প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্বাচনী সহিংসতা :দশ জেলায় ভাংচুরহামলা, অগ্নিসংযোগ

বনিক বার্তা : নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারণার সঙ্গে সঙ্গে সহিংসতাও অব্যাহত রয়েছে। গতকালও দেশের বিভিন্ন জেলায় প্রতিপক্ষের ওপর হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগসহ নানা ধরনের সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ার খবরও পাওয়া গেছে। এসব সহিংসতায় আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। বণিক বার্তার প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর—

সাতক্ষীরা: সাতক্ষীরা-১ আসনে নির্বাচনী গণসংযোগ চালানোর সময় কলারোয়া বাজারে দুর্বৃত্তদের হামলায় বিএনপি প্রার্থী হাবিবুল ইসলাম হাবিবসহ সাতজন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে উপজেলা বিএনপি সভাপতি অধ্যাপক বজলুর রহমান, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মমতাজুল ইসলাম চন্দন ও দুই সাংবাদিক রয়েছেন।

গতকাল দুপুর ১২টা নাগাদ কলারোয়া উপজেলা সদরে নেতাকর্মীদের নিয়ে ধানের শীষ প্রতীকের লিফলেট বিতরণসহ গণসংযোগ করছিলেন হাবিবুল ইসলাম হাবিব। এ সময় পেছন থেকে লাঠিসোঁটা, লোহার রড নিয়ে কয়েকজন হেলমেটধারী তাদের ওপর হামলা করে। এ সময় প্রার্থী হাবিবুল ইসলাম হাবিব, জেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক বজলুর রহমান, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মমতাজুল ইসলাম চন্দন, বিএনপি নেতা আশরাফ হোসেন প্রমুখ আহত হন। স্থানীয় দুই সংবাদমাধ্যম দৈনিক নোয়াপাড়া ও দৈনিক সুপ্রভাতের দুই সাংবাদিকও এ সময় আহত হন। আহতদের কলারোয়া ও সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জে গতকাল বিএনপির জেলা কার্যালয়ের সামনে ইবি রোডে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় টিয়ারশেলের আঘাতে আহত হন সিরাজগঞ্জ সদর আসনের বিএনপি প্রার্থী রুমানা মাহমুদ। এ সময় আরো অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন বলে বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। এছাড়া স্থানীয় ছাত্রলীগের বিরুদ্ধেও বিএনপি অফিসের সামনে বোমা বিস্ফোরণ ঘটানোর অভিযোগ করেছে দলটি। অন্যদিকে বিএনপি কর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষে পুলিশের এক এসআই ও তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান বাচ্চুর অভিযোগ, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী রুমানা মাহমুদ গতকাল সন্ধ্যায় নেতাকর্মীদের নিয়ে দলীয় কার্যালয়ে যাওয়ার সময় ইবি রোডের ট্রাফিক মোড়ে পুলিশ তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশের ছোড়া টিয়ারশেলে রুমানা মাহমুদ ও বিএনপির সাত নেতাকর্মীসহ অন্তত ১৫ জন আহত হন। পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

অন্যদিকে বিএনপি কর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষ চলাকালে ঘটনাস্থল থেকে বিএনপির দুই কর্মীকে আটক করা হয় বলে সিরাজগঞ্জ সদর থানার ওসি মোহাম্মদ দাউদ জানিয়েছেন। এছাড়া বোমা বিস্ফোরণের কোনো ঘটনা ঘটেনি বলেও দাবি করেছেন তিনি।

চুয়াডাঙ্গা: চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর পর থেকেই স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীরা একে অন্যের ওপর সহিংসতার পাল্টা অভিযোগ তুলছেন।

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন খান খোকনের অভিযোগ, নির্বাচনী প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের বিএনপির প্রার্থী মাহমুদ হাসান খান বাবুর কর্মী-সমর্থকদের ভয়ভীতি দেখানোর পাশাপাশি তাদের ওপর হামলা চালাচ্ছে আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকরা।

ঝালকাঠি: ঝালকাঠি-২ আসনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী জীবা আমিনা খান ও তার সমর্থকের গাড়িতে ভাংচুর চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। নির্বাচনী প্রচারণাকালে গতকাল সন্ধ্যায় জেলার নলছিটি উপজেলার থানারপোলে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় তার সঙ্গে থাকা জেলা ছাত্রদলের ছয় নেতা আহত হয়েছেন। তারা হলেন জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি মিজানুর রহমান টিটু, সাইফুল ইসলাম শাহীন, কেশব সুমন সরকার, যুগ্ম সম্পাদক সালাউদ্দিন আহম্মেদ, সাদ্দাম হোসেন ও তৌহিদ হোসেন। আহতরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছেন।

জীবা আমিনা খান অভিযোগ করে বলেন, নলছিটিতে নির্বাচনী প্রচারণাকালে উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক দুলাল শরীফ ও ছাত্রলীগের সভাপতি ওয়াসিম হাওলাদারের নেতৃত্বে ১০-১৫ জনের একটি দল অতর্কিতে আমাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় তারা আমাদের দুটি গাড়ি ও তিনটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করে এবং ছাত্রদল নেতাদের পিটিয়ে আহত করে। এ হামলার ঘটনায় রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করা হবে।

নলছিটি উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ওয়াসিম হাওলাদার এ হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তার দাবি, অন্তঃকোন্দলের জেরে বিএনপির নেতাকর্মীরা নিজেরাই গাড়ি ভাংচুর করে অপপ্রচার চালাচ্ছে।

ফরিদপুর: ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার ঘারুয়া ইউনিয়নের গঙ্গাবর্দী এলাকায় স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী মো. মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন ও আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাজী জাফরউল্লাহর সমর্থকদের মধ্যে গতকাল সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় কাজী জাফরউল্লাহর পাঁচ সমর্থক আহত হন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কাজী জাফরউল্লাহর বিক্ষুব্ধ সমর্থকরা সন্ধ্যা থেকে মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছিলেন বলে জানা গেছে।

ভাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. শাহীন শেখ বলেন, বিকালে গঙ্গাবর্দী ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে ২৫-৩০ জন কর্মী-সমর্থক অবস্থান করছিল। এ সময় ওই সড়ক দিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সনের নেতৃত্বে একটি গাড়িবহর যাওয়ার সময় উভয় পক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে নিক্সনের সমর্থকরা হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ভাংচুর চালায়। এ হামলায় জামাল আব্দুল বারী ভুইয়া, শেখ নুর আলম, কুদ্দুস মৃধা, কুদ্দুস ভুঁইয়া ও আব্দুল হালিম নামে পাঁচজন আহত হন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী মুজিবুর রহমান চৌধুরী এ সময় গুলি চালান বলেও দাবি করেছেন তিনি।

অন্যদিকে মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সনের ব্যক্তিগত সহকারী মো. জাহিদুর রহমান গুলি চালানোর অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমাদের বহর ওই সড়ক দিয়ে আসার সময় আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকরা গতিরোধ করে পথ আটকে দেয়। এ সময় স্বল্প পরিসরে ধাক্কাধাক্কি হয়। তবে কেউ আহত হননি।

মেহেরপুর: মেহেরপুর-২ আসনের মটমুড়া ইউপিতে ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী প্রচারণা অফিস আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এছাড়া মেহেরপুর-১ আসনের বারাদিতে ঐক্যফ্রন্টের আরেকটি অফিসে ভাংচুর করা হয়। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ও গতকাল বিকালে এসব হামলার ঘটনা ঘটে।

মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থী জাভেদ মাসুদ মিল্টন বলেন, নির্বাচনী প্রচারণার জন্য মঙ্গলবার বিকালে মটমুড়া ইউনিয়নের বাওট বাজারে নির্বাচনী প্রচারণা অফিসটি স্থাপন করা হয়। রাতে একদল দুর্বৃত্ত অফিসের ত্রিপল ছিঁড়ে ফেলে তা পুড়িয়ে দেয়। সকালে স্থানীয় নেতাকর্মীরা ফোন দিয়ে অফিসটি পুড়িয়ে দেয়ার খবর জানান। বৃহস্পতিবার বিকালে বামন্দী কার্যালয়ে হামলা চালানো হয়। শুক্রবার বিকালে কাজিপুর ইউপিতে গণসংযোগে গেলে সেখানে আমার নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালানো হয়। এভাবে চলতে থাকলে আমরা কীভাবে প্রচার-প্রচারণা চালাব। প্রতিপক্ষের লোকজন বিভিন্নভাবে হেনস্থা করার চেষ্টা করছে, বিষয়গুলো রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জানানো হবে।

অন্যদিকে মেহেরপুর-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী মাসুদ অরুণ বলেন, মেহেরপুর সদর উপজেলার বারাদি বাজারে গতকাল কর্মিসভার আয়োজন করা হয়। আমি প্রধান অতিথি ছিলাম। কর্মিসভা শেষে স্থান ত্যাগ করার পর বারাদি ইউনিট আওয়ামী লীগ তাত্ক্ষণিক মিছিল বের করে। মিছিলটি বাজার প্রদক্ষিণ শেষে ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী প্রচারণা অফিসের সামনে গেলে আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাকর্মী সেখানে ভাংচুর চালায়। এ সময় তারা চেয়ার ভেঙে ত্রিপল ছিঁড়ে দিয়ে চলে যায়। এছাড়া মুজিবনগর উপজেলার মহাজনপুর ইউনিয়নেও আমার প্রচার মাইক ভেঙে দেয়া হয়েছে।

নড়াইল: নড়াইল-১ আসনে বিএনপির সমর্থকদের হামলায় কালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা খান শামীম রহমানসহ পাঁচজন আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল সন্ধ্যায় কালিয়া উপজেলার খাশিয়াল বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত শামীম রহমানকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এছাড়া খাশিয়াল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান খান রাসেল সুইটসহ আরো তিনজন আহত হয়েছেন।

বরিশাল: বরিশালের গৌরনদীতে গতকাল দুপুরে জুমার নামাজের আগে ও পরে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের হামলায় বিএনপির সাত নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ তুলেছে দলটি। হামলাকারীরা এ সময় দুটি মোটরসাইকেল ও ধানের শীষের প্রচার মাইক ভাংচুর করে বলে জানা গেছে।

খুলনা: খুলনায় আওয়ামী লীগের পৃথক দুটি কার্যালয়ে বোমা হামলা ও অগ্নিসংযোগ করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল রাতে ফুলতলা উপজেলার বেজেরডাঙ্গাস্থ ফুলতলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয় বোমা হামলা, দামোদর ইউনিয়ন কার্যালয়ে হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এতে আওয়ামী লীগের সাত-আটজন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

ফুলতলা থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, রাত সাড়ে ৮টার দিকে দুর্বৃত্তরা বেজেরডাঙ্গার ফুলতলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে বোমা হামলা চালায়। তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি। অন্যদিকে রাত সোয়া ৯টার দিকে গাড়াখোলার দামোদর ইউনিয়ন কার্যালয়ে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করে সন্ত্রাসীরা। এতে আওয়ামী লীগের সাত-আটজন কর্মী আহত হয়েছেন। তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কুমিল্লা: কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর) আসনের বিএনপির প্রার্থী কেএম মজিবুল হকের গাড়িবহরে গতকাল হামলা হয়েছে। বিকাল ৫টা নাগাদ মুরাদনগর থানার সামনে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা লাঠিসোটা নিয়ে এ হামলা চালায় বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। গাড়িবহরে অবস্থানরত বিএনপির নেতাকর্মীরা পাল্টা ধাওয়া দিলে হামলাকারীরা পিছু হটে যায় বলে দাবি করছে দলটি। হামলায় তিনটি গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। আহত হয়েছেন বিএনপির ১০-১২ জন নেতাকর্মী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত