প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে ভোটের মাঠে ত্রিমুখী লড়াই

তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ৬টি আসনে সবচেয়ে বেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে। এই আসনে বিভিন্ন দলের ১৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। বর্তমানে আসনটিতে জাপার এমপি জিয়াউল হক মৃধা থাকলেও মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে তার জামাতা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৩ আসনের বাসিন্দা রেজাউল ইসলাম ভূইয়াকে। এতে একদিকে ভোটাররা মিলাতে পারছেন না ভোটের সমীকরণ। তেমনি ভোটের মাঠে বেড়েছে উত্তাপ। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ মহাজোট গঠন করার পর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী কেন্দ্রীয় জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা এ আসনে জয় লাভ করেন। এই আসনে মোট ভোটার সংখ্যা প্রায় ৩ লাখ ৩৫ হাজার ৪০২ জন। পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৭২ হাজার ৫৭৫ জন। নারী ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৬২ হাজার ৮২৭ জন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে প্রতীকপ্রাপ্ত প্রার্থীরা হলেন- বিএনপির উকিল আব্দুস সাত্তার ভূইয়া (ধানের শী), স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা এমপি (সিংহ), জাপা’র রেজাউল ইসলাম ভূইয়া (লাঙ্গল), জহিরুল ইসলাম জুয়েল (গোলাপ ফুল), ঈসা খান (কাস্তে), মহিউদ্দিন মোল্লা (মোমবাতি), জাকির হোসেন (হাতপাখা), জামিলুল হক বকুল (বাইসাইকেল), জুনায়েদ আল হাবীব (খেঁজুর গাছ), শাহ্ মফিজ (উদীয়মান সূর্য), মোখলেছুর রহমান (মোটর গাড়ি), গিয়াস উদ্দিন (ডাব) এবং ও মঈন উদ্দিন মঈন (কলারছড়ি)।

এদের মধ্যে বিভিন্ন অবস্থানগত ও রাজনৈতিক কারণে তিন প্রার্থী ভোটে প্রভাব ফেলবেন। তারা হলেন, বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আব্দুস ছাত্তার ভূইয়া, স্বতন্ত প্রার্থী সিংহ মার্কা জিয়াউল হক মৃধা, স্বতন্ত প্রার্থী কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঈন উদ্দিন মঈন কলার ছড়ি মার্কা।

এই আসনটিতে নির্বাচিত দুইবারের এমপি জিয়াউল হক মৃধা সততা ও পরিচ্ছন্ন রাজনীতির কারণে এলাকায় বেশ জনপ্রিয়। তার নিজ উপজেলা সরাইলে পাশাপাশি আশুগঞ্জ উপজেলা বিভিন্ন গ্রামে তার অনুসারি রয়েছে।

এদিকে একই উপজেলা বিএনপির প্রার্থী আব্দুস ছাত্তার ভূইয়া। শক্ত অবস্থায় থাকায় এই আসনটিতে তিনি একাধিক বার নির্বাচিত হয়েছেন।

অন্যদিকে সরকার দলীয় রাজনীতিতে যুক্ত থাকায় এই আসনটিতে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঈন উদ্দিন মঈন। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়েও বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করলেও স্থানীয় নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন চেয়ারম্যানরা তার পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। এছাড়াও বিভিন্ন ইসলামী সমমনা দলের প্রার্থীসহ ১০ জন ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। ফলে এখানে তুমুল ভোট যুদ্ধ দেখছেন বিশ্লেষকরা। সব জটিল সমীকরণ পাশ কাটিয়ে আগামী ৩০ ডিসেম্বর জনগণের ব্যালটই বলে দেবে কে হবে এই আসনের অভিভাবক।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত