প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজনৈতিক ছাড়ে বিপর্যস্ত ব্যাংকিং খাত

যুগান্তর : রাজনৈতিক বিবেচনায় ব্যাংকিং খাতে বড় বড় গ্রাহককে ছাড় দেয়ার হিড়িক পড়েছে। আসন্ন সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে মনোনয়নপত্র দাখিলের আগ পর্যন্ত এক পক্ষ বিশেষ ছাড়ের আওতায় খেলাপি ঋণ নবায়ন করেছেন।

খেলাপি ঋণের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় ব্যাংকিং খাতের ওপর একদিকে দেশীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। অন্যদিকে বেড়ে যাচ্ছে ব্যবসার ব্যয়। এ কারণে রাজনৈতিকভাবেও সরকার চাপে পড়ছে। এই চাপ এড়াতে এখন খেলাপি ঋণ কমানোর জন্য ব্যাপক ছাড় দেয়া হচ্ছে। ফলে ঋণের বিপরীতে ব্যাংকগুলোর আয় কমে যাচ্ছে। এতে ব্যাংকগুলোর ভিত্তি দুর্বল হয়ে পড়ছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে কোনো জমা ছাড়াই কিস্তির ১ শতাংশ অর্থ নিয়ে ঋণ নবায়ন করা হচ্ছে।

গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল প্রায় ১ লাখ কোটি টাকা, যা মোট ঋণের সাড়ে ১১ শতাংশ। আগামী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এই হার ১০ শতাংশের নিচে বা ৯ শতাংশের মধ্যে নামাতে হবে। এ হিসাবে খেলাপি ঋণ কমাতে হবে প্রায় ৯ থেকে ১০ হাজার কোটি টাকা। এটা সম্ভব হলে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ৯০ হাজার কোটি টাকার নিচে নেমে আসবে।

চলতি বছরের ব্যাংকিং কার্যদিবস আছে মাত্র ৫ দিন। আগামী রোববার থেকে বৃহস্পতিবার। এরপর থেকে সাপ্তাহিক ছুটি, নির্বাচনের ছুটি ও ব্যাংক হলিডে মিলে বছর শেষ হয়ে যাবে। ফলে ব্যাংকগুলোকে ওই ৫ দিনেই খেলাপি ঋণ কমাতে হবে। তবে ব্যাংকগুলো খেলাপি ঋণের হিসাব কেন্দ্রীয় ব্যাংকে জমা দেয়ার জন্য জানুয়ারি মাস পর্যন্ত সময় পাবে। সে ক্ষেত্রে তারা ওই সময়ে খেলাপি ঋণ নবায়ন করে কমাতে পারবে। সেগুলো ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যেই নবায়ন হয়েছে বলে দেখাতে হবে। এই উদ্যোগের অংশ হিসেবে ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণ নবায়নের আবেদন জমার হিড়িক পড়েছে। গত বুধ ও বৃহস্পতিবার সোনালী ব্যাংকে ২৫টি আবেদন জমা পড়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- দেশমা সুজ, সোনালী পেপার, ফেয়ার ওয়ে, ফেয়ার ফ্যাশন।

এছাড়া বিভিন্ন ব্যাংকে আনন্দ শিপইয়ার্ড, ইব্রাহিম কম্পোজিট টেক্সটাইল, এমএম ট্রেডার্স, ফ্রেন্ডস অ্যান্ড ফ্যাশন, সাকুরা স্টিল, এনআর ট্রেডিং, শিল্পী কনস্ট্রাকশন, ফ্যাশন এফএক্স, সাইয়েন ফি গার্মেন্টস, মরিয়ম স্পিনিং, বিছমিল্লাহ এন্টারপ্রাইজ, ডায়ানা গার্মেন্টস, ডায়ানা ফ্যাশন, এইচআরসি সিন্ডিকেট, এনআর ট্রেডিং, নোমান ফ্যাশন। এসব প্রতিষ্ঠান তাদের আবেদনে দাবি করেছে, ব্যবসায়িক মন্দার কারণে নিয়মিত ঋণ শোধ করতে পারেনি। এ কারণে তারা নবায়নের আবেদন করেছে। এক্ষেত্রে কিস্তির ১ শতাংশ বা কোনো কোনো গ্র“প কিস্তি ছাড়াই ঋণ নবায়নের আবেদন করেছে।

এ বিষয়ে ব্যাংকাররা জানান, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা রয়েছে খেলাপি ঋণের হার কমানোর। এ কারণে ব্যাংকগুলো বাধ্য হয়ে এই হার কমাতে ঋণ নবায়ন করবে। এক্ষেত্রে গ্রাহকদের কাছ থেকে যা আদায় করা যায় তাই নিয়েই নবায়ন করে দেবে। এক্ষেত্রে যারা যৌক্তিক কারণে খেলাপি তাদের ঋণ নবায়নে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। এদিকে কৃষি খাতের খেলাপি ঋণের হার কমাতে ১৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে একটি সার্কুলার জারি করে বলা হয়েছে, এ খাতের খেলাপি ঋণ নবায়নে বিশেষ ছাড় দিতে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে ডাউন পেমেন্ট ছাড়াই নবায়ন করা হবে। গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কৃষি খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ৭ হাজার ২৩০ কোটি টাকা। এই ঋণের বেশির ভাগই এ খাতের বড় খেলাপিদের। অর্থাৎ যেসব প্রতিষ্ঠান কৃষি ঋণ নিয়ে খেলাপি হয়েছে তাদের। কৃষকদের খেলাপি ঋণের পরিমাণ খুবই কম। এছাড়া এই ধরনের সুযোগ দেয়া হয় যখন কোনো বন্যা বা প্রাকৃতিক দুর্যোগে কৃষির ক্ষতি হয় তখন। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে তেমন কিছুই হয়নি। উল্টো বাম্পার ফলন হচ্ছে। তারপরও কৃষকদের খেলাপি ঋণ নবায়নে বিশেষ ছাড় দেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, মূলত কৃষি খাতের বড় খেলাপিদের ঋণ নবায়ন করে খেলাপি ঋণের হার কমানোর জন্যই এই ছাড় দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, খেলাপি ঋণ নবায়নের প্রচলিত নিয়ম মেনেই ব্যাংকগুলো নবায়ন করছে। কাকে কি ছাড় দেবে সেটি ব্যাংক গ্রাহক নির্ধারণ করবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক চায় খেলাপি ঋণের হার কমুক।

সূত্র জানায়, নীতিমালা অনুসারে প্রথমবার খেলাপি ঋণ নবায়নে বকেয়া কিস্তির ১৫ শতাংশ বা মোট বকেয়ার ১০ শতাংশের মধ্যে যেটি কম সেটি, দ্বিতীয় দফায় নবায়নের ক্ষেত্রে বকেয়া কিস্তির ৩০ শতাংশ বা মোট বকেয়ার ২০ শতাংশের মধ্যে যেটি কম সেটি এবং তৃতীয় দফায় বকেয়া কিস্তির ৫০ শতাংশ বা মোট বকেয়ার ৩০ শতাংশের মধ্যে যেটি কম সেই পরিমাণ অর্থ নগদ পরিশোধ করতে হয়। এর বাইরে কেন্দ্রীয় ব্যাংক একটি সার্কুলার দিয়ে বলেছে, বিশেষ ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলো ব্যাংক গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে খেলাপি ঋণ নবায়ন করতে পারবে। এক্ষেত্রে নগদ জমার পরিমাণও ব্যাংক গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে নিরূপিত হবে। এর আলোকে ব্যাংকগুলো এখন খেলাপি ঋণ নবায়ন করছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত