প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কামাল! তুনে কামাল কিয়া ভাই!

উল্লাস মূর্তজা : বাংলাভিশনের জেষ্ঠ্য বার্তা সম্পাদক মাসুদ কামাল বলেছেন,  ড. কামাল যে ধারায় রাজনীতি করেন তাতে জামায়াত নিয়ে প্রশ্নের উত্তর ওনার কাছে নেই। জামায়াত নিয়ে উত্তর দিতে গেলে ওনার রাজনৈতিক স্থলনজনিত সমস্যায় পরার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে। মূলত রাজনীতিটাকে সুবিধার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে।  ড. কামালও এর ব্যতিক্রম নন। শনিবার ‘এটিএন নিউজ’-এর টকশোতে তিনি এসব কথা বলেন।

গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠক কামাল পাশা চৌধুরী বলেন, এটা রাজনৈতিক দেউলিয়াত্বের প্রকাশ। ওনাকে যে প্রশ্ন করা হয়েছিলো, তার উত্তর তিনি দিতে চাননি এবং ভবিষ্যতে যাতে কেউ এমন প্রশ্ন না করে তার জন্য তিনি এ ব্যবহার করেছেন। তিনি বাংলাদেশের সংবিধানের প্রণেতা, যেখানে তিনি নিজেই উল্লেখ করেছেন ধর্ম নিরপেক্ষ রাজনীতির কথা। সেখানে তিনি একটা জোটের প্রধান হয়ে একটি নিষিদ্ধ ধর্মীয় উগ্র সংগঠণ এবং স্বাধীনতা বিরোধী সংগঠন জামায়াতে ইসলামীকে ২২টি আসনে মনোনয়ন দিয়েছেন। যে প্রশ্নটা তাকে করা হয়েছিলো এটা সমস্ত জাতির প্রশ্ন। কিন্তু তিনি উত্তর না দিয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে যান।

সাংবাদিক, কলামিষ্ট মাহবুব কামাল বলেন, ড. কামাল হোসেন ইতিপুর্বে ঐক্যফ্রন্টের সভায় মাহমুদুর রহমান মান্নার সাথে খারাপ আচরণ করেছিলেন। তিনি মাঝে মধ্যেই অগ্নিশর্মা মূর্তিতে আবির্ভুত হন। তিনি মুখে যতই গণতন্ত্রের কথা বলুন, স্বৈরতান্ত্রিক মানসিকতা এখনও ওনার মধ্যে রয়েছে। তিনি সবসময় বলে এসেছেন আমাদের ধর্মভিত্তিক রাজনীতি বন্ধ করতে হবে, কিন্তু জামায়াতে ইসলামী সম্পূর্ণ ধর্মভিত্তিক দল, তার সাথেই তিনি যুক্ত হয়েছেন। তিনি বলেছিলেন, ৭১ সালে আমাদের দেশের অনেক মানুষকে ধর্মের নামে হত্যা করা হয়েছে আর তার সহযোগী ছিলো জামায়াত। আজ তিনি সেই দলের সাথে মিলে রাজনীতি করছেন।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ড. কামাল হোসেন যিনি বঙ্গবন্ধুর সহচর হিসেবে পরিচিত। তার মতো একজন বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদের কাছ থেকে এমন একটা ব্যবহার দেশের জনগণ আশা করেনি। তাকে আমরা জানি, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি হিসেবে। তিনি জঙ্গীদের বিরুদ্ধে, তিনি যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে তার অবস্থানের কথা বারবার বলে এসেছেন। আজ কোনো এক যাদুবলে তিনি যুদ্ধাপরাধী জামায়াতে ইসলামীর সাথে হাত মিলিয়েছেন।

ঢাকা-১৫ আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী কামাল আহম্মেদ মজুমদার বলেন, কোনো বিবেকবান মানুষ এমন উত্তর দিতে পারে না, আর কোনো সাংবাদিককে এমন পাল্টা প্রশ্নও করতে পারেন না। ড. কামাল হোসেন সবসময় ঢাকা-১৫ আসনে নির্বাচন করে এসেছেন কিন্তু এবারে ঐক্যফ্রন্ট থেকেজ মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে জামায়াতের সেক্রেটারি মো: শফিকুর রহমানকে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত