প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করা উচিত হবে না : ডা.জাফরুল্লাহ

সৌরভ নূর : গণস্ব্যাস্থ কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা.জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, আমার মনে হয় ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করা কখনোই উচিত হবে না। এবং আমার যদি ক্ষমতা থাকতো, যে কোনো ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের রাজনীতিতে অংশ নেয়া নিষিদ্ধ করতাম। তিনি আরও মনে করেন, জামায়াতে ইসলামীর উচিত তাদের কৃতকর্মের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা। তারা যদি ক্ষমা না চায় তাদের ভোট দেয়া উচিত হবে না।  বৃহশপ্রতিবার(২০,১২,১৮) রাতে নাগরিক টেলিভিশনের টক’শো অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে যেহেতু দূর্নীতির অভিযোগ এসেছে, অবশ্যই তার বিচার হওয়া দরকার। কিন্তু তিনি সুষ্ঠু বিচার পাচ্ছেন না। তাকে জামিন দেয়া হচ্ছে না। অথচ জামিন পাওয়া তার অধিকার। প্রত্যেক নাগরিকেরই জামিন পাওয়ার আইনি অধিকার রয়েছে। তাকেও জামিন দেয়া উচিত। বিচার বিভাগের ওপর হস্তক্ষেপে বিচার ও আইন বিভাগের স্বাধীনতাকে ইতিমধ্যে খর্ব করা হয়েছে।

অন্যদিকে খুন, গুম ও বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের ফলে মানুষ আইন ও নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর আস্থা হরিয়ে ফেলেছে। সম্প্রতি মাদক ও জঙ্গিবাদ দমনের নামে যে বিচারবহির্ভূত হত্যাকা- ঘটানো হয়েছে। সেটা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। অভিযুক্তদের অবশ্যই নিয়মমাফিক বিচারের মুখোমুখি করা আইনগতভাবে উচিত ছিলো। এই জিরো টলারেন্সের নামে হত্যা আর পুলিশের ঘুষ বাণিজ্যের সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। এর আগে বিএনপিও যে ‘অপারেশন ক্লিনর্হাট’ পরিচালনার নামে ক্রসফায়ার করেছিলো, সেটাও আইনের পরিপন্থি ছিলো।

নির্বাচন কমিশনের ওপর অনাস্থা পোষণ করে বলেন, এরা চোখ থাকতে অন্ধ, কান থাকতে বধির। তফসিল ঘোষণার পর অন্তত দশ জন প্রার্থীকে জেলে পাঠানো হয়েছে। ড. কামাল হোসেনসহ সারাদেশে ৩০ জনেরও বেশি নেতা নির্বাচনী প্রচারণাকালে হামলার শিকার হয়েছেন। তারপরেও কমিশন কিছুই দেখতে পাচ্ছে না। এই হলো লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের অবস্থা। এখন জনগণ সেনাবাহিনী নামার অপেক্ষায় রয়েছে।

ডা. জাফরউল্লাহ এসব হামলা-মামলার অবসান চেয়ে বলেন, ঐক্যফ্রন্ট ক্ষমতাই গেলে, আমরা হামলা-মামলার সংস্কৃতি থেকে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতিকে ফিরিয়ে আনতে সর্বাত্মক চেষ্টা রাখবো এবং সহিংসতা বন্ধে সোচ্চার থাকবো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত