প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাংলাদেশে বিরোধীদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে: জাতিসংঘ

রবিন আকরাম : বিরোধীদলীয় নেতাকর্মী ও ভিন্ন মতাবলম্বীদের গ্রেপ্তার ও ভীতি প্রদর্শন করছে নিরাপত্তা রক্ষাকারীরা। বিরোধী দলগুলোর সদস্য ও সমর্থকদের গ্রেপ্তার, হত্যা, গুম করা হয়েছে। এসব ঘটনায় ক্ষমতাসীন দলের সমর্থকরা জড়িত বলে উদ্বেগ (এলার্মড) প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষজ্ঞরা।

শুক্রবার মানবাধিকারের বিভিন্ন ক্ষেত্রে দায়িত্ব পালনকারী জাতিসংঘের কমপক্ষে ৮ জন স্পেশাল র‌্যাপোর্টিউর এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

মতপ্রকাশের স্বাধীনতার ওপর ক্রমবর্ধমান বিধিনিষেধ, নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সহিংসতা ও ধর্মীয় উগ্রবাদের উত্থান সব মিলে বাংলাদেশে সৃষ্টি হয়েছে এক আতঙ্কের পরিবেশ। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষকে জরুরিভিত্তিতে নজর দেয়া উচিত বলে মনে করছেন জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা।

নির্বাচন কমিশনের মতপ্রকাশ প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে একজন নির্বাচন কমিশনার পর্যন্ত মতপ্রকাশ করেছেন যে, এই নির্বাচনে কোনো লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বা সবার জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি করা হয়েছে বলে তিনি বিশ্বাস করেন না। তাই এই উত্তাল সময়ে সব মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকারকে জরুরি পদক্ষেপ নিতে হবে। অতীব প্রয়োজনীয় জনসাধারণের বিতর্কের জন্য একটি উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করতেও একই রকম পদক্ষেপ নিতে হবে।

বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীতের ওপর হামলা বিশেষ করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা, বিরোধীদলীয় নেতা ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের গাড়িবহরে হামলা হয় ১৪ই ডিসেম্বর। এতে কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছেন বলে খবর বেরিয়েছে। ওই হামলার বিষয়ে জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা বিশেষ করে জোর দিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। ২০১৮ সালের ৯ থেকে ১২ই ডিসেম্বরের মধ্যে ৪৭টি সহিংস ঘটনা ঘটেছে। এতে কমপক্ষে ৮ জন নিহত ও ৫৬০ জন আহত হয়েছেন বলে রিপোর্ট পাওয়া গেছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহ একসঙ্গে মিলে গুরুত্বর উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে অবাধ ও সুষ্ঠু পরিবেশে নির্বাচন হতে পারবে কিনা তা নিয়ে। তাই আমরা কর্তৃপক্ষকে জরুরিভিত্তিতে সহিংসতার জোয়ার বন্ধ করতে, মানবাধিকারের প্রতি ও অবাধ-সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রতি প্রতিশ্রুতি মেনে চলার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত