প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রার্থী কেনাবেচা শুরু হয়েছে : সাখাওয়াত হোসেন

জুয়েল খান : সাবেক নির্বাচন কমিশনার অব. বিগ্রেডিয়ার জেনারেল ড. এম সাখাওয়াত হোসেন বলেছেন, সতন্ত্র প্রার্থী এবং তাদের এজেন্টরা টাকার বিনিময়ে বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। এই এজেন্টরাই ভোট কারচুপির ক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তার করে। বৃহষ্প্রতিবার রাতে নিউজ ২৪ এর কে আলোচনায় তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, গত দশ বছরে রাজনৈতিক দলগুলো তাদের প্রভাব দেখায়নি তাই তাদের সাংগঠনিক কি ধরনের শক্তি আছে এবং ভোটব্যাংক কতটা আছে সেটা কিন্তু আমরা জানি না। তাই এবারের নির্বাচনে ধারণা করা সম্ভব নয় কে কেমন ফল করবে। সাধরণ কিছু ভোটার আছে তাদের ভোটের ওপর জয়-পরাজয় নির্ভর করছে, তবে ভোটেরদিন ভোটকেন্দ্রের পরিবেশ কেমন হবে সেটাই দেখার বিষয়। কারণ ভোটের দিন পরিবেশ খারাপ হলে সাধারণ ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে যাবে না, যার প্রভাব পড়বে নির্বাচনে। সেটা নির্ভর করছে নির্বাচনী পরিবেশের ওপর।

তিনি আরো বলেন, এত পরিমানে নির্বাচনী মনোনয়ন বাতিল হওয়াটা স্বাভাবিক নয়। তবে এবারের নির্বাচনে অনেক প্রার্থী তার অজ্ঞতার কারণে বাতিল হয়েছে আবার কিছু মনোনয়ন বাতিল হয়েছে উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে। এত অল্প সময়ের মধ্যে প্রতিদিন ১৮১ টা মনোনয়নের আপিল ভালোভাবে দেখা সম্ভব নয়। রিটার্নিং কর্মকর্তারা অনেক ক্ষেত্রে মনোনয়নে সামান্যতম সমস্যা ধরা পড়লেই দায়সাড়াভাবে নির্বাচন কমিশনের আপিল বিভাগে পঠিয়ে দিয়েছে আর এর ফলে এতো পরিমান মনোনয়ন প্রথম পর্যায়ে বাদ পড়ে জমা হয়েছে নির্বাচন কমিশনে।

তিনি জানান, তিনটা কারণে এতো পরিমান বাতিল মনোনয়ন নির্বাচন কমিশনে জমা পড়েছে, তড়িঘড়ি করে মনোনয়ন জমা দেয়া, অজ্ঞতার কারণে মনোনয়ন অনেকের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে আর কিছু মনোনয়ন রিজেক্ট হয়েছে উদ্দেশ্যপ্রনোদিত ভাবে। এছাড়া আমাদের দেশের স্বল্প পরিমান রিটার্নিং কর্মকর্তা থাকার কারণে এতোবড় কর্ম সম্পাদন করা সম্ভব নয়। আর এতোবড় পরিসরে নির্বাচনের দিন গণমাধ্যম সকল ভোটকেন্দ্রে হয়তো সেভাবে পৌঁছতে পারবে না।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত