প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্বাচন কমিশন দু’ভাগে বিভক্ত হয়েছে : সামসুদ্দোহা

আমিরুল ইসলাম : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচন কমিশন দুইভাগে বিভক্ত হয়েছে বলে মনে করেন প্রবীণ রাজনীতিবিদ, সাবেক সংসদ সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা সামসুদ্দোহা।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন একটি সাংবিধানিক সংস্থা। সাংবিধানিক সংস্থায় দ্বিমত ভিতরে ভিতরে থাকতেই পারে। সেখানে মেজরিটি মাইনোরিটি যদি হয় তাহলে মেজরিটি যে সিদ্ধান্ত নেয় সেটাই মেনে নিতে হবে এটাই গণতান্ত্রিক রেওয়াজ। সাধারণত এগুলো বাইরে প্রকাশ করা হয় না। কারণ প্রত্যেকটি দলের সভাতেই দ্বিমত দেখা দেয়। নির্বাচন কমিশনেরও নিজস্ব বিধি-বিধান আছে। নির্বাচন কমিশনের একজন বলছেন, নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই। নির্বাচন কমিশনের দ্বিমত বাইরে প্রকাশ করে যে পরিস্থিতির সৃষ্টি করা হয়েছে, সেখান থেকেই অনুধাবন করা যায় কী রকম পরিস্থিতিতে নির্বাচন হতে যাচ্ছে। তারপরও নির্বাচন হোক, মানুষের ভোট হোক। আমরা দুর্ভাগা জাতি। এদেশে হত্যাকান্ড, খুনাখুনি এগুলোর মধ্যেই দেশ এগুচ্ছে।

সম ক্রীড়া ভূমি এই টার্মটা আমি বুঝিনা। খেলার মাঠেও কিছু খানাখন্দ থাকে। সেটা ক্রিকেট প্লেয়াররা নিজ হাতে ঠিক করে বা সরিয়ে নিয়ে মাঠকে সুন্দর করে নেয়। এটা নিজেদেরই করে নিতে হয়। বাইরে থেকে কেউ এসে মাঠকে সুন্দর করে দিবে না। জনগণ তার ভোট প্রয়োগের মাধ্যমেই রায় দেবেন।

পঁচিশ জন জামায়াতের প্রার্থী। স্বনামেই মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিলো জামায়াতে ইসলামী ও মুসলিম লীগ। তারা কী করে একটি স্বাধীন দেশে ঐনামেই রাজনীতি করার সুযোগ পায়? এটা ন্যায়সঙ্গত, আইনসঙ্গত এবং যুক্তিসঙ্গত হবে তাদেরকে নিষিদ্ধ করা। ইলেকশন করার সময় মনোনয়নপত্রে কোন দল থেকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন সেটা লিখতে হয়। জামায়াত দলের নাম কী দিয়েছে? যদি নাম দেয় তাহলে কী করে তাদের মনোনয়ন গ্রহণযোগ্য হয়। বিএনপির প্রতীক নিয়েছে জামায়াতে ইসলামী। তারা যদি জামায়াত পরিচয় দিয়ে থাকে, যেহেতু নিবন্ধিত দল না সেহেতু তাদের প্রার্থিতা সাথে সাথে বাতিল হওয়ার কথা। আমার মনে হয় হাইকোর্ট তাদের প্রার্থিতা বাতিল করলে এটা পুরোপুরি সঠিক সিদ্ধান্ত হবে। জামায়াত পরিচয়ের মাধ্যমে যেটা নিবন্ধিত দল না সেটার প্রার্থীকে কি করে গ্রহণ করলো নির্বাচন কমিশন?

নির্বাচন হবে। সকল রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। সবাই ভোট চাওয়ার জন্য সাধারণ মানুষের কাছে যাবেন। সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক ধারায় জয়লাভ করে দেশ শাসন করবে এটাই আমি চাই। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোনো রকম বিশৃঙ্খলা দেশে ঘটুক এটা আমি চাই না বলে জানিয়েছেন এই সাবেক আইনপ্রণেতা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত