প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মহাস্থান হাটের সবজি যাচ্ছে সারাদেশে

বগুড়া প্রতিনিধি : বগুড়ার মহাস্থান হাটে বর্তমান রবি মৌসুমে সকল জাতের সবজির ব্যাপক আমদানি লক্ষ্য করা  গেছে। এ অঞ্চলের মহাস্থান হাটে প্রতিদিন অন্তত ৭০-৮০ লাখ টাকা মূল্যের সবজি বিক্রির জন্য রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় যাচ্ছে। শিবগঞ্জ কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, গত অক্টোবরের প্রথম থেকে এ জেলায় রবি মৌসুমের আগাম সবজি চাষ শুরু হয়েছে। বর্তমানে বাজারে ফুলকপি, পাতা কপি, মুলা, পানি লাউ (ছাচি), মিষ্টি লাউ, সিম, শশাসহ বিভিন্ন সবজি কেনাবেচা চলছে। এ মৌসুমে প্রায় ১২ হাজার বিঘা জমিতে সবজি চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। আর ফলন প্রতি হেক্টরে ২২ মেট্রিক টন। বর্তমানে হেক্টর প্রতি ১৬ টন করে সবজি পাওয়া যাচ্ছে।

জানা যায়, আবহাওয়াসহ সবকিছু অনুকূলে থাকায় সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। ভাল মূল্য পাওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি দেখা দিয়েছে। বগুড়ার শহর থেকে প্রায় ১২ কিলোমিটার উত্তরে মহাস্থানে সর্ববৃহৎ সবজি হাটে গিয়ে দেখা গেছে, বিভিন্ন ধরনের সবজি কেনাবেচা চলছে। পাইকারি হিসাবে প্রতিমণ ফুলকপি ৩৫০-৪৫০ টাকা, বাঁধাকপি প্রতিপিস ৮-১০ টাকা, মুলা প্রতিমণ ৪০০-৪৫০ টাকা, বরবটি প্রতি কেজি ২২ থেকে ২৫ টাকা, বেগুন প্রতিমণ ৫৫০-৬০০ টাকা, জলপাই প্রতিমণ ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা, পানিয়া লাউ (ছাচি) ১৫ থেকে ১৮ টাকা পিস, ৩ কেজি ওজনের মিষ্টি লাউ প্রতি পিস ৪০ থেকে ৫০ টাকা, পেঁপে প্রতিমণ ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা, করল্লা প্রতিমণ এক হাজার থেকে ১২শ টাকা, কচুরলতি প্রতি কেজি ২৮ থেকে ৩০ টাকা ও শশা এক হাজার টাকা মণ দরে বিক্রি করতে দেখা গেছে। শিবগঞ্জ উপজেলার আলীগ্রাম গ্রামের কৃষক মাসুদ রানা জানান, তিনি

প্রায় ৫ বিঘা জমিতে ৫ হাজার পিস ফুলকপি লাগিয়েছিলেন। প্রতিবিঘায় সবমিলিয়ে খরচ পড়ে ১৫ হাজার টাকা। আর তিনি ফুলকপি বিক্রি করেছেন ৩৫ হাজার টাকা। প্রায় দুগুণ লাভ হওয়ায় তিনি ও তার পরিবার খুব খুশি। বর্তমানে প্রতিদিন ছোট বড় ৩০টি ট্রাকে সবজি রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ময়মনসিংহ, বরিশাল, খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন মোকামে যাচ্ছে। প্রতি ট্রাকে গড়ে ২৫০ কেজি করে সবজি তোলা যায়। এ হিসেবে প্রতিদিন অন্তত কোটি টাকার সবজি কেনাবেচা হয়ে থাকে।

বগুড়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক প্রতুল চন্দ্র সরকার জানান, চলতি রবি মৌসুমে সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। বাজারে ভালো মূল্য পাওয়ায় কৃষকরা খুশি। তবে আমদানি বেশি হলে দর পতনের ব্যাপক সম্ভাবনার কথা জানান তিনি। সম্পাদনা : মুরাদ হাসান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত