প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে অগণতান্ত্রিক আচরণের বিস্তার ঘটে : শারমিন মুরশিদ

মঈন মোশাররফ : ব্রতীর নির্বাহী প্রধান শারমিন মুরশিদ বলেন, ৩০শে ডিসেম্বরের নির্বাচন অনেক দিকে থেকে লক্ষণীয়। কারণ নির্বাচিত সরকারের অধীনে নির্বাচন। আমরা দেখেছি যখন রাজনৈতিক সরকারের অধীনে নির্বাচন হয়েছে তখন অস্থিতিশীল পরিবেশে নির্বাচন হয়েছে। আমরা ৯৬ সালের মাগুরার নির্বাচন এবং ২০১৪ সালের নির্বাচন দেখেছি তখন দেখেছি, কিভাবে অগণতান্ত্রিক পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবার বিবিসি নিউজে তিনি এসব কথা বলে।

তিনি বলেন, সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে সব পার্লামেন্ট কেবিনেট থেকে যায় ফলে প্রভাব বিস্তার করতে পারে। তিনি বলেন, বর্তমানে প্রচার মাধ্যম থেকে শুরু করে সকল জায়গায় কী বিরোধী দল স্পেস পাচ্ছে? নির্বাচিত সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে পক্ষপাতিত্ব থাকবেই। যেখানে পক্ষপাতিত্ব থাকবে সেখানে কখনো গণতন্ত্র থাকতে পারে না।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে নির্বাচনের অভিজ্ঞতায় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। যে রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছে তারা যদি মনে করে নির্বাচন কমিশন ভালো না তখণ অস্থিতিশীর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। সুনির্দিষ্ট তথ্য উপাত্ত দিয়ে বিরোধীদল যদি অভিযোগ করে আর কমিশন যদি বলে সত্য নয় তখন কেমন লাগে। তাদের দায়িত্ব অভিযোগ তদন্ত করা এবং উপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়া। র্দুভাগ্যজনক হলেও সত্য নির্বাচন কমিশনের ভিতরে দ্বন্দ্বের বহিপ্রকাশ ঘটেছে। এধরনের অবস্থা আমরা প্রথমবার দেখলাম।

তিনি জানান, নির্বাচনের পূর্বে প্রশাসনিক কর্মকর্তা এবং পুলিশ অফিসারদের রদবদল করা হয়েছে। প্রচার অভিযানে সহিংসতার পর কমিশনের বিরুদ্ধে যে নিস্ক্রীয়তার অভিযোগ উঠেছে তা খন্ডনের চেষ্টা মাত্র। নির্বাচন কমিশন অনেক সমালোচনার শিকার হয়েছে। প্রচার অভিাযানে অনেক নিয়ম ভাঙ্গা হয়েছে । সব মিলিয়ে নির্বাচন কমিশন পদক্ষেপ নিয়েছে। এটা আমরা ইতিবাচক হিসাবে দেখছি। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের এমন কিছু দৃশ্যমান অ্যাকশন আরোআগে নেওয়া উচিত ছিলো। কারণ আর মাত্র ৮ দিন বাকি নির্বাচনের। নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বশীল ভূমিকার উপর নির্ভর করছে নির্বাচনের ভবিষ্যত।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত