প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অবহেলিত দিনাজপুর-৬ আসনে বিএনপি টিকে আছে জামায়াতের হাতধরে

মঈন মোশাররফ : ছোট ছোট চারটি উপজেলা নিয়ে গঠিত দিনাজপুর-৬ আসন। এই আসনে মানুষের মূল পেশা হচ্ছে কৃষি ও ক্ষুদ্র ব্যবসা। ২০০৮ সালের নির্বাচনে মাত্র ৮৫৮ ভোটের ব্যবধানে জয় পরাজয় নির্ধারণ হয়েছে। মূল প্রতিদ¦ন্দি¦তা ছিলো আওয়ামী লীগ ও জামায়াতের মধ্যে। আগামী নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী জামায়াতের আনোয়ারুল ইসলাম এবং আওয়ামী লীগ প্রার্থী শিবলি সাদিক। এই আসনে বিএনপি কখনো শক্তিশালী ছিলো না। বিএনপি কখনো এখানে ভোটে টিকে থাকতে পারে নাই। জামায়াতের হাত ধরে টিকে আছে। স্থানীয় বিএনপি নেতা সাবেক পৌর মেয়র বলেছেন, জামায়াতের ভোট আমাদের জন্য প্লাস পয়েন্ট। আমরা জয় পরাজয় নিয়ে চিন্তা করছি না। নির্বাচন সুষ্ঠু হবেকিনা এটা হচ্ছে প্রধান বিষয়। তার কথায় বুঝাগেল জামায়াতের ভোট আর বিএনপির ভোট মিলে তারা বিজয়ের ব্যাপারে নিশ্চিত।

হাকিমপুর, ঘোরাঘাট, নবাবগঞ্জ, বিরামপুর এই চারটি ছোট ছোট উপজেলা নিয়ে এই আসন। এখানের মূল পেশা কৃষি কিন্তু হিলি স্থলবন্দর তাদের আয় রোজগারের পথ হতে পারতো। অবকাঠামোর উন্নয়ন নেই কলকারখানা নেই। এগুলো নিয়ে সাধারনণ জনগণ চিন্তিত। এই বন্দর থেকে মাত্র ত্রিশ গজ দূরে সীমান্ত। জনগণের দাবি বন্দরে আরো পণ্য আসুক। এখানকার কুলি শ্রমিকরা বেকার বসে আছে। একজন বললেন, হিলি বন্দরে রেল স্টেশন আছে কিন্তু মাস্টার নেই। হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নেই। একটি এ্যাম্বুলেন্স আছে কিন্তু নষ্ট। হাসপাতালে ডাক্তার থাকে না। এখানকার সাধারণ জনগণ কর্মসংস্থান চায়। সাধারণ জনগণ বলেন, যে আমাদের কর্মসংস্থান দেবে তাদেরকে ভোট দেবো। এই এলাকায় দৃশ্যমান কোনো উন্নয়ন হয়নি।

করতোয়া নদীর পারের এই আসনে কোনো উন্নয়ন হয়নি। কিন্তু নানাভাবে এই এলাকার উন্নয়ন সম্ভব। এখানে ভোটের চিত্র ভিন্ন। আওয়ামী লীগ অন্ত কোন্দলে আছে এবং এখানে বিগত বছর কোন উন্নযন হয়নি তা দৃশ্য মান জনগণের কাছে। আওয়ামী লীগকে নির্বাচনে বিজয়ী হতে হলে জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে। সূত্র বিবিসি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত