না, আমৃত্যু আমাদের সংগ্রাম চালিয়ে যাব।

 গত বছর জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণা করায় ‍যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনা করেন আল-আকসা মসজিদের গ্র্যান্ড মুফতি মোহাম্মদ আহমাদ হোসেইন। তিনি বলেন, এক বছর আগে ট্রাম্প এই পবিত্র আল-আকসা ইসরায়েলকে দান করার কথা বলেছেন, যা কোনোভাবেই আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণা করা এক প্রকার শত্রুতা। এই শত্রুতার আচরণ ফিলিস্তিনের প্রতি, আরব বিশ্বের প্রতি, এমনকি মুসলিম উম্মাহর প্রতি।

সেমিনারে প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী বলেন, আমরা সব সময় সকল অবিচার, অন্যায়, সংঘাত ও ধ্বংসের বিরুদ্ধে। ফিলিস্তিনি জনগণ আজকে যে ধরনের নির্মমতার শিকার হচ্ছেন, তা বিশ্বের সব মুসলিমসহ সকল মানুষের জন্য কষ্টের কারণ। নির্মমতার শিকার মানুষদের সহযোগিতায় আমরা সব সময় সচেষ্ট। বাংলাদেশ সফরের জন্য গ্র্যান্ড মুফতি শায়েখ মোহাম্মদ আহমাদ হোসেইনকে ধন্যবাদ জানান গওহর রিজভী।

বাংলাদেশে ফিলিস্তিন দূতাবাস ও ইউনাইটেড মুসলিম উম্মাহ ফাউন্ডেশন যৌথভাবে এ সেমিনারের আয়োজন করে।ঢাকাস্থ ফিলিস্তিন দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত ইউসুফ এস ওয়াই রামাদান দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান থেকে শুরু করে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের নাগরিকদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় নায্য দাবি সব সময় তুলে ধরেছেন। এ জন্য বাংলাদেশের কাছে কৃতজ্ঞতা স্বীকার করেন এ রাষ্ট্রদূত। তিনি ফিলিস্তিনের রক্তপাতের ভয়াবহতা তুলে ধরে নিজেদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায়কে পাশে চান।

অনুষ্ঠানে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম ও খতিব (ভারপ্রাপ্ত) মুফতি মহিবুল্লাহ আল বাকী আন নদভীসহ বিদেশি কয়েকটি দূতাবাসের কর্মকর্তারা অংশ নেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত