প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অভাগা চানাচুরওয়ালা ইসমাইল

আমজাদ হোসেন আমু, (কমলনগর) লক্ষ্মীপুর: লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে অদ্ভুত এক চানাচুরওয়ালার দেখা মিলল। উপজেলার প্রায় স্থানে তার সাথে দেখা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে তার কথা হলে তিনি জানান, ৩৭ বছর ধরে চানাচুর-ঝালমুরি, চটপটি বিক্রি করছি। ১৯৭১ সালে যুদ্ধকালীন তার বয়স ছিল ১৬ বছর। যুদ্ধে পাকিস্তানীদের বিরুদ্ধে অংশ গ্রহণ করি। অনেক বার নির্যাতিত হয়েছি। কথা বলতে মুখে সমস্যা দেখা দিচ্ছে। জানতে চাইলে বলেন, দেশবিরোধীরা তার মুখের চোয়াল ভেঙে দেয়। স্বাধীনতা ৪৮ বছরেও তার কোন স্বীকৃতি মিলেনি। দেশ নিয়ে অনেক দুঃখের কথা বলল। নদীতে দু’বার ভিটে-মাটি ভেঙে যায়। সর্বচ্ছো হারিয়ে এখন পথে-পথে, হাট-বাজারে চানাচুর-ঝালমুরি-চটপটি বিক্রি করে সংসার, জীবিকা নির্বাহ করছেন।

তিনি কমলনগর-রামগতির সব বাজার-হাটে ভ্যান নিয়ে চানাচুর-চটপটি বিক্রি করে। তার সম্বল শুধু একটি ভ্যান গাড়ি। আর কোন জায়গা-জমি নেই। নদী ভাঙার পর অন্যের জায়গায় বসবাস করেন।

মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকায় নাম আছে জানতে চাইলে বলেন, আমার বয়স (৬৭) বয়স। অনেক কষ্টে দেশের জন্য যুদ্ধ করেছি। নিজের মুখের চোড়াল ভেঙে গেছে, খাওয়া-দাওয়া-কথা বলতে পারনি না সমস্যা হয়। সরকারী কোন সুধিবা পায়নি। নদীতে দু’বার কবলিত হয়েছি।

প্রতিদিন চানাচুর-ঝালমুরি-চটপটি বিক্রি করে ২৫০০-৩০০০ টাকা আয় হয় । যা লাভ হয়, কোনমতে জীবন চলে। তার দু’স্ত্রী, তিন ছেলে-পাঁচ মেয়ের সংসার।

চানাচুরওয়ালা ইসমাইল হোসেন কমলনগরের সাহেবের হাট ইউনিয়ের কাদির পন্ডিতের হাট এলাকার বাসিন্দা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত