প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিক্রমাসিংহের প্রধানমন্ত্রীত্ব ফিরলেও সঙ্কট কাটছে না শ্রীলঙ্কার

সান্দ্রা নন্দিনী : পুনরায় ক্ষমতায় ফিরেছেন শ্রীলঙ্কার পদচ্যুত প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে। রোববার দেশটির প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনার কাছে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন ৬৯ বছর বয়সী এ নেতা। অন্যদিকে, বিতর্কিত প্রক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পাওয়া মাহিন্দা রাজাপাকসে গত শনিবার পদত্যাগ করেন। আল জাজিরা

উল্লেখ্য, গত ২৬ অক্টোবর নানা দ্বন্দ্বের জেরে প্রেসিডেন্ট সিরিসেনা প্রধানমন্ত্রী বিক্রমাসিংহকে আকস্মিকভাবে বরখাস্ত করলে এই সংকটের সূত্রপাত হয়। এরপর নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মাহিন্দা রাজাপাকসেকে নিয়োগ দেন তিনি। গত ৯ নভেম্বর শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্ট ভেঙে দিয়ে ৫ জানুয়ারি আগাম সাধারণ নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট সিরিসেনা।

তবে ১৩ ডিসেম্বর প্রেসিডেন্টের ওই ঘোষণাকে অসাংবিধানিক বলে রায় দেয় দেশটির সুপ্রিমকোর্ট। অপরদিকে, বরখাস্ত হওয়া বিক্রমাসিংহের প্রধানমন্ত্রিত্বের প্রতি আস্থা প্রস্তাব পাস হয় পার্লামেন্টে। ফলে নতুন করে দায়িত্ব নিতে তার আর কোনো বাধা থাকলো না।

এর আগে, প্রেসিডেন্ট সিরিসেনা বিক্রমাসিংহেকে ‘অতি দাম্ভিক’ ও ‘দুর্নীতিগ্রস্ত’ আখ্যা দিয়ে বলেছিলেন, বিক্রমাসিংহে প্রধানমন্ত্রী হয়ে ফিরে এল তার সঙ্গে একঘণ্টাও অফিস করবেন না তিনি।

এদিকে, রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, সেনা অভ্যুত্থানের হুমকিতে থাকা শ্রীলঙ্কার জন্য আপাতদৃষ্টিতে বিক্রমাসিংহের ফিরে আসা স্বস্তিদায়ক হলেও সুদূরপ্রসারী কোনও সমাধান এখনও বহুদূরের বিষয়।

ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিসি গ্রুপের শ্রীলঙ্কার প্রজেক্ট ডিরেক্টর অ্যালান কিনান বলেন, স্থায়ী শান্তির পথে শ্রীলঙ্কার পথ এখনও সুগম নয়। কেননা, দেশটির অর্থনীতি, সংবিধান পুনর্গঠন এবং সর্বোপরি যুদ্ধাপরাধ ও দুর্নীতির প্রশ্নে রাজনীতির ৩ মূল ক্রীড়ানক সিরিসেনা, বিক্রমাসিংহে ও রাজাপাকসের মধ্যে থাকা মতপার্থক্য এতটাই বেশি যে তাদের পক্ষে একমত হয়ে কাজ করা প্রায় অসম্ভব বলেই মনে হচ্ছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত