প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খুলনায় জামায়াতের ২২ প্রার্থী, সাম্প্রদায়িক সহিংসতার আশঙ্কা

হ্যাপি আক্তার : বৃহত্তর খুলনা অঞ্চলে অর্থনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ আসনগুলোতে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে জামায়াতের ২২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। নিবন্ধন বাতিল হওয়া দলটি থেকে প্রার্থীরা ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করায় সহিংসতার আশঙ্কা করছেন মুক্তচিন্তার মানুষেরা। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর। আর এ নিয়ে রাজনৈতিক সচেতন মহল ও সাধারণ মানুষের মধ্যে বইছে সমালোচনার ঝড়। সূত্র : সময় টেলিভিশন।

খুলনা বিভাগের ৩৬টি আসনের মধ্যে ৮টি গুরুত্বপূর্ণ আসনে জামায়াত নেতারা ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। এই নিয়ে রাজনৈতিক সচেতন মহলের পাশাপাশি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে বিরাজ করছে এক ধরনের আতঙ্ক। বিগত বিএনপি-জামায়াতের শাসনামল এবং ২০১৩ ও ১৪ সালে ওইসব নির্বাচনী এলাকায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মন্দির ও বসত বাড়িতে জামায়াত-শিবির হামলা ও অগ্নিসংযোগ করে বলে অভিযোগ রয়েছে।

ভোটের রাজনীতিতে খুলনা অঞ্চলে এখন প্রধান সমালোচনার বিষয় জামায়াতের শীর্ষ ও গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা নেতাদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা নিয়ে। যাদের বিরুদ্ধে একাধিক সন্ত্রাস ও নাশকতার মামলা রয়েছে।

সাধারণ মানুষ বলছে, জামায়াত-শিবিরের নাম শুনলেই ২০০১ সালের মতো আমরা আতঙ্কিত হই। জামায়াত যে কার্যকলাপ চালিয়েছে অতীতে, সে বিষয়ে কিছু বলার নেই।

নির্বাচন বানচালের জন্য তারা হামলার ঘটনা ঘটাতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন। তিনি বলেন, খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাটে আমাদের ছয়জন প্রার্থী আছেন। প্রার্থীদের ভয়ভীতি দেখাতে ইতিমধ্যেই বিরোধীপক্ষ অনেক জায়গায় ককটেল ছুড়েছে।

অন্যদিকে স্বাধীনতার স্বপক্ষের মুক্তচিন্তাবিদরা হতাশা প্রকাশ করে বলেছেন, জামায়াতের বিষয়ে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের আরো বেশি দায়িত্বশীল হওয়া উচিত ছিলো।

খুলনার সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আহ্বায়ক হুমায়ুন কবীর ববি বলেন, আমি মনে করি একটা সুযোগ ছিলো, জামায়াত-শিবিরকে বাদ দিয়ে ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচন করতে পারতো। সেটা বাংলাদেশের জন্য একটি শুভদিক হতো।

এবারের নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের হয়ে খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট জেলায় দুইজন করে এবং যশোর ও ঝিনাইদহে একজন করে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জামায়াত নেতারা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত