প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আধুনিক ফুটবল একাডেমি গড়ার লক্ষ্য বাফুফের

নিজস্ব প্রতিবেদক : স্বাধীনতার পর থেকে দেশের ফুটবলে উত্থান পতন হয়েছে অনেকবারই। জল গড়িয়েছে দীর্ঘ সময়। ফিফা থেকে অর্থায়ন পেয়েও স্থায়ী একাডেমি বা জিমনেসিয়ামের মুখ দেখেনি দেশের ফুটবল। আক্ষেপ ছিল একটি স্থায়ী ফুটবল একাডেমি আর জিমনেসিয়ামের। একবার একাডেমি গড়েও উদ্যোগ বানচাল হয়েছে।

এবার ৪৭ বছরের আক্ষেপ ঘুচতে চলেছে আগামী বছরের শুরুতে। দেশের ফুটবল উন্নয়নের স্বার্থেই ঢাকায় স্থায়ী একাডেমির পাশাপাশি বাফুফে ভবনে আধুনিক সরঞ্জামাদি নিয়ে গড়ে উঠবে জিমনেসিয়াম।

যেখানে প্রতিবেশি দেশগুলোতে একাধিক ফুটবল একাডেমি আছে সেখানে বাংলাদেশে ফুটবলভিত্তিক একাডেমির আক্ষেপ ছিলো শুরু থেকেই। খেলোয়াড় তৈরির কারখানা স্থাপনের ব্যাপারে সবসময় উদাসীন থাকতে দেখা গেছে দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ অভিভাবককে। এর আগেও সিলেটে একটি ফুটবল একাডেমি করেও কালের গর্ভে হারিয়ে গেছে একাডেমির উদ্যোগ। এখান থেকে অনূর্ধ্ব ১৫ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা ঘরে তুলেছিল সাদরা।

সম্প্রতি বারিধারায় ফোর্টিস গ্রুপের মাঠ পরিদর্শন শেষে স্থায়ী ফুটবল একাডেমি গড়ার ঘোষণা দিয়েছেন কাজী সালাউদ্দীন। আগামী বছরের শুরুতেই স্থানীয় পৃষ্ঠপোষকদের অর্থায়নে ঢাকায় স্থায়ী একাডেমি স্থাপন করা হবে বলে জানান বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ, ‘বয়সভিত্তিক দলগুলো সেখানে খেলবে। দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণের মধ্যে থাকবে। বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হবে।

এছাড়া এতোবছরের আক্ষেপ একটি জিমনেসিয়াম তৈরির কথাও জানালেন সোহাগ, ‘আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মার্চে চালু হবে জিমনেসিয়াম। ইতোমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে।

ইতোমধ্যে যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জমাদিও কেনা হয়ে গেছে বলে জানান সোহাগ, ‘আমরা আশা করি আগামী বছরের মার্চের মধ্যে এই কার্যক্রম শেষ করতে পারবো। ফুটবলাররা বাফুফে ভবনেই জিম ব্যবহার করতে পারবে।

দেশের ফুটবলারদের স্বার্থেই উন্নত প্রযুক্তি নির্ভর জিপিএস প্রযুক্তির ৪৫ ডিভাইস কিনেছে বাফুফে। বছরের শুরুতে ফুটবলাররা এই প্রযুক্তি ব্যবহার করতে পারবে বলে আশ্বাস বাফুফে কর্মকর্তাদের।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত