প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

১৯ দফা নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দিয়ে ইশতেহার ঘোষণা বিএনপির

শাহানুজ্জামান টিটু ও শিমুল ও মাহমুদ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে, ১৯ দফা অঙ্গীকার নিয়ে ইশতেহার ঘোষণা করছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল(বিএনপি)। মঙ্গলবার (১৮ ডিসেম্বর) রাজধানীর গুলশানে লেকসোর হোটেলে সকাল সাড়ে ১১টা থেকে ইশতেহার পাঠ করছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

১৯ প্রতিশ্রুতির এই ইশেতহারে বলা হয়েছে- প্রজাতন্ত্রের সব ক্ষমতার মালিক জনগণ। প্রধানমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতির ক্ষমতার ভারসাম্য আনা হবে। পরপর দুই মেয়াদের বেশি প্রধানমন্ত্রী থাকা যাবে না। মন্ত্রিসভাসহ প্রধানমন্ত্রীকে সংসদের কাছে দায়বদ্ধ থাকার সাংবিধানিক বাধ্যবাদকতা নিশ্চিত করা হবে। বিরোধী দল থেকে ডেপুটি স্পিকার নিয়োগ দেওয়া হবে। এক দলীয় শাসনের পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে তা নিশ্চিত করা হবে। প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, এমপি এবং উচ্চ পদস্থ সরকারি কর্মকর্তাদের সম্পদের হিসাব প্রতিবছর প্রকাশ করা হবে।

বিচার বিভাগে সংবিধানের ১১৬ অনুচ্ছেদ সংশোধন করে নিম্ম আদালতের নিয়ন্ত্রণ রাষ্ট্রপতির হাত থেকে সুপ্রিমকোর্টের হাতে ন্যস্ত করা হবে। বিশেষ ক্ষমতা আইন ১৯৭৪ বাতিল করা হবে। জাতীয় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার ১১ শতাংশে উন্নীত করা হবে। শিক্ষাখাতে জিডিপির ৫ শতাংশ অর্থ ব্যয় করা হবে।

ইশতেহারে বলা হয়েছে, পুলিশ ও সামরিক বাহিনী ছাড়া সরকারি চাকরিতে প্রবেশের কোনো বয়সসীমা থাকবে না। ত্রিশোর্ধ্ব শিক্ষিত বেকারের জন্য বেকার ভাতা চালু করার উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রীয় সক্ষমতা পরীক্ষা করে বাস্তবায়ন করার জন্য একটি কমিশন গঠন করা হবে। এ ছাড়া তুলে দেওয়া হবে পিইসি ও জেএসসি পরীক্ষা। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে পুরোপুরি স্বাধীন করা হবে। বিভাগীয় সদরে স্থায়ী হাইকোর্ট বেঞ্চ থাকবে। ভূমিহীনদের মধ্যে সরকারের খাস জমি বন্টন করা হবে। প্রথম বছরে গ্যাস, বিদ্যুৎ এর দাম বাড়ানো হবে না।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস-চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, শামসুজ্জামান দুদু, আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. সুকোমল বড়ূয়া, গোলাম আকবর খন্দকার প্রমুখ।

ইশতেহারটি তুলে ধরা হলো: ইশতেহারের মধ্যে রয়েছে,
বৃদ্ধা- বৃদ্ধা
* সার্ব্জনীন পেনশন ব্যবস্থা চালু
* অসহায় বয়স্কদের ভাতার পরিমাণ বৃদ্ধি
যুবক- যুবতী
* প্রথম ৩ বছরে ২ লক্ষ সরকারী চাকরী
* আগামী পাচ বছরে ১ কোটি নতুন কর্মসংস্থান
* ২০ বছর মেয়াদী বিশেষ ঋণ সুবিধা
* তথ্য প্রযুক্তি ও কৃষি খাতে বিশেষ প্রণোদনা
* নারীর মর্যাদা ও সম্পত্তির ন্যায়সঙ্গত উত্তরাধিকার নিশ্চিতকরণ
তরুণ- তরুণী
* ইয়ুথ পার্লামেন্ট প্রতিষ্ঠা
* মত প্রকাশে স্বাধীনতা নিশ্চিতকরণ
*ইন্টারনেটকে সুলভ করা ও এর গতি বৃদ্ধি করা
* স্বল্প সুদে শিক্ষাঋণ কিশোর -কিশোরী
*জিডিপি’র ৫% শিক্ষা খাতে বিরাদ্ধ
* নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতকরণ
* প্রতি জেলায় ক্রীড়া একাডেমি স্থাপন শিশু
* জিডিপি’র ৫% স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ
* শিশুদের ডায়াবেটিস ও বেড়ে ওঠাজনীত সমস্যার সমাধান
* পুষ্টি নিরাপত্তা

নির্বাচনে বিজয়ী হলে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট যেসব কাজ সম্পন্ন করবে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলো- ভোটের অধিকার নিশ্চিত করা; নির্বাচন কমিশন, নির্বাচনী আইন ও নির্বাচন ব্যবস্থার সংস্কার, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিতকরণ, ক্ষমতার ভারসাম্য নিশ্চিতকরণ, স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা এবং বিকেন্দ্রীকরণ, তরুণদের কর্মসংস্থান, শিক্ষা, দুর্নীতি দমন, স্বাস্থ্য, খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধ, মাদক নিয়ন্ত্রণ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, আদালত, কৃষি ও কৃষক, শিল্পায়ন, শ্রমিক কল্যাণ, ব্যাংকিং খাত, শেয়ারবাজার ও বাজেট, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, সামাজিক নিরাপত্তা, বয়োবৃদ্ধ, নারীর নিরাপত্তা এবং ক্ষমতায়ন, নিরাপদ সড়ক, যাতায়ত এবং পরিবহন, প্রবাসী কল্যাণ, গণমাধ্যম, ডিজিটাল প্রযুক্তি, সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গিবাদ, ধর্মীয় সংখ্যালঘু এবং ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ, জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ, বর্তমান সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প, মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযোদ্ধা, প্রতিরক্ষা, পররাষ্ট্রনীতি এবং অন্যান্য।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত