প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মানিকগঞ্জ-২ আসন
হামলা-মামলা ভাঙচুর ও গ্রেফতার আতঙ্কে বিরোধী জোট, প্রচারে ব্যস্ত আ.লীগ

সিরাজুল ইসলাম, সিংগাইর : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন মানিকগঞ্জ-২ (সিংগাইর-হরিরামপুর-সদরের আংশিক) আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। অন্যদিকে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ইঞ্জিঃ মঈনুল ইসলাম খান শান্ত তিনি তার নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রচারণা চালাতে গিয়ে হচ্ছেন হামলা-মামলার শিকার। প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে চলমান নির্বাচনী প্রচারণাকালে পরপর কয়েকটি হামলায় তার সমর্থকদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। পাশাপাশি দুটি সাজানো মামলায় বাড়ি থেকে পালিয়ে গ্রেফতার আতঙ্ক নিয়েই ধানের শীষের নেতাকর্মীরা মাঠে কাজ করছেন।

এসব হামলা-মামলার ঘটনায় ধানের শীষ প্রতীকের জেলা নির্বাচন মনিটরিং সেলের সদস্য অ্যাডভোকেট তোফাজ্জল হাসেন ইলেকশন ইনকোয়ারি অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। সেইসাথে সংশ্লিষ্ট দফতরে অনুলিপি প্রেরণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ি প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই বিএনপিসহ প্রতিদ্বন্দ্বী অন্য প্রার্থীর নেতা-কর্মীদের ওপর চলছে নৌকার প্রার্থী মমতাজ সমর্থকদের হামলা। যেখানেই প্রচারণা সেখানেই বাধা। পোস্টার ছেড়া,গাড়ী ভাঙ্চুরসহ মারধরের শিকার হচ্ছেন প্রতিদ্বন্দ্বী অন্যান্য প্রার্থীর লোকজন। গত ১৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যার দিকে সিংগাইর সদরের থানা রোডে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের হামলার শিকার হন বিএনপি প্রার্থী মঈনুল ইসলাম খান শান্তসহ তার নেতাকর্মীরা।

এ সময় তার গাড়ী ও কয়েকটি মোটর সাইকেল ভাঙ্চুর করা হয়। সেই সাথে আহত হয় ১০/১২ জন।এ ঘটনায় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাদের নির্বাচনী অফিস ভাঙ্চুর ও মুক্তিযোদ্ধা অফিসে অগ্নিসংযোগের অভিযোগ এনে ধানের শীষ সমর্থিত ৭০ জনের বিরূদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। ১৩ ডিসেম্বর সকাল ১১ টার দিকে বায়রা এলাকায় পোস্টার লাগানোর সময় রঞ্জু ও রৌদ্রকে মারধর করে নৌকা প্রতীকের কর্মীরা। একইদিন নির্বাচনী প্রচারনাকালে বেলা ৩ টার দিকে বিএনপি কর্মী রাকিব,মহিদুর ও রফিকুলকে মারধর করে বায়রা ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান দেওয়ান মনিরুজ্জামান হিরুর নেতৃত্বে তার সহযোগীরা। ওইদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৫ টার দিকে জয়মন্টপের কিটিংচরে ধানের শীষের নির্বাচনী প্রচারনাকালে ব্যবহিত দুটি মাইক ও অটোরিকশা ভাঙ্চুর করে পার্শ্ববর্তী খালে ফেলে দেয় ছাত্রলীগ কর্মীরা।

অনুরূপ ঘটনা ঘটে ধল্লা ইউনিয়নের খাসেরচরসহ কয়েকটি স্থানে। অপরদিকে, বিএনপির পাশপাশি মহাজোটের শরিকদল জাতীয় পার্টির প্রার্থী লাঙ্গল প্রতীকের এসএম আব্দুল মান্নানের নির্বাচনী প্রচারণায় হামলা ও গাড়ী ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। ১৫ ডিসেম্বর দুপুরে নির্বাচনী এলাকার হরিরামপুর উপজেলা চত্বরে তার ল্যান্ড ক্রুজার গাড়ীর কাঁচসহ তার সাথে থাকা একাধিক গাড়ী ভাঙচুর করে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ কর্মীরা।

এ সময় হামলায় ছাত্র সমাজের কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়। তার আগের দিন সন্ধ্যায় সিংগাইর উপজেলার খাসেরচর ও নয়াপাড়া গ্রামে লাঙ্গলের প্রচারণাকালে তাদের ধাওয়া করে আওয়ামীলীগ কর্মীরা। মঈনুল ইসলাম খান শান্ত , এসএম আব্দুল মান্নানের মতো অপর তিন প্রার্থী গোলাম সারোয়ার মিলন (কুলা), অ্যাডভোকেট ফেরদৌস আহমেদ আসিফ (ফুলের মালা) ও মোহম্মদ আলী ( হাত পাখা) আওয়ামীলীগের ভয়ে ঠিকমত প্রচারণা করতে পারছেন না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ক্ষমতাসীনদের হামলা-মামলা ও ভাঙচুর রোধকল্পে প্রশাসনের নিকট লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরির জন্য জোর দাবী জানিয়েছেন বিরোধী জোটের প্রাথীরা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত