প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আকাঙ্ক্ষা : বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
আর একবার সুযোগ দিন : শেখ হাসিনা

সালেহ্ বিপ্লব : ব্যক্তিগত কোন চাওয়া পাওয়া না থাকলেও সরকারে থেকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করতে চান আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। তাই আর একবার সরকার গঠনের সুযোগ দিতে দেশবাসীর কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি। দুপুরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এফবিসিসিআই আয়োজিত ব্যবসায়ী সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী বলেন,জনগণ যাকে চাইবে, সেই ক্ষমতায় আসবে। আমরা মানুষের ভোট দেয়ার জন্য শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নিশ্চিত করতে চাই।

শান্তি ও সমৃদ্ধির পথে বাংলাদেশ এই স্লোগান নিয়ে দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই এই সম্মেলনের আয়োজন করে। এরই মধ্যে এফবিসিসিআই বলে দিয়েছে, এই নির্বাচনে তারা নৌকার পক্ষে রয়েছেন। আর সেই সমর্থন জানাতেই এই সম্মেলন ডাকা হয়, যেখানে প্রধানমন্ত্রী ছিলেন প্রধান অতিথি।

দেশবাসীর উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, ৩০ তারিখ নির্বাচন। একটু সহযোগিতা চাই। জনগণ যাকে ভোট দেবে, সে ক্ষমতায় আসবে। মানুষ ভোট দিলে ক্ষমতায় আসবো, মানুষ না চাইলে আসবো না। সেটা কোন সমস্যা নয়, আমাদের চাওয়া মানুষ যাতে শান্তিতে ভোট দিতে পারে। পছন্দমতো সরকার গঠন করতে পারে। দেশ শান্তিপূর্ণ থাকলে দেশ দ্রুত এগিয়ে যাবে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, আমরা যাতে মেগাপ্রকল্পগুলো শেষ করতে পারি, ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ বজায় রাখতে পারি সে জন্য আপনাদের কাছে ভোট চাই। আমরা যাতে অর্থনীতি ও কৃষির উন্নয়ন করতে পারি, বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান বাড়াতে পারি, খাদ্যনিরাপত্তা নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারি সেজন্য আপনাদের সমর্থন চাইবো।

৩০ ডিসেম্বর নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, এই সুযোগটা আমি চাই। এই ঐতিহাসিক উৎসব উদযাপন করতে দেশবাসীকে বলছি, আর একবার সুযোগ দিন। যাতে চলমান উন্নয়ন প্রকল্পগুলোও শেষ করতে পারি।

সম্মেলনে আওয়ামী লীগ সভাপতির উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বর্ষীয়ান ব্যবসায়ী নেতা মাহবুবুর রহমান, সালমান এফ রহমান, রোকেয়া আফজাল হোসেন, মীর নাসির হোসেন, আব্দুল মুক্তাদিরসহ অন্য ব্যবসায়ী নেতারা বলেছেন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে আওয়ামী লীগকে আবারো ক্ষমতায় আনতে হবে। তারা বলেন, গত দশ বছরে আওয়ামী লীগ দেশে ব্যবসা ও বিনিয়োগের অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। উন্নয়নের মহাযজ্ঞ শুরু হয়েছে শেখ হাসিনার বিচক্ষণ নেতৃত্বে। এই অগ্রযাত্রা ধরে রাখতে হলে শেখ হাসিনাকে আবার দেশ পরিচালনার দায়িত্ব দিতে হবে।

এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, আমরা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার সমর্থন করেছি। কারণ একমাত্র এই দলটি ইশতেহারের ব্যাপারে আমাদের সাথে কথা বলেছে, পরামর্শ নিয়েছে। আর গত দশ বছরে দেশে অবকাঠামোসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে যে উন্নয়ন হয়েছে, তার সম্ভব হয়েছে শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ ও সময়োপযোগী নেতৃত্বের জন্য।

শেখ হাসিনা বলেন, পদ্মা সেতুসহ অনেকগুলো মেগাপ্রকল্পের বাস্তবায়ন চলছে। দুর্নীতির অভিযোগ এনে এই পদ্মাসেতু প্রকল্প বানচালের চেষ্টা করা হয়েছিলো, কিন্তু তারা সফল হতে পারেনি। আমি দুর্নীতি করে ভাগ্য গড়তে আসিনি, এসেছি জনগণের ভাগ্য গড়তে। বঙ্গবন্ধু দেশের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন, আমরা এই দেশকে সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলবো। বাংলাদেশ হবে এই অঞ্চলের সুইজারল্যান্ড, পূর্ব-পশ্চিমের সেতুবন্ধন। আর তা করতে হলে আমাদের শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হবে। প্রতিবেশির সাথে সুসম্পর্ক রাখতে হবে। অবকাঠামোগত উন্নয়ন করতে হবে। সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স বজায় রাখার কথাও ঘোষণা করেন শেখ হাসিনা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত